• 19 Jun, 2024

ষড়যন্ত্রে ভয় করি না

ষড়যন্ত্রে ভয় করি না

জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ষড়যন্ত্র হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

তবে এ নিয়ে উদ্বিগ্ন না হতে দলের নেতাকর্মীদের প্রতি আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘নির্বাচন নিয়ে আমাদের চিন্তা নেই। জনগণ আমাদের সঙ্গে আছে। তবে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক কিছু ষড়যন্ত্র সব সময়ই থাকে।আমি সেটা ভয় পাই না।’  

গতকাল বুধবার সকালে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগ এবং এর সহযোগী ও অঙ্গসংগঠন, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বেশ কয়েকবার তাঁর প্রাণনাশের চেষ্টা করা হয়েছে। তিনি বলেন, ‘গ্রেনেড, গুলি, বোমা সব কিছু মোকাবেলা করেই এই পর্যন্ত এসেছি।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি, আল্লাহ একটা মানুষকে কাজ দেয়। সেই দায়িত্ব শেষ না হওয়া পর্যন্ত তিনিই তাঁকে রক্ষা করেন। তাই ওপরে আল্লাহ আর নিচে আমার দলের লোক সব সময়ই বড় বড় আক্রমণে ঢাল হয়ে আমাকে রক্ষা করেছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশবাসীকে উন্নত ও সুন্দর জীবন দেওয়ার মাধ্যমে তাঁদের ভাগ্য পরিবর্তনের লক্ষ্যে বর্তমান সরকার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘আমি জনগণের কল্যাণে সম্ভাব্য সব কিছু করছি।’

কভিড মহামারি ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ না হলে দেশকে আরো এগিয়ে নেওয়া সম্ভব হতো বলে মন্তব্য করেন শেখ হাসিনা। দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করে তিনি বলেন, ‘গণতন্ত্রের মধ্য দিয়ে দেশের উন্নয়ন নিশ্চিত করা হয়েছে। এই উন্নয়নযাত্রা ধরে রাখতে হবে।’

টুঙ্গিপাড়া-কোটালীপাড়া আসনের জনগণকে বারবার তাঁকে ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত করায় ধন্যবাদ জানান শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, যদিও তিনি তাঁদের পর্যাপ্ত সময় দিতে পারেন না, কারণ তাঁকে সারা দেশের মানুষের কল্যাণ দেখতে হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আপনজনদের হারানোর পর দেশের মানুষ ও আমার দলের নেতাকর্মীরাই আমার স্বজন।’ তিনি বলেন, ‘কাছের মানুষগুলো আমার পাশে না থাকলে সফল হওয়া সম্ভব হতো না।’

বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দা ও খাদ্যসংকটের প্রেক্ষাপটে প্রধানমন্ত্রী দেশবাসী ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের খাদ্যশস্যের উৎপাদন বাড়াতে বলেন। তিনি বলেন, ‘খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে প্রতি ইঞ্চি জমি চাষের আওতায় আনুন। আমাদের নিজেদের খাদ্য নিজেদেরই উৎপাদন করতে হবে।’

এর আগে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় নিজেদের বাড়ি থেকে আধাকিলোমিটার হেঁটে উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে যান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় তাঁর সঙ্গে সংসদ সদস্য হেলাল উদ্দীন, সংসদ সদস্য শেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল, সংসদ সদস্য শেখ সারহান নাসের তন্ময়, সাবেক সচিব মো. শহীদ উল্লা খন্দকার ও দলের নেতাকর্মীরা ছিলেন। 

মঙ্গলবার মুন্সীগঞ্জের মাওয়ায় ঢাকা-ভাঙ্গা রেল সংযোগের উদ্বোধন ও ফরিদপুরের ভাঙ্গায় আওয়ামী লীগের আয়োজনে সমাবেশে বক্তব্য দেওয়ার পর তিনি টুঙ্গিপাড়ায় পৌঁছান। ছোট বোন শেখ রেহানাকে নিয়ে টুঙ্গিপাড়ায় পৌঁছার পরপরই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এ সময় তিনি ফাতেহা পাঠ, দোয়া ও মোনাজাত করেন।