ভয়াবহ মূল্যস্ফীতি আর্জেন্টিনায়, ১৫শ’ পণ্যের দাম বেঁধে দিল সরকার

18

বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে থাকা কোটি কোটি ফুটবলপ্রেমীর ‘ফেভারিট’ দেশ আর্জেন্টিনায় মূল্যস্ফীতিজনিত কারণে জনদুর্ভোগ কমাতে নিত্যপ্রয়োজনীয় ১ হাজার ৫০০ পণ্যের দাম বেঁধে দিয়েছে সরকার। শুক্রবার এ ব্যাপারে দেশটির সরকার রীতিমতো ডিক্রি জারি করেছে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে রয়টার্স।

যেসব পণ্যের দাম বেঁধে দেওয়া হয়েছে, সেগুলো মূলত খাদ্য, পানীয়, ওষুধ ও পরিষ্কারক সামগ্রী ক্যাটাগরির পণ্য। ডিক্রিতে বলা হয়েছে, সরকার থেকে নির্দিষ্ট করা এসব পণ্যের দাম প্রতি মাসে সর্বোচ্চ ৪ শতাংশ বাড়াতে পারবেন ব্যবসায়ীরা।

দেশটির অর্থমন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়েছে, এই ডিক্রির মেয়াদ আগামী চার মাস পর্যন্ত থাকবে।

বিশ্বের অষ্টম বৃহত্তম এই দেশটিতে মূল্যস্ফীতি বর্তমানে ভয়াবহ পর্যায়ে পৌঁছেছে। আর্জেন্টাইন অর্থনীতিবিদদের শঙ্কা, চলতি বছরের শেষ দিকে এই মূল্যস্ফীতি শতকরা ১০০ ভাগে পৌঁছে যাবে।

ব্যাপক এই মূল্যস্ফীতিতে একদিকে যেমন বাড়ছে জনদুর্ভোগ ও দারিদ্র্যের হার, অপরদিকে ক্ষমতাসীন বামপন্থী সরকারের জনপ্রিয়তাতেও ধস নেমেছে।

সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী, আর্জেন্টিনায় বর্তমানে দারিদ্র্যের হার পৌঁছেছে ৪০ শতাংশে। বৃহস্পতিবার মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের দাবিতে রাজধানী বুয়েন্স এইরেসসহ ছোট বড় বিভিন্ন শহরে বিক্ষোভ করেছেন হাজার হাজার মানুষ।

মনিকা সুলে নামের এক বিক্ষোভকারী রয়টার্সকে বলেন, ‘বর্তমানে আমাদের দেশের মূল্যস্ফীতি তিন অংকে পৌঁছানোর অবস্থা হয়েছে। খাদ্যপণ্যের দাম যে পর্যায়ে পৌঁছেছে, কোনো সভ্য সমাজে তা সম্ভব নয়। সরকারের কোনো উদ্যোগ না নিলে ডিসেম্বরে পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে।’

সেবাস্টিয়ান মার্টিনো নামের এক বিক্ষোভকারী বলেন, বর্তমানে আর্জেন্টিনার প্রায় অর্ধেক মানুষের তিন বেলার খাদ্য কেনার মতো সামর্থ্য নেই।

‘দু-তিন মাস আগেও, মানুষ অন্তত তিন বেলা খেতে পারতো; কিন্তু এখন যতই দিন যাচ্ছে, আমরা দেখছি—খাদ্যপণ্যের দাম প্রায় আকাশে গিয়ে ঠেকছে, অন্যদিকে আমাদের উপার্জন পৌঁছাচ্ছে তলানিতে,’ রয়টার্সকে বলেন সেবাস্টিয়ান।