যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে কিশোরকে অমানবিক নির্যাতন

40

যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে নূর আমিন (১১) নামে এক কিশোর অমানবিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার (৩ নভেম্বর) নূর আমিন জামিন পেলে তার মা ঝর্না বেগম ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে বিভিন্ন ব্যক্তি ও সাংবাদিকদের কাছে এ অভিযোগ করেন। এ সময় ওই কিশোরের শরীরে একাধিক আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়।

নূর আমিন সাতক্ষীরার কালীগঞ্জ উপজেলার ধলবাড়িয়া ইউনিয়নের মোড়াগাছা গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে। চুরি মামলায় গত ৮ অক্টোবর নূর আমিনকে বাড়ি থেকে আটক করে পুলিশ। এরপর আদালতের মাধ্যমে তাকে যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে রাখা হয়।

নূর আমিন  বলে, যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে বন্দী হওয়ার পর থেকে কেন্দ্রের অন্যান্য সিনিয়র বন্দীরা আমাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতো। বিভিন্ন সময়ে খাবার চুরির অপবাদ দিয়ে হাউস সিনিয়র নয়ন কুমারের নেতৃত্বে অন্যান্য বন্দীরা চড়, কিল, ঘুষি, চোখে ঝাটা দিয়ে আঘাত এবং ভাতের প্লেট দিয়ে মারধর করতো। খালি হাতে টয়লেট পরিষ্কার করাতো।

নূর আমিনের মা ঝর্ণা বেগম বলেন, আমার ছেলে নির্দোষ। পূর্ব শত্রুতার জেরে বাড়ির পাশের একটি দোকানে চুরির ঘটনায় আমার ছেলেকে ফাঁসানো হয়। পুলিশ বাড়ি থেকে আমার ছেলেকে ধরে নিয়ে যায়। এরপর যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে রাখলে সেখানে অন্যান্য বন্দীরা আমার ছেলের উপর অমানবিক নির্যাতন করে। আমি এর বিচার চাই। আমার ছেলের গায়ে আঘাত থেকে ঘা হয়ে গেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের সহকারী পরিচালক মঞ্জুরুল হাছান বলেন, আগামী রোববার এ বিষয়ে তথ্য দিতে পারবো।

এর আগে, ২০২০ সালের আগস্টে আলোচিত যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে তিন শিশুকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। এছাড়া বিভিন্ন সময়ে আরও কয়েকটি শিশুর আত্মহত্যার ঘটনাও ঘটেছে।