• 15 Jun, 2024

ভারত থেকে বাংলাদেশে অস্ত্রপাচারের চেষ্টা

ভারত থেকে বাংলাদেশে অস্ত্রপাচারের চেষ্টা

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশের সীমান্ত এলাকা দিয়ে বাংলাদেশে অস্ত্রপাচারের চেষ্টার সময় এক চোরাকারবারীকে গ্রেপ্তার করেছে দেশটির সীমান্ত রক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)। এ সময় চোরাকারবারীর কাছ থেকে তাজা গুলিসহ দেশীয় একটি অবৈধ পিস্তল উদ্ধার করা হয়েছে।

শনিবার পশ্চিমবঙ্গের উত্তর চব্বিশ পরগণা জেলার মিসিমপুর সীমান্ত এলাকা থেকে ওই চোরাকারবারীকে গ্রেপ্তার ও অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিএসএফ। ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, গ্রেপ্তারকৃত চোরাকারবারীর নাম আলী মন্ডল।


বিএসএফ বলছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের সাউথ বেঙ্গল ফ্রন্টিয়ারের অধীন ৬৮ ব্যাটালিয়নের মিসিমপুর তল্লাশি চৌকির কাছ থেকে একটি দেশীয় পিস্তল, দুটি ম্যাগাজিন এবং পাঁচ রাউন্ড তাজা গুলিসহ (৭.৬৫ মিমি) এক চোরাকারবারীকে গ্রেপ্তার করেছেন সৈন্যরা। চোরাকারবারী ভারত থেকে অবৈধ অস্ত্র বাংলাদেশে পাচারের চেষ্টা করছিলেন।

‘পশ্চিমবঙ্গের উত্তর চব্বিশ পরগণা জেলার মিসিমপুর তল্লাশি চৌকির কাছে এই ঘটনা ঘটেছে। বিএসএফ জওয়ানরা ভারত থেকে বাংলাদেশে অস্ত্রপাচারের বিষয়ে বিশ্বস্ত সূত্র থেকে তথ্য পায়। এই বিষয়ে নিশ্চিত হওয়ার পর সৈন্যরা ওই এলাকায় অভিযান শুরু করেন এবং চারদিক থেকে এলাকাটি ঘিরে ফেলেন।’

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, শনিবার স্থানীয় সময় সকাল ৯টা ২০ মিনিটের দিকে সেখানকার একটি কলাবাগানে দুই সন্দেহভাজনের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করছিলেন বিএসএফ জওয়ানরা। এ সময় ওই চোরাকারবারীরা কৃষকের ছদ্মবেশ ধারণ করেন। বিএসএফ জওয়ানরা তাদের গ্রেপ্তারের জন্য এগিয়ে গেলে তারা ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। পরে বিএসএফ জওয়ানরা  ধাওয়া করে একজনকে ধরে ফেলেন এবং তার কাছ থেকে ১টি দেশীয় পিস্তল, দুটি ম্যাগাজিন এবং পাঁচ রাউন্ড তাজা গুলি জব্দ করেন।


প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আলী মন্ডল সব ধরনের আন্তঃসীমান্ত চোরাচালানের সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। তিনি বলেছেন, শনিবার সকালের দিকে তার গ্রামের বাসিন্দা সেলিম সাহজি তাকে একটি পিস্তল, দুটি ম্যাগাজিন এবং পাঁচটি রাউন্ড গুলি দেন। পরে সুযোগ বুঝে এই অবৈধ অস্ত্র তিনি বাংলাদেশের গোপালপুর গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল মন্ডল ও রহিম মন্ডলের হাতে তুলে দেওয়ার নির্দেশ দেন।

গ্রামের অপর বাসিন্দা লালিম মন্ডলও তার সহযোগী বলে দাবি করেছেন আলী মন্ডল। তবে তিনি ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে গেছেন, বিবৃতিতে জানিয়েছে বিএসএফ।

এ নিয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় ভারত থেকে বাংলাদেশে অস্ত্র চোরাচালানের দুটি ঘটনার বিরুদ্ধে বিএসএফ জওয়ানরা অভিযান চালিয়েছেন বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, পৃথক অভিযানে বিএসএফ জওয়ানরা চোরাকারবারীদের গ্রেপ্তারে সক্ষম হয়েছেন।


এর আগে, গত শুক্রবার বিএসএফের ১১২ ব্যাটালিয়নের সদস্যরা বাংলাদেশে পাচারের চেষ্টার সময় তারালি সীমান্তে দুটি দেশীয় পিস্তল, এক রাউন্ড তাজা গুলি ও তিন কেজি গাজা উদ্ধার করেন। পরে গ্রেপ্তারকৃত চোরাকারবারী ও জব্দকৃত মালামাল বাগদা থানায় হস্তান্তর করা হয়।