• 25 Jun, 2024

ডেঙ্গু থেকে রেহাই পেতে সচেতনতার বিকল্প নেই : মেয়র আতিক

ডেঙ্গু থেকে রেহাই পেতে সচেতনতার বিকল্প নেই : মেয়র আতিক

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেছেন, ডেঙ্গু থেকে যদি আমরা রেহাই পেতে চাই তাহলে নিজেদের সচেতন হতে হবে। ডেঙ্গু থেকে বাঁচতে নিজেদের সচেতনতার বিকল্প নেই।

রোববার (৭ এপ্রিল) মিরপুর ভাষানটেক এলাকায় রমজান উপলক্ষ্যে ডিএনসিসির উদ্যোগে এবং চীন দূতাবাসের সহযোগিতায় ভাষানটেক বস্তিতে বসবাসকারী এক হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

নগরবাসীর উদ্দেশে মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, বাসাবাড়ির জমে থাকা স্বচ্ছ পানিতে এডিস মশার লার্ভা জন্মায়। এডিস মশার কামড়ে ডেঙ্গু হলে মৃত্যু ঝুঁকি আছে। তাই ঈদে বাড়ি যাওয়ার আগে বাসা বাড়ির ছাদ, বারান্দা, বাথরুম এগুলো পরিষ্কার করে যাবেন। কোথাও পানি জমে এডিসের লার্ভা জন্মাতে পারে এমন পাত্র উল্টিয়ে রাখবেন।  আমি বিশেষভাবে অনুরোধ করছি স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের, আপনারা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে বিশেষ নজর দেবেন। ঈদ শেষে ফিরে এসে খেয়াল রাখবেন কোথাও পানি জমে রয়েছে কি না।

তিনি আরও বলেন, ডেঙ্গু মোকাবিলায় শহরজুড়ে যত্রতত্র ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা এডিস মশার প্রজননস্থল এবং পরিবেশের জন্য হুমকিস্বরূপ পরিত্যক্ত পলিথিন, চিপসের প্যাকেট, আইসক্রিমের কাপ, ডাবের খোসা, অব্যবহৃত টায়ার, কমোড ও অন্যান্য পরিত্যক্ত দ্রব্যাদি জনগণের কাছ থেকে নগদ মূল্যে সংগ্রহ করার উদ্যোগ নিয়েছি। প্রতিটি ওয়ার্ডে কাউন্সিলরের কার্যালয়ে গিয়ে যেকেউ উল্লিখিত দ্রব্যাদি জমা দিয়ে নগদ অর্থ সংগ্রহ করতে পারবে।

এ সময় মেয়র আতিকুল ইসলাম জানান, ঈদের পর থেকেই ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে প্রতিটি ওয়ার্ডে কাউন্সিলররা জনগণকে সচেতন করতে ক্যাম্পেইন শুরু করবে। প্রতি মাসে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, রাজনীতিবিদ, ইমাম, শিক্ষক ও শিক্ষার্থী সবাইকে নিয়ে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে করণীয় সম্পর্কে মতবিনিময় সভা ও সচেতনতামূলক র‍্যালি আয়োজন করবে।

ঢাকায় নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত ইয়াও ওয়েন বলেন, বাংলাদেশ ও চীন পরস্পরের নির্ভরযোগ্য বন্ধু এবং সহযোগিতার অংশীদার। চীন দূতাবাস সুবিধাবঞ্চিত মানুষের জন্য কিছু করার ভাবনা থেকেই এই উদ্যোগ। ডিএনসিসিতে সহযোগিতায় এটি বাস্তবায়ন করতে পেরেছি। এর আগে গত নভেম্বরে ডিএনসিসির আওতাধীন বনানীর কড়াইল বস্তিতে বসবাসকারী ১৪২৫ জন নারীকে স্বয়ংক্রিয় সেলাই মেশিন বিতরণ করেছি। প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমানের উন্নয়নে সেলাই মেশিন খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। সেলাই মেশিন ব্যবহার করে একজন নারী পরিবারের সদস্যদের জন্য কাপড় সেলাই করার পাশাপাশি আর্থিকভাবেও লাভবান হতে পারবে।

খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ডিএনসিসির ১৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. জহির আহমেদ, সংরক্ষিত আসনের নারী কাউন্সিলর সাহিদা আক্তার শীলা, ডিএনসিসির আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জিয়াউর রহমান, প্রধান সমাজ কল্যাণ ও বস্তি উন্নয়ন কর্মকর্তা মোহাম্মদ মামুন-উল-হাসান প্রমুখ।