• 21 May, 2024

জিয়াউর রহমানের মরণোত্তর বিচার চায় মায়ের কান্না

জিয়াউর রহমানের মরণোত্তর বিচার চায় মায়ের কান্না

১৯৭৭ সালের ২ অক্টোবর সেনা ও বিমান বাহিনীর সদস্য যারা ‘জিয়াউর রহমানের সামরিক ষড়যন্ত্রের শিকার’ হয়ে অন্যায়ভাবে ফাঁসি, কারাদণ্ড ও চাকরিচ্যুত হয়েছেন তাদের নির্দোষ ঘোষণার দাবি জানিয়েছে ‘মায়ের কান্না’ নামে একটি সংগঠন। একইসঙ্গে জিয়াউর রহমানের মরণোত্তর বিচারও দাবি করেছে তারা।

সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধন থেকে এসব দাবি জানায় সংগঠনটি।

মায়ের কান্নার দাবিগুলো হচ্ছে  
১৯৭৭ সালে ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে যারা ফাঁসি-কারাদণ্ড ও চাকুরিচ্যুত হয়েছেন তাদের প্রত্যেককে স্ব-স্ব পদে সর্বোচ্চ র‍্যাংকে পদোন্নতি দেখিয়ে বর্তমান স্কেলে বেতন-ভাতা ও পেনশনসহ সরকারি সকল প্রকার সুযোগ সুবিধা প্রদান করতে হবে, অন্যায়ভাবে যাদের ফাঁসি দেওয়া হয়েছে তাদের শহীদ হিসাবে রাষ্ট্রীয়ভাবে ঘোষণা করা এবং কবরস্থান চিহ্নিত করে কবরস্থানে নামসহ স্মৃতি স্তম্ভ তৈরি করতে হবে, সেই সকল সেনা ও বিমান বাহিনীর সদস্যদের পুনর্বাসিত করার লক্ষ্যে তাদের পোষ্যদের যোগ্যতা অনুসারে সরকারি চাকরিতে নিয়োগ প্রদান করতে হবে, অন্যায়ভাবে ফাঁসি, কারাদণ্ড ও চাকুরিচ্যুতদের তালিকা প্রকাশ করতে হবে।

মায়ের কান্না সংগঠনের আহ্বায়ক কামরুজ্জামান মিয়া লেলিনের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ।