এখনো আর্জেন্টিনা দলে খেলার আশায় সেই রোমেরো

12

২০১৪ বিশ্বকাপের আর্জেন্টিনা দলে প্রধান গোলরক্ষক হয়ে যখন তিনি যাচ্ছেন ব্রাজিলে, তখনো নিজেকে প্রমাণ করা ঢের বাকি ছিল তার। খেলতেন না বড় কোনো ইউরোপীয় দলে, তার ওপর তার কাঁধে ছিল চার বছর আগের বিশ্বকাপে জার্মানির কাছে ৪ গোল হজমের অপবাদ। তবে ২০১৪ বিশ্বকাপের নকআউটে যা করেছেন, তাতেই সার্জিও রোমেরো রীতিমতো কিংবদন্তির সম্মানই আদায় করে নিয়েছিলেন আর্জেন্টাইনদের কাছ থেকে।

তবে সেই রোমেরো ২০১৮ বিশ্বকাপ থেকেই দল থেকে ব্রাত্য। দল দুটো কোপা আমেরিকা খেলে ফেলেছে, কিন্তু রোমেরোর জায়গা হয়নি স্কোয়াডেই। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানালেন আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের আশা এখনো ছেড়ে দেননি তিনি।

আর্জেন্টিনার হয়ে দুটো বিশ্বকাপের সঙ্গেও রোমেরো খেলেছেন তিনটি কোপা আমেরিকা। প্রথমবার কোয়ার্টার ফাইনালে বিদায় নিলেও রোমেরো পরের দুই কোপার ফাইনালে যেতে আর্জেন্টিনাকে বড় সাহায্যই করেছিলেন। ২০১৬ কোপার ফাইনালে দারুণ কিছু সেভ দিয়েছিলেন, এরপর পেনাল্টি শুটআউটেও রুখে দিয়েছিলেন একটি শট।

সেই রোমেরো অবশ্য এখন ক্লাব ফুটবলেও ব্রাত্য। বর্তমানে তিনি আছেন ‘ফ্রি এজেন্ট’ হয়ে। এরপরও আর্জেন্টিনা দলের আশা ছাড়ছেন না তিনি। সম্প্রতি ইএসপিএনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে রোমেরো বলেন, ‘আর্জেন্টিনা জাতীয় দল এমন একটা দরজা, যেটা আমার জীবনে কখনো বন্ধ হবে না।’

দারুণ সব দল নিয়েও শিরোপা জিততে না পারার আক্ষেপ অনেক বছর ধরেই সঙ্গী ছিল আর্জেন্টিনার। তবে গেল বছর কোপা আমেরিকা জিতে দীর্ঘ ২৮ বছরের সেই খরা কাটিয়েছে লিওনেল স্ক্যালোনির দল। কাঁধ থেকে শিরোপা না জেতার বোঝাটা নেমে যাওয়ার ফলে আর্জেন্টিনা আরও শক্তিশালী হয়ে উঠেছে, অভিমত রোমেরোর।

তিনি বলেন, ‘জাতীয় দলটা খুব ভালো করছে। এমন কিছু খেলোয়াড় এখানে আছে যারা দলের জন্য বেশ নিবেদিত। দলটা বেশ ভালো, আর একটা শিরোপা জেতার ফলে আর্জেন্টিনা দলের ঐক্য আরও বেড়ে গিয়েছে। এই প্যাঁচটা (শিরোপা খরা) খোলা জরুরী হয়ে পড়েছিল। সেটা হয়ে গেছে, ফলে বিশ্বকাপটা দারুণ হতে যাচ্ছে।’

২০১৪ বিশ্বকাপে সাত গোল করেছিল আর্জেন্টিনা। তাতে চার গোল করে, একটি করিয়ে, আর বাকি দুটোতে বড় অবদান রেখে আলবিসেলেস্তেদের শিরোপার দুয়ারে নিয়ে গিয়েছিলেন লিওনেল মেসি। সময়ের সাথে সাথে মেসির সেই ধারটা কিছুটা কমে এসেছে। গেল কোপা আমেরিকাতে ৪ গোল আর ৫ অ্যাসিস্ট করে দলকে শিরোপা জেতালেও এরপর পিএসজিতে যোগ দিয়ে মেসি যেন নিজেকে হারিয়ে খুঁজছেন।

তবে রোমেরোর মত, মেসির এই রূপই সেরা। তার কারণটাও তিনি জানালেন। বললেন, ‘আগে যে রূপ ছিল, লিও সেটা বদলে ফেলেছে। সে অনেক বেশি পরিণত। আমরা মেসির সেরা রূপটা দেখছি, কারণ সে আরও পরিণত। এখন আগের চেয়েও বেশি ভালোভাবে বিষয়গুলো বুঝতে পারে সে।’