• 23 Jul, 2024

স্বতন্ত্রদের হারানোর শঙ্কায় পিটিআই, জোট সঙ্গী খুঁজছেন নওয়াজ

স্বতন্ত্রদের হারানোর শঙ্কায় পিটিআই, জোট সঙ্গী খুঁজছেন নওয়াজ

সাধারণ নির্বাচনের পর পাকিস্তানে সরকার গঠন করা নিয়ে ব্যাপক রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে।

 নির্বাচনে কোনও দল একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় দেশটিতে জোট সরকার গঠনে দলগুলোর মাঝে ব্যাপক দর কষাকষি চলছে। দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের রাজনৈতিক দল পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) ও পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) জোট সরকার গঠনের আলোচনা হলেও এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারেনি দল দুটি।

গত ৮ ফেব্রুয়ারির বিতর্কিত নির্বাচনে কোনও দলই সরকার গঠনের মতো প্রয়োজনীয় ম্যান্ডেট পায়নি। রোববার নির্বাচনের ফল প্রকাশের পর থেকে দলগুলোর মাঝে দফায় দফায় আলোচনা হয়েছে। চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে না পারায় জোট সরকার গঠনের কঠিন আলোচনা পুনরায় শুরু করার জন্য সোমবার পিপিপি ও পিএমএল-এনের নেতারা রাজধানী ইসলামাবাদে বৈঠকে বসছেন।

দেশটির তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের শীর্ষ এক সহযোগী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বার্তা সংস্থা ডিপিএকে বলেছেন, ‘‘আমরা ক্ষমতা ভাগাভাগির একেবারে কাছাকাছি পৌঁছেছি। এই সপ্তাহটি গুরুত্বপূর্ণ।

সাবেক প্রেসিডেন্ট আসিফ আলি জারদারির রাজনৈতিক দল পিপিপি এবং অন্যান্য দলের সঙ্গে জোট গঠনের বিষয়ে নওয়াজ শরিফ আলোচনা করছেন।

এদিকে, দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী কারাবন্দি ইমরান খানের রাজনৈতিক দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) সমর্থিত প্রার্থী, যারা স্বতন্ত্র হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন, তাদের অন্য দলে যোগ দিতে আইনি কোনও বাধা নেই। অনেকেরই পিটিআই থেকে বেরিয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

নওয়াজের ওই সহযোগী বলেছেন, আমরা স্বতন্ত্র বিজয়ীদের নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করছি।

এর মাঝেই জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে বিজয়ী অন্তত ছয়জন স্বতন্ত্র প্রার্থী নওয়াজ শরিফের দল পিএমএল-এনে যোগ দিয়েছেন বলে সোমবার দেশটির সংবাদমাধ্যম এআরওয়াই নিউজের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে। তাদের মধ্যে পিটিআইয়ের সমর্থন নিয়ে লাহোরের একটি আসন থেকে জয়ী শহটির সাবেক ডেপুটি মেয়র ওয়াসিম কাদির রোববার প্রথম স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নওয়াজের দলে যোগ দেন।

এরপরে স্বতন্ত্র হিসেবে পিএমএল-এনে যোগ দিয়েছেন নির্বাচনে জয়ী রাজা খুররাম নওয়াজ, ব্যারিস্টার আকেল, পীর জহুর হুসেইন কুরেশি, সরদার শমসের মাজারি ও ব্যারিস্টার মিয়া খান বুগতি। তবে তারা পিটিআই সমর্থিত বিজয়ী প্রার্থী কি-না তা দেশটির সংবাদমাধ্যম ডন জানায়নি।

পিএমএল-এনের এক্স অ্যাকাউন্টে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে দলটির জ্যেষ্ঠ ভাইস-প্রেসিডেন্ট মরিয়ম নওয়াজের পাশে দাঁড়িয়ে ওয়াসিমকে বলতে শোনা যায়, ‘‘আমি আমার ঘরে ফিরেছি।’’

নির্বাচনের আগে পিটিআইয়ের নিবন্ধন বাতিল করায় স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিপুল আসনে জয় পেয়েছেন দলটির সমর্থিত প্রার্থীরা। পাকিস্তানের সংবিধান অনুযায়ী, ফল প্রকাশের তিন দিনের মধ্যে কোনও নিবন্ধিত দলে যোগদান অথবা সংসদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে থাকতে পারবেন তারা।

কিন্তু জোট সরকার গঠন করা নিয়ে পিএমএল-এন ও পিপিপির মাঝে এখনও সমঝোতা না হওয়ায় পিটিআই-সমর্থিত অন্তত ১৫ থেকে ২০ জন স্বতন্ত্র প্রার্থীকে দলে ভেড়ানোর জন্য যোগাযোগ শুরু করেছে পিএমএল-এন।

নির্বাচনের তিনদিন পর পাকিস্তানের জাতীয় নির্বাচন কমিশন চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করেছে রোববার। নির্বাচন কমিশনের ঘোষণা অনুযায়ী, বৃহস্পতিবারের নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ১০১টি আসন জিতেছেন। যার মধ্যে ৯৬টি আসনে জিতেছেন ইমরান খানের পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। অন্যদিকে সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) ৭৫টি আসনে জয় পেয়েছে।

এ ছাড়া প্রয়াত সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর ছেলে বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির পাকিস্তান পিপলস পার্টি ৫৪টি আসনে জয় পেয়ে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। করাচি-ভিত্তিক দল মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট (এমকিউএম) ১৭টি আসন জিতেছে।

পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের ২৬৬টি আসনে গত ৮ ফেব্রুয়ারি ভোট অনুষ্ঠিত হয় এবং সাধারণ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের জন্য কোনও দল বা জোটকে ১৩৪টি আসন পেতে হবে। একজন প্রার্থীর মৃত্যুর কারণে খাইবার-পাখতুনখাওয়া প্রদেশের একটি আসনের ভোট বাতিল করা হয়েছে এবং পাঞ্জাবের অন্য একটি আসনের ফলাফল স্থগিত করা হয়েছে।

কোনও দলই সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় দেশটিতে সরকার গঠনের জন্য রাজনৈতিক দলগুলো জোট গঠনে মরিয়া প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। তবে এখন পর্যন্ত বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির সাথে জোট করাই পিএমএল-এনের প্রথম বিকল্প। কিন্তু পিপিপি জোট সরকার গঠনের ক্ষেত্রে পিএমএল-এনের কাছে প্রধানমন্ত্রীর পদ দাবি করেছে।