• 21 Apr, 2024

দুদকের গনশুনানিতে গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু কলেজের অধ্যাক্ষর বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ

দুদকের গনশুনানিতে গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু কলেজের  অধ্যাক্ষর বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ

গোপালগঞ্জের বহুল আলোচিত মোঃ ওহিদ আলম লস্কর অধ্যক্ষ সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজ এর বিরুদ্ধে কলেজ ফান্ড থেকে টাকা আত্মসাৎ সহ নানা অভিযোগের কারনে দুদকের গনশুনানিতে হাজির হন। তার বিরুদ্ধে আনিত সকল অভিযোগ আমলে এনে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দেন গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও দদক কমিশনার তদন্ত মোঃ’ জহুরুল হক।

মোঃ শিহাব উদ্দিন গোপালগঞ্জ : বৃহস্পতিবার ( ১৪ ফেব্রুয়ারি) শেখ ফজলুল হক মনি স্মৃতি মিলানায়তন, জেলা শিল্পকলা একাডেমি, গোপালগঞ্জ এ দুর্নীতি দমন কমিশনের আয়োজনে ১৬৪তম গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

গনশুনানির অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন গোপালগঞ্জের মাননীয় জেলা প্রশাসক কাজী মাহাবুবুল আলম। উক্ত গণশুনানি অনুষ্ঠানে দুর্নীতি দমন কমিশনের মাননীয় কমিশনার (তদন্ত),  মোঃ জহুরুল হক প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। গণশুনানিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে দুদক এর মাননীয় কমিশনার (তদন্ত) মোঃ জহুরুল হক বলেন দুর্নীতি দমন কমিশনের গণশুনানি সম্পর্কিত নীতিমালার আলোকে জনগণের জন্য প্রদত্ত সরকারি/ আধাসরকারি/ স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান/ ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পরিষেবা দক্ষ ও কার্যকর উপায়ে প্রাপ্তি নিশ্চিত হয় এবং সরকারি কর্মকর্তাদের মধ্যে সততা, নিষ্ঠা ও মূল্যবোধের মান বজায় রাখা এবং কোন ব্যক্তি যাতে অনুপার্জিত আয় ভোগ করতে না পারে এ লক্ষ্যে দুর্নীতি দমন ও প্রতিরোধ বিষয়ক বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে বলে তিনি জানান। 

তিনি বলেন, উন্নত রাষ্ট্র বিনির্মাণে দুর্নীতি সবচেয়ে বড় প্রতিবন্ধক। তাই, দুর্নীতি দমন কমিশন সমাজ থেকে দুর্নীতি নির্মূলে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, গণশুনানির মাধ্যমে জনগণের হয়রানি ও দুর্নীতিমুক্ত সরকারি পরিষেবা প্রদান নিশ্চিত করা হবে। তিনি সরকারি কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, জনগণকে সরকারি সেবা প্রদান করা আপনার রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব। সেবা প্রদানে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও আন্তরিকতার সাথে সকলকে দায়িত্ব পালন করতে হবে। এ দায়িত্ব পালনে ন্যূনতম দুর্নীতি, হয়রানি কমিশন সহ্য করবে না। গণশুনানিতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, সহকারী কমিশনার (ভূমি), গোপালগঞ্জ সদর, সকল প্রকৌশলীদের দপ্তর, শিক্ষা বিভাগ, সমাজসেবা অধিদপ্তর, বিআরটিএ, পাসপোর্ট, সাব-রেজিস্টার, হাসপাতালসহ বিভিন্ন সরকারি অফিসের সেবা প্রাপ্তি নিয়ে সাধারণ মানুষ ৫৭টি অভিযোগ উপস্থাপন করেন তার মধ্যে ০৪টি অভিযোগ সরাসরি দুদক কর্তৃক অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। দুর্নীতি দমন কমিশনের মাননীয় কমিশনার (তদন্ত) সকল অভিযোগই মনোযোগ সহকারে শোনেন এবং অধিকাংশ অভিযোগ সমাধান করার নির্দেশ প্রদান করেন। প্রতিটি অভিযোগ পরবর্তীতে কমিশন থেকে মনিটরিং করা হবে এবং অভিযোগকারীদের সুরক্ষা নিশ্চিত করা হবে বলে গণশুনানিতে দুদক এর মাননীয় কমিশনার (তদন্ত) জানান।

গনশুনানির অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন আক্তার হোসেন, মহাপরিচালক প্রতিরোধ দুদক, মো. মোরশেদ আলম পরিচালক, দুদক, আল-বেলী আফিফা, পুলিশ সুপার গোপালগঞ্জ জেলা, জনাব প্রফেসর সরদার নুরুল ইসলাম, সভাপতি, জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি, গোপালগঞ্জ।