• 21 Jul, 2024

পল্লবীর ‘ভইরা দে’ গ্রুপের প্রধান অনিকসহ সন্ত্রাসী বাহিনী কর্তৃক দোকান ভাংচুর ও লুটপাট!

পল্লবীর ‘ভইরা দে’ গ্রুপের প্রধান অনিকসহ সন্ত্রাসী বাহিনী কর্তৃক দোকান ভাংচুর ও লুটপাট!

রাজধানীর পল্লবী থানাধীন এলাকায় মাসুদ রানার দোকান ভাংচুর ও লুটপাট করে বহুল আলোচিত কিশোর গ্যাং ‘ভইরা দে’ গ্রুপের মূলহোতা মো. হাসিবুল হাসান অনিক ওরফে বাংলা অনিক। কিশোর অবস্থায় অপরাধ চক্রের সঙ্গে জড়িয়ে যান অনিক। রাজধানীর পল্লবীর লালমাটিয়া, বাউনিয়াবাধঁ এলাকায় তার রাজত্ব চলে হরহামেশা।

রাজধানীর পল্লবী থানাধীন এলাকায় মাসুদ রানার দোকান ভাংচুর ও লুটপাট করে বহুল আলোচিত কিশোর গ্যাং ‘ভইরা দে’ গ্রুপের মূলহোতা মো. হাসিবুল হাসান অনিক ওরফে বাংলা অনিক। কিশোর অবস্থায় অপরাধ চক্রের সঙ্গে জড়িয়ে যান অনিক। রাজধানীর পল্লবীর লালমাটিয়া, বাউনিয়াবাধঁ এলাকায়  তার রাজত্ব চলে হরহামেশা। মাদক ব্যবসা, আধিপাত্য বিস্তার, ছিনতাই সবকিছুতেই  তার নিয়ন্ত্রণে। সব সময়  ৩০-৪০ জন সদস্য নিয়ে তার অপরাধ জগত। তার বিরুদ্ধে পল্লবী থানায় রয়েছে কয়েকটি মামলা । সন্ত্রাস বাহিনী কর্তৃক দোকান ভাংচুর ও লুটপাটে অভিযোগে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান আদর্শনগর এলাকার ব্যবসায়ী মাসুদ ট্রেডাসের মালিক মাসুদ রানা। গত ০৪/৯/২০২৩ইং তারিখ রোজ সোমবার বেলা ৫ ঘটিকায় সময় মাসুদ রানার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এই ঘটনা ঘটে। এই ঘটনার মূল হোতা  মো. হাসিবুল হাসান ওরফে অনিক ওরফে বাংলা অনিক (২৬) । মাসুদ রানার প্রতিষ্ঠানে সন্ত্রাসীরা ছুরি, চাকু ও বিভিন্ন দেশিয় অস্ত্রসহ ৩০/৪০ জন দোকানে প্রবেশ করিয়া দোকান ভাংচুর ও লুটপাট করে দোকানের এক কাষ্টমারকে অনিক বাহিনী মারধর করে  এবং অকাথ্য ভাষায় গালি-গালিজ করেন এবং মাসুদ রানাসহ আরো ১০/১২ জনকে এলোপাথারি ভাবে মারধর করেন এবং দোকান ভাংচুর করে ও দোকানের ক্যাশ থেকে টাকা পয়সা ছিনিয়ে নিয়ে যায় বলে জানান। মাসুদ চিৎকার দিলে স্থানীয় লোকজন জরো হলে সন্ত্রাসীরা মাসুদ রানার প্রান নাশের হুমি দিয়ে চলে যায়। ‘ভইরা দে’ গ্রুপের মূলহোতা মো. হাসিবুল হাসান অনিক ওরফে বাংলা অনিক সন্ত্রাস বাহিনী পূর্ব থেকেই পল্লবীতে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ও ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত। এদের বিরুদ্ধে থানা ও আদালতে একাধিক অভিযোগ আছে। প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে বিভিন্ন অপকর্ম করে আসছে। কোন ভূমিকা নেই প্রসাশনের । অনিক বাহিনীর অত্যাচারে একালাবাসী অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, অনিক এর সন্ত্রাসী বাহিনী মাদকসহ নারী বানিজ্যের সাথে জড়িত আছেন। এদের বিরুদ্ধে যদি কেউ মুখখোলে তাহলে তাদের মিথ্যা মামলা, হামলা, বাড়ী-ঘর লুটপাট, ভাংচুর, প্রান নাশের হুমকি দেয়। একাধিক ভুক্তভুগি বক্তব্য পাওয়া যায় যাহা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক। তারা বলেন কিছু দিন পর পর অনিক বাহিনীর হাতে মানুষ আহত হচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের মেসেঞ্জারে ‘ভইরা দে’ নামে  নামেই রয়েছে তার একটি গ্রুপ, যার মাধ্যমে নিজের অপরাধ পরিচালনা করেন তিনি। এর মাধ্যমেই নিজেকে ত্রাস হিসেবে তুলে ধরেছেন তিনি। রয়েছে মাদক ব্যবসা, হামলা, অস্ত্রের মহড়া পরিচালনার অভিযোগও। অনিক ও তার গ্যাংয়ের বিরুদ্ধে আছে মামলাও।এ নিয়ে ভুক্তভোগীদের আছে বিস্তর অভিযোগ। নভেম্বর ২০২২ সালে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন-৪ (র‍্যাব) এর হাতে ‘ভইরা দে’ গ্রুপের মূলহোতা মো. হাসিবুল হাসান অনিক ওরফে বাংলা অনিক গ্রেফতার হয়েছিল।