• 19 Jun, 2024

বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়কের পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন তামিম

বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়কের পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন তামিম

বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়কের পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বাংলাদেশের ওপেনার তামিম ইকবাল।

চলতি মাসের শেষের দিকে পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এশিয়া কাপেও খেলবেন না তিনি।

বৃহস্পতিবার বিকালে গুলশানে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান বলেন, ‘তামিম অধিনায়কের পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।’

বোর্ড সভাপতির বাসভবনে রাত ৮টার দিকে সংবাদ সম্মেলন শুরু হওয়ার কথা থাকলেও এক ঘণ্টা দেরি হওয়ায় বাংলাদেশি ক্রিকেটে দিনের নাটকীয়তা যোগ হয়। সারা দিন ধরে বাংলাদেশ দলের সঙ্গে তামিমের ভাগ্যের জন্য দেশের ক্রিকেট মহল অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেছিল।

নাজমুল আরও বলেন, ‘দলের সর্বোত্তম স্বার্থের কথা মাথায় রেখে তামিম এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তিনি বর্তমানে তার ইনজুরির জন্য বিশ্রামে রয়েছেন। পুরোপুরি ফিট হয়ে ফিরতে চান। আমরা আশা করছি তিনি ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ড সিরিজের আগে প্রস্তুত হবেন।’

ওয়ানডে দলের পরবর্তী অধিনায়কের নাম এখনো ঘোষণা করেনি বোর্ড। নাজমুল বলেন, নতুন অধিনায়ক নিয়োগের আগে তারা বোর্ড ও খেলোয়াড়দের সঙ্গে কথা বলবেন।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) ক্রিকেট অপারেশন কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস বলেছেন যে তামিম ২০ আগস্ট পর্যন্ত পুরোদমে অনুশীলন করতে পারবেন না। ফলস্বরূপ, তিনি এশিয়া কাপ মিস করবেন, কারণ বাংলাদেশ দলের নির্ধারিত সময়সূচি রয়েছে। ২৬ আগস্ট টুর্নামেন্টের জন্য রওনা হবেন।

নাটকীয় সংবাদ সম্মেলনের আগে তামিম বোর্ড সভাপতি, বোর্ডের মেডিকেল টিমের সদস্যরা এবং বোর্ড সভাপতি নিজেই বৈঠক করেন।

বৈঠকে তামিম অধিনায়ক হিসেবে চালিয়ে যেতে চান কিনা, প্রধান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের সঙ্গে তার ভালো বোঝাপড়া ছিল কিনা এবং তার ইনজুরি সামলানোর পরিকল্পনা কী ছিল তা সহ বেশ কয়েকটি বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে।

তামিম বলেন, ‘বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক হিসেবে আমার যাত্রা ছিল দুর্দান্ত। ‘ফলাফল বলছে এখন অধিনায়ক হিসেবে খেলাটা আমার জন্য খুবই স্বার্থপর হবে।’

তামিমকে নিয়ে আলোচনা জুলাইয়ের শুরুতে তার আকস্মিক অবসরের সিদ্ধান্তের মাধ্যমে শুরু হয়েছিল। এই সিদ্ধান্ত শুধু দেশের ক্রিকেট অঙ্গনকে নাড়া দেয়নি বরং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিল। এবং তিনি এতে হস্তক্ষেপ করেছেন। তার সঙ্গে সাক্ষাতের পর, তামিম প্রকাশ করেন যে ‘তিনি সরকার প্রধানকে না বলতে পারেননি’ এবং বাংলাদেশের হয়ে খেলা চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে তার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেন।

বোর্ড সভাপতির কঠোর সমালোচনার জবাবে তামিম প্রাথমিকভাবে অবসরের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, যা শেষ হোম সিরিজে পুরোপুরি ফিট না হওয়া সত্ত্বেও প্রথম আফগানিস্তান ওয়ানডে খেলার সিদ্ধান্তের কারণে উদ্ভূত হয়েছিল। চট্টগ্রামে ওই ম্যাচের আগে তামিম জানিয়েছিলেন যে তিনি তার ইনজুরির অবস্থা মূল্যায়ন করতে খেলবেন।

বোর্ড সভাপতি, একদিন পর একটি বাংলা দৈনিকের সঙ্গে আলাপকালে জোর দিয়েছিলেন যে একজন অধিনায়ক আন্তর্জাতিক ম্যাচে তার ফিটনেস মূল্যায়ন করতে পারেন না। তিনি আরও উল্লেখ করেছেন যে প্রধান কোচ তামিমের মন্তব্যকে হালকাভাবে নেননি, এই বলে যে, ‘এটি ঘরোয়া ক্রিকেট নয়।’

তামিম ৩৭টি ম্যাচে বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের নেতৃত্ব দিয়ে ২১টিতে বিজয়ী হয়েছেন। তার নেতৃত্বে, টাইগাররা বিশ্বকাপ সুপার লিগের মাধ্যমে এই বছরের শেষের দিকে ভারতে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপে জায়গা করে নেয়। তামিম সফলভাবে তার ইনজুরি কাটিয়ে উঠতে পারলে বিশ্বকাপে খেলোয়াড় হিসেবে বাংলাদেশ দলের অংশ হতে পারেন।

তামিম বলেন, ‘আমি দুঃখ পাব। ‘কিন্তু সবার স্বপ্ন একই। দলের কথা উঠলে আমাদের ব্যক্তিত্বকে দূরে সরিয়ে রাখতে হবে। দলের ভবিষ্যৎ চিন্তা করেই আমি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’