• 22 May, 2024

সদ্য অবসরে যাওয়া শিক্ষক শাহিদকে আগামিতে চন্ডিবরপুর ইউপি’র চেয়ারম্যান দেখতে চান এলাকাবাসী

সদ্য অবসরে যাওয়া শিক্ষক শাহিদকে আগামিতে চন্ডিবরপুর ইউপি’র চেয়ারম্যান দেখতে চান এলাকাবাসী

“এতোকাল আমরা চন্ডিবরপুর ইউনিয়নে ছায়া চেয়ারম্যান হিসেবে দেখেছি বর্তমান চন্ডিবরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজিজুর রহমানের একমাত্র ভাই শাহিদুর রহমানকে, আমরা ভাবতেই পারি আগামিতে এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হয়ে তিনি তার ভাইয়ের অসমাপ্ত কাজগুলো সম্পন্ন করুক।”

স্টাফ রিপোর্টার : একনাগাড় ৩৬ বছর একই স্কুলে শিক্ষাগতা শেষ করে বিদায় নিলেন মো: শাহিদুর রহমান নামের এক শিক্ষক। ১৯৮৭ সালে নড়াইল সদরের চন্ডিবরপুর ইউনিয়নের কুরুলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগদান করে শিক্ষাগতা শুরু করেন তিনি। এই স্কুলে যোগদানের একমাস পর বদলি হয়ে যোগদান করেন সিমানন্দপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। মূলত: এই স্কুলেই তার শিক্ষাগতা পেশা শুরু এবং এখানেই তার কর্মজীবন শেষ। ১৪ জানুয়ারি ২০২৪ ছিলো এই শিক্ষকের শেষ কর্মদিবস।

তার এই শেষ কর্মদিবস উপলক্ষে রোববার (১৪ জানুয়ারি) বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে শিক্ষক, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে এক আড়ম্বর বিদায়ী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

01-7.jpgতার এই অবসরজনিত বিদায়ী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিদ্যালয়ের এসএমসি’র সভাপতি কাজী আব্দুল কাদের। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো: জাহাঙ্গীর আলম। বিশেষ অতিথি সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার রনোতোষ কুমার সেন, সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো: আশরাফুল আলম, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো: আবুল বাসার, সহকারী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো: ওয়াহিদুর রহমান, বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষার্থী ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এই শিক্ষকের শিক্ষাগতা জীবনের স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য রাখেন।

এ সময় অত্র বিদ্যালয় ও বিদ্যালয় সংলগ্ন ইসলামাবাদ দাখিল মাদ্রসা, দুইটি এতিমখানার শিক্ষার্থীরা, জেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষকমন্ডলী, জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

02-7.jpgবিদায়ী শিক্ষক মো: শাহিদুর রহমান স্কুল থেকে অবসর নিলেও স্কুলের উন্নয়ন ও স্কুলের শিক্ষক স্বল্পতার কথা তুলে ধরতে ভুলেননি তিনি। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির মাধ্যমে তিনি বিদ্যালয়ের দৈন্যতার কথা তুলে ধরেন এবং সব সময় স্কুলের শিক্ষার মানোন্নয়নে সর্বদা চেষ্টা করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। বিদায়ী অনুষ্ঠান শেষে আজিজুর রহমান বালিকা এতিমখানার এতিমদের সাথে দুপুরের খবারে অংশ নেয় অতিথিবৃন্দ।

বিদায় অনুষ্ঠান শেষে সদ্য অবসরগ্রহণে যাওয়া শিক্ষক শাহিদুর রহমান সম্পর্কে অত্র এলাকার বিশিষ্টজন মো: তরিকুল ইসলামের নিকট (উপজেলা সমবায় অফিসার, মনিরামপুর) জানতে চাইলে তিনি নড়াইলকণ্ঠকে জানান, “এতোকাল আমরা চন্ডিবরপুর ইউনিয়নে ছায়া চেয়ারম্যান হিসেবে দেখেছি বর্তমান চন্ডিবরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজিজুর রহমানের একমাত্র ভাই শাহিদুর রহমানকে, আমরা ভাবতেই পারি আগামিতে এই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হয়ে তিনি তার ভাইয়ের অসমাপ্ত কাজগুলো সম্পন্ন করুক।”  

