নড়াইলে তথ্যআপা প্রকল্পের জেলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

60

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নড়াইলে তথ্যআপা প্রকল্পের জেলা প্রকল্প পর্যবেক্ষণ কমিটির ত্রৈমাসিক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (২৩ মে) সকাল ১১টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে বিগত সভার কার্যবিবরণী উপস্থাপন করেন জেলা প্রকল্প পর্যবেক্ষণ কমিটির সদস্য সচিব ও সদর উপজেলার তথ্যসেবা কর্মকর্তা [তথ্যআপা প্রকল্প (পর্যায়-২)] আশরফা আহমেদ হ্যাপি। উত্থাপিত কার্যবিবরণীর ওপর কমিটির সদস্যরা বিস্তারিত আলোচনা ও পরামর্শ প্রদান করেন।

তথ্যআপা প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য অর্জন ও মানোন্নয়নে মাঠপর্যায় কর্মরত তথ্যসেবা কর্মকর্তাদের ওপর বিভিন্ন পরামর্শ দেয় জেলা কমিটি।

এ সময় কমিটির অন্যান্য সদস্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বি ক)ফকরুল হাসান, সদরের ইউএনও সাদিয়া ইসলাম, জেলা জাতীয় মহিলা সংস্থার জেলা কর্মকর্তা এস এম নজরুল ইসলাম, নড়াইল পৌরসভার সচিব ওয়াবুল, জেলা প্রশাসকের কার্যালয় আইসিটি বিভাগের এপিও জয়ন্ত কুমার মন্ডল, স্বাবলম্বী’র নির্বাহী পরিচালক কাজী হাফিজুর রহমান, কালিয়া উপজেলা তথ্যসেবা কর্মকমর্তা রাবেয়া বসরী, লোহাগড়া উপজেলার তথ্যসেবা কর্মকর্তা তানিয়া খানম, তথ্যসেবা সহকারি লিমা পারভীন, হাসিবা আক্তার প্রমুখ।

পরামর্শের মধ্যে রয়েছে, মাঠপর্যায় তথ্যসেবা কর্মকর্তাগণ নিয়মিত উঠান বৈঠাক আরও জোরদার করবেন, জেলার সকল তথ্যভান্ডার সংরক্ষণ করবেন, পরিবার পর্যায় নৈতিক ও মানবিক পরিবেশ গড়তে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অভিভাবকদের সাথে কাউন্সিলিংএর ব্যবস্থা করবেন, তথ্যআপা প্রকল্পের নিয়মিত কার্যক্রমসমূহ জেলা কমিটিকে অবহিত করবেন।

উল্লেখ্য, প্রকল্পটি ০৮ (আট) টি বিভাগের ৬৪ (চৌষট্টি) টি জেলার অন্তর্গত ৪৯২ (চারশত নব্বই) টি উপজেলায় প্রকল্পের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য হলো গ্রামীণ সুবিধাবঞ্চিত মহিলাদের তথ্যপ্রযুক্তিতে প্রবেশাধিকার এবং তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক সেবাপ্রদানের মাধ্যমে মহিলাদের ক্ষমতায়ন। এরমধ্যে বাংলাদেশের ৪৯২টি উপজেলায় তথ্যকেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা; তথ্যপ্রযুক্তি সম্পর্কে ০১ (এক) কোটি গ্রামীণ মহিলাদের উদ্বুদ্ধকরণ এবং তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে দৈনন্দিন সমস্যা সমাধানে সাহায্য করা; তথ্যকেন্দ্রের মাধ্যমে ই-কমার্স সহায়তা প্রদান; ই-লার্নিং এর মাধ্যমে প্রযুক্তি জ্ঞানসম্পন্ন দল গঠন করা; ওয়েবপোর্টাল, তথ্যভান্ডার, তথ্যআপা আইপিটিভির উন্নয়ন করা।

প্রকল্প সূত্রে জানাগেছে, বাংলাদেশে ৪৯২টি তথ্য কেন্দ্রে সার্বক্ষণিক ইন্টারনেট সংযোগ স্থাপন রয়েছে। যেখান থেকে প্রকল্পের উপকারভোগীগণ বিনামূল্যে ইন্টারনেট ব্রাউজিং, ই-মেইল, স্কাইপের মাধ্যমে ভিডিও কনফারেন্সিং সেবা প্রদান করতে পারে। এছাড়া চাকরির খবর, বিভিন্ন পরীক্ষার ফলাফল, সরকারি বিভিন্ন সেবাসমূহের তথ্য বিনামূল্যে সরবরাহ সেবা গ্রহণ করতে পারে।

সূত্রে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, তথ্যকেন্দ্রসমূহ হতে সুবিধাবঞ্চিত নারীরা বিনামূল্যে ব্লাড প্রেসার পরীক্ষা, ওজন ও উচ্চতা পরিমাপ, ডায়াবেটিস পরীক্ষা,রক্তে অক্সিজেনের পরিমাপ পরীক্ষা, শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করতে পারে।

প্রতিটি তথ্যকেন্দ্রে নিয়োজিত তথ্যসেবা কর্মকর্তাগণ ও তথ্যসেবা সহকারীগণ নিয়মিত সংশ্লিষ্ট উপজেলার বাড়ি-বাড়ি গিয়ে ল্যাপটপ ব্যবহারের মাধ্যমে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, আইন, ব্যবসা, জেন্ডার এবং কৃষি বিষয়ক বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করেন এবং স্কাইপের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং উপজেলার সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্মকর্তার সাথে সেবাগ্রহীতার কথোপকথনের মাধ্যমে সমস্যার দ্রুত ও কার্যকরী সমাধান প্রদান করে থাকেন ডোর টু ডোর সেবা প্রদানের মাধ্যমে।

এছাড়া এ প্রকল্পের আওতায় উঠান বৈঠক- মুক্ত আলোচনা ও সচেতনতামূলক কার্যক্রম,ই-কমার্স সহায়তা প্রদান, প্রকল্প থেকে আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারের সুবিধা,ওয়েব পোর্টাল ব্যবহার www.totthoapa.gov.bd , তথ্য ভান্ডার http://info.totthoapa.gov.bd ,আইপি টিভি দেখার সুযোগ করে দিয়েছে এই প্রকল্প।
আইপি টিভির ঠিকানা: http://iptv.totthoapa.gov.bd, ই-লার্নিং, প্রশিক্ষণেরও ব্যবস্থা রয়েছে।