৩৯ বছর বয়সী মাশরাফিকে জাতীয় দলে চান আশরাফুল

27

বয়সটা প্রায় ৪০ ছুঁইছুঁই, তবুও মাঠের ক্রিকেটে মাশরাফির ঝলক যেন একটুও কমেনি। শুধু নিজেই পারফর্ম করছেন না, নেতৃত্বের গুণে দলকেও জেতাচ্ছেন ম্যাচের পর ম্যাচ। বিপিএলের চলতি মৌসুমে মাশরাফির এমন নৈপূন্য চোখ এড়ায়নি মোহাম্মদ আশরাফুলের। 

টাইগারদের হয়ে একসময় ব্যাট হাতে রেকর্ডের পর রেকর্ড গড়া আশরাফুল বহুদিন ধরেই আছেন দলের বাইরে। সুযোগ মিলছে না বিপিএলেও। তবে সাবেক সতীর্থ মাশরাফির খেলায় ঠিকই চোখ রাখছেন অ্যাশ। জানালেন, আবারও জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়া উচিত মাশরাফির।

এবারের বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) এখন পর্যন্ত ৬ ম্যাচ খেলেছেন মাশরাফি। ৬.৭৫ ইকোনমি ও ১৫ বোলিং গড়ে নিয়েছেন ৯ উইকেট। ওয়াহাব রিয়াজের পরে টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উইকেট বাংলাদেশের এই পেসারের। আর ৬ ম্যাচে ৫ জয়ে ১০ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে আছে সিলেট।

মাশরাফির এমন পারফরম্যান্সে মুগ্ধ আশরাফুল। ম্যাশের সাবেক সতীর্থ মনে করেন, এখনও জাতীয় দলের দরজা খোলা রয়েছে মাশরাফির জন্য। মিরপুরে সাংবাদিকদের আশরাফুল বলেন, ‘মাশরাফির যা পারফরম্যান্স তাতে অবশ্যই তার জাতীয় দলে খেলা উচিত। তরুণ ফাস্ট বোলারদের সঙ্গে তুলনা করলে উইকেট, ইকোনমি রেট সবদিক থেকেই মাশরাফি সেরা। সে (মাশরাফি) জাতীয় দলে খেলবে কি না তা গুরুত্বপূর্ণ। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে যে টি-টোয়েন্টি সিরিজ তাতে সে সহজেই সুযোগ পাবে।’

বিশ্ব ক্রিকেটে বাংলাদেশ সমীহ-জাগানিয়া দলে পরিণত হয়েছিল মাশরাফির নেতৃত্বেই। তাঁর নেতৃত্বে বাংলাদেশ খেলেছে ৮৮ ওয়ানডে, ২৮ টি-টোয়েন্টি ও ১ টেস্ট। তিন সংস্করণে ১১৭ ম্যাচের মধ্যে বাংলাদেশ জেতে ৬১ ম্যাচে। বাংলাদেশের প্রথম অধিনায়ক হিসেবে ওয়ানডেতে ৫০ ম্যাচ জয়ের গৌরব অর্জন করেন তিনি। ২০১৫ বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনাল, ২০১৭ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনাল-সবই বাংলাদেশ খেলেছিল তাঁর নেতৃত্বে। পাকিস্তান, ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা-তিন পরাশক্তির বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজও বাংলাদেশ জিতেছিল মাশরাফির নেতৃত্বে।