তিনি আরও বলেন, সদ্য অবসর যাওয়া এই শিক্ষককে আমরা দেখেছি তিনি শিক্ষাকতা করার পাশাপাশি ছোট-খাটো ব্যবসা করতেন এবং এই চন্ডিবরপুর ইউনিয়নে শিক্ষকতা জীবনে নিজের সখ-আল্লাদ বিসর্জন দিয়ে ছায়া হিসেবে প্রতিনিয়ত ইউনিয়নের মানুষের পাশে থেকেছেন। এক কথায় আমরা তাকে অধিকাংশ দায়িত্ব পালন করতে দেখেছি।

চন্ডিবরপুর ইউনিয়নরে বর্তমান চেয়ারম্যান মো; আজিজুর রহমানের ছোট ভাই শাহিদুর রহমান সদ্য শিক্ষকতা থেকে অবসর গ্রহণ করেছেন, এখন কি আপনার ভাইকে আপনার স্থলাভিষিক্ত করার কোন পরিকল্পনা বা চিন্তা-ভাবনা আছে কিনা এমন প্রশ্ন করলে তিনি নড়াইলকণ্ঠকে বলেন, জনপ্রতিনিধি হওয়াটা বর্তমান ব্যয়বহুল ও চরম পিড়াদায়ক। আবার দায়িত্ব পালন করাটাও খুবই কঠিন। এ সব বিষয় আপনাদের জানা। তবে আমি মনে করি আমার ভাই এই কর্মকান্ডে না আসুক। তারপরও সময় পরিস্থিতি বলে দেবে কি কারা উচিৎ।  

বিদায়ী শিক্ষক শাহিদুর রহামানকে নিয়ে এই ইউনিয়নের নেতৃত্ব দেয়া নিয়ে জানতে চাওয়া হয় চন্ডিবরপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মো: জাহিদুর রহমানের নিকট তিনি বলেন, শাহিদুর রহমান নি:সন্দেহে একজন ভালো মানুষ। শিক্ষকতার পাশাপাশি এ ইউনিয়নের প্রতিটি কর্মকান্ডে আমরা তাকে খুব কাছাকাছি পেয়েছি। তবে যে বিষয়টি জানতে চাইছেন সেটা এই মহুর্তে বলা খুবই মুশকিল। সময় ও পরিস্থিতি হলে এর উত্তর পেয়ে যাবেন আশা করি।

আগামিতে ভাইয়ের স্থলাভিষিক্ত হওয়ার ভাবনা আছে কিনা এমন প্রশ্ন করলে অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক শাহিদুর রহমান নড়াইলকণ্ঠকে জানান, এই মূহুর্তে বলাটা খুবই মুশকিল। তবে সময় আসলে এবং মানুষ যদি চায় তাহলে তখন ভেবে দেখা যাবে।

মো: শাহিদুর রহমান বাজে সিমানন্দপুর গ্রামের মরহুম মো: তোবারক হোসেন ভূঁইয়া ও রওশনা বেগমের  সর্বকনিষ্ঠ সন্তান। শাহিদুর রহমানরা দুই ভাই চার বোন, বর্তমান জীবত আছেন সকলে এবং সুস্থ্য আছেন। বড় ভাই মো: আজিজুর রহমান ভূঁইয়া চন্ডিবরপুর ইউনিয়নের সাত সাত বার নির্বাচিত চেয়ারম্যান। এই শিক্ষক ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত। তার দুইটি সন্তান ও স্ত্রী রয়েছে। মেয়েটি কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যায়ে অধ্যায়নরত এবং ছেলেটি অস্ট্রেলিয়া স্কলারশীপ নিয়ে উচ্চ শিক্ষায় অধ্যায়নরত রয়েছে।