যুদ্ধাপরাধ: ইউক্রেনে প্রথম রুশ সৈন্যের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

4

ইউক্রেনীয় নিরস্ত্র এক বেসামরিক নাগরিককে হত্যার দায়ে রাশিয়ার এক সেনা সদস্যকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন ইউক্রেনের একটি আদালত। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি রাশিয়ার আগ্রাসন শুরুর পর প্রথমবারের মতো যুদ্ধাপরাধের দায়ে সোমবার রুশ ওই সৈন্যকে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

২১ বছর বয়সী রাশিয়ান ট্যাঙ্ক কমান্ডার ভাদিম শিশিমারিন গত ২৮ ফেব্রুয়ারি উত্তর-পূর্ব ইউক্রেনের চুপাখিভকা গ্রামে ৬২ বছর বয়সী ওলেকজান্ডার শেলিপভকে গুলি চালিয়ে হত্যা করেন। রুশ সামরিক বাহিনীর নির্দেশ পাওয়ার পর তিনি গুলি চালিয়ে নিরস্ত্র ওই ইউক্রেনীয়কে হত্যা করেন বলে আদালতের কাছে স্বীকারোক্তি দেন।

আদালতের বিচারক সেরহি আগাফোনভ বলেন, শিশিমারিন রুশ সামরিক বাহিনীর উচ্চ-পদমর্যাদার এক কর্মকর্তার ‘অপরাধমূলক আদেশ’ পালন করেছেন। স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র থেকে তিনি ভুক্তভোগীর মাথায় কয়েকটি গুলি চালান।

সোমবার আদালতে শিশিমারিনকে নীল এবং ধূসর রঙের সোয়েটশার্ট পরা অবস্থায় দেখা যায়। আদালত কক্ষে নীরব ছিলেন তিনি। বিচারক রায় ঘোষণার সময় কোনও আবেগ দেখাতে যায়নি তাকে।

রুশ সৈন্যের এই বিচার ইউক্রেনের জন্য বিশাল প্রতীকী তাৎপর্য বহন করছে। ফেব্রুয়ারিতে আগ্রাসন শুরুর পর থেকে রাশিয়ার বিরুদ্ধে ইউক্রেনের বেসামরিক নাগরিকদের ওপর নৃশংস ও বর্বর অভিযান চালানোর অভিযোগ আনা হয়েছে। ইউক্রেন বলছে, তারা দেশটিতে রুশ সৈন্যদের বিরুদ্ধে ১০ হাজারের বেশি সম্ভাব্য যুদ্ধাপরাধ চিহ্নিত করেছেন।

তবে এই যুদ্ধে বেসামরিকদের টার্গেট অথবা তাদের বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর অভিযোগ অস্বীকার করেছে রাশিয়া।