ভারতের সেই ‘নিষিদ্ধ’ ক্রিকেটার এখন নেপালের কোচ

14

উপমহাদেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে বিতর্কিত চরিত্রগুলোর তালিকা করলে মনোজ প্রভাকরের নাম শুরুর দিকেই থাকবে। ম্যাচ গড়াপেটা নিয়ে শূন্য দশকের শুরুর দিকে ভারতীয় ক্রিকেটে যে ঝড় উঠেছিল, তার অন্যতম মুখ্য চরিত্র ছিলেন তিনি। সম্প্রতি আলোচিত এই সাবেক ক্রিকেটারকে কোচ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে নেপাল।

সোমবার (৮ আগস্ট) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মনোজ প্রভাকরকে জাতীয় ক্রিকেট দলের কোচ হিসেবে নিয়োগের ঘোষণা দেয় ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অব নেপাল (সিএএন)। এতদিন ভারতের ঘরোয়া ক্রিকেটে কোচিং করিয়েছেন মনোজ। ভারতের ঘরোয়া প্রতিযোগিতা রঞ্জি ট্রফিতে দিল্লি, রাজস্থান এবং উত্তর প্রদেশের কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন, ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সময় ছিলেন আফগানিস্তানের বোলিং কোচ। অবশেষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রধান কোচ হিসেবে নেপালকে দিয়ে যাত্রা শুরু হচ্ছে তার।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পেস বোলিং অলরাউন্ডার মনোজের শুরুটা হয়েছিল ১৯৮৪ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে একদিনের ক্রিকেট দিয়ে। এরপরের এক যুগে ভারতের হয়ে ৩৯ টেস্ট এবং ১৩০ ওয়ানডেতে মাঠে নেমেছেন তিনি। শুরুর মতো ক্রিকেটার হিসেবে তার শেষটাও হয়েছিল শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডে দিয়েই, ১৯৯৬ সালের ২ মার্চ ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচ খেলেছিলেন মনোজ। সে বছরই অনুষ্ঠেয় বিশ্বকাপের দলে সুযোগ না পাওয়ার ক্ষোভে ক্রিকেটকে বিদায় বলেন তিনি।

খেলা ছেড়ে দেওয়ার পর ১৯৯৯ সালে ফের আলোচনায় আসেন মনোজ। ম্যাচ গড়াপেটা নিয়ে তেহেলকা ম্যাগাজিনের কাছে ‘বিতর্কিত’ সাক্ষাৎকার দেন এই ক্রিকেটার, যেখানে ভারতের বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক কপিল দেবের বিরুদ্ধেও ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ এনেছিলেন তিনি। পরে অবশ্য মনোজের বিরুদ্ধেই ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ এনে তাকে ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ করে বোর্ড অব কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়া (বিসিসিআই)।

অবসরের পর রাজনীতিতেও নাম লিখিয়েছিলেন মনোজ। ১৯৯৬ সালে কংগ্রেসের হয়ে নির্বাচন করে হেরে যান তিনি। ভারতের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আজহারউদ্দিনের জীবনকে উপজীব্য করে বানানো ২০১৬ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত বলিউডের ছবি ‘আজহার’-এ তার চরিত্রও দেখানো হয়েছিল। ছবিতে মনোজের চরিত্রে রূপদান করেছিলেন করনবির শর্মা। যদিও ছবিতে তার চরিত্রকে নেতিবাচকভাবে প্রদর্শনের অভিযোগ করেছিলেন তিনি।