বন্যার্তদের সহায়তায় ব্র্যাকে ইমোর ৫০ হাজার মার্কিন ডলার অনুদান

9

ঢাকা: বাংলাদেশের উত্তর এবং উত্তর-পূর্বাঞ্চলে বন্যাদুর্গত এলাকায় মানুষের সহায়তায় দায়িত্বশীল গ্লোবাল ব্র্যান্ড হিসেবে এগিয়ে এসেছে ইমো। প্রতিষ্ঠানটি ব্র্যাকের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে বন্যা প্লাবিত এলাকায় ত্রাণ সামগ্রী ও ডোনেশন সহায়তা দেওয়ার জন্য ‘ডাকছে আমার দেশ’ ক্যাম্পেইনে সম্পৃক্ত হয়েছে।

ইমো ও ইমো ব্যবহারকারীরা ‘ডাকছে আমার দেশ’ উদ্যোগের মাধ্যমে ৫০ হাজার মার্কিন ডলার অনুদান দিয়েছে।

এ প্রসঙ্গে ইমো বাংলাদেশের সিনিয়র মার্কেটিং ম্যানেজার মো. মাসুদ রানা বলেন, ভয়াবহ এ বন্যায় যেসব মানুষের ঘর, দোকান, আবাদি জমি ও গৃহপালিত পশুর ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তাদের পাশে দাঁড়াতে ব্র্যাকের সঙ্গে অংশীদারিত্ব করেছি। পুরো পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় অনেক সময় লাগবে; তবে, এ পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় গতি এনে ক্ষয়ক্ষতির ধকল কাটিয়ে উঠতে আমরা আমাদের সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখছি।  

এ নিয়ে ব্র্যাকের প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা তুষার ভৌমিক বলেন, ৫০ হাজারেরও বেশি বন্যাদুর্গতদের মধ্যে প্রয়োজনীয় সামগ্রী পৌঁছে দিতে ব্র্যাক পুনরায় তাদের ক্যাম্পেইনটি চালু করে। এ সঙ্কটকালীন মুহূর্তে জনপ্রিয় তাৎক্ষণিক মেসেজিং অ্যাপ ইমো অর্থ সহায়তা দিয়ে আমাদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে।

‘ডাকছে আমার দেশ’ ক্যাম্পেইনের আওতায় প্রায় ৬০ হাজার পরিবার শুকনো খাবার, পানি ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় ত্রাণ সামগ্রী পেয়েছেন। পানিবাহিত রোগের প্রাদুর্ভাব রোধে সাত হাজার ৮০০ পানি বিশুদ্ধিকরণ ট্যাবলেট বিতরণ করা হয়েছে। এ উদ্যোগের মাধ্যমে ৪০ হাজার পরিবারের মধ্যে আর্থিক সহায়তা পৌঁছে দেওয়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়। জরুরি সহায়তা হিসেবে এ প্রোগ্রামটি খাদ্য নিরাপত্তা, নিরাপদ খাবার পানি, স্যানিটেশন সুবিধা, ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যবিধি, ডিগনিটি কিট, পশুদের খাবার এবং অন্যান্য সামগ্রী দেওয়া হয়। এটি বাংলাদেশের উত্তর- পূর্বের জেলাসমূহে ভয়াবহ আকস্মিক বন্যার জন্য ইউএন হিউমেনিটারিয়েন কো-অর্ডিনেশন টাস্ক টিম (এইচসিটিটি) রেসপন্স প্ল্যান (জুলাই-ডিসেম্বর ২০২২) অনুসরণ করে সহায়তা দেওয়া হয়।

এ যৌথ প্রচেষ্টার পাশাপাশি, ইমো বন্যাদুর্গতের ত্রাণ ও অনুদান সংগ্রহের বিষয়টিকে ত্বরান্বিত করতে ‘বাংলাদেশ রিলিফ’ নামের একটি ডেডিকেটেড চ্যানেল চালু করেছে। গত মাসের ২৩ জুন থেকে ২৫ জুন পর্যন্ত ইমো ব্যবহারকারীদের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সাহায্যার্থে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। এ আহ্বানে সাড়া দিয়ে ব্র্যান্ডটি ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে অনুদান হিসেবে ১২ হাজার ৮৫১ মার্কিন ডলার উত্তোলন করেন।

এর আগে, সিলেট বিভাগের ইমো ব্যবহারকারীদের জন্য প্রতিষ্ঠানটি ৪০ লাখ বাংলাদেশি টাকা সমমূল্যের ফ্রি-ডেটা ডোনেশন ক্যাম্পেইন চালু করে। দেশের বিভিন্ন প্রতিকূল সময়ে অবদান রাখার মাধ্যমে নিজেদের একটি দায়িত্বশীল করপোরেট প্রতিষ্ঠানে পরিণত করেছে ইমো। এ অনুদান ক্যাম্পেইনটি বন্যায় প্লাবিত অঞ্চলগুলোর দুর্দশাগ্রস্ত মানুষ ও সমাজের প্রতি ব্র্যান্ডটির দায়বদ্ধতাকে ফুটিয়ে তুলেছে।