নড়াইল পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তের দাবীতে বিক্ষোভ ও সমাবেশ

30

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নড়াইল পৌরসভার সর্বস্তরের জনগণের ব্যানারে পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ দ্রুত তদন্তপূর্বক অপসারণের দাবী তুলে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (১০ মে) বিকেল সাড়ে ৩টায় নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজ চত্বর সুলতান মঞ্চ থেকে এ বিক্ষোভ মিছিলটি বের হয়। বিক্ষোভ মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন শেষে পুরাতন বাসটার্মিনাল বঙ্গবন্ধু মঞ্চ চত্বরে এসে শেষ হয়। মিছিল শেষে বঙ্গবন্ধু মঞ্চ চত্বরে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, নড়াইল সদর উপজেলার সিঙ্গাশোলপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান উজ্জ্বল শেখ, যুবলীগ নেতা এস এম ফয়সাল সাদি, ছাত্রলীগ নেতা শরিফুল ইসলাম বাপ্পি, জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মিঠুন বিশ্বাস রাজু, সন্দিপ মজুমদার, সজল আহম্মেদ শ্রাবণ, সাজ্জাদ হোসেন ববি, জেলা ছাত্রলীগের স্কুল বিষয়ক সম্পাদক আল-আমিন মোল্যা প্রমূখ।

এ সময় বক্তরা পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তুলে বক্তব্য রাখেন। অভিযোগে উল্লেখ্য করা হয়, পৌরসভার অভ্যন্তরে ইজিবাইকের টোল হিসেবে ১৭ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা আদায় করা হয়। এ আদায়কৃত টাকার মধ্যে মাত্র ৬ লক্ষ টাকা পৌর তহবিলে জমা দিয়ে বাকি ১১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে বলে অভিযোগকারিরা জানান।

বক্তরা আরও অভিযোগ করে বলেন, পৌর মেয়র ক্ষমতায় আসার দশ মাসের মধ্যে বিভিন্ন সময়ে পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারির নামে মিথ্যা ভাউচার দেখিয়ে ৩ কোটি ৩৫ লক্ষ ৩ হাজার ৬’শ ৭৭ টাকা আত্মসাৎ করেন। মেয়রের দুর্নীতির ফিরিস্তি জনসম্মুখে তুলে ধরেন অভিযোগকারিরা।

এদিকে অভিযোগকারিদের সকল অভিযোগ পৌর মেয়র আনজুমান আরা অস্বিকার করে বলেন, আমি মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণ করেছি এক বছর পার হয়েছে। এখন পর্যন্তু কোন প্রকল্প আসেনি, পূর্বেও মেয়রের দেয়া টেন্ডারের কাজ করা হয়েছে মাত্র। এখানে অর্থ আত্মসাতের প্রশ্নই ওঠে না।

তিনি আরও বলেন, সন্ত্রাসীরা নিজেদের অপরাধ ঢাকতেই কাল্পনিক মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অভিযোগ ছড়াচ্ছে আমার বিরুদ্ধে।

উল্লেখ্য, গত ২৬ এপ্রিল শহরের পুরাতন বাসটার্মিনালে পৌরসভার অস্থায়ি কার্যালয়ে পৌরসভার ১৪২৯ সালের হাট-বাজার, টার্মিনাল ইজারা সংক্রান্ত সভা চলছিল। এ সময় (দুপুর ১টা ৩০ মিনিট) জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নিলয় রায় বাঁধনসহ ৮/১০ মেয়রের কার্যালয়ে আগ্নেয়স্ত্রসহ প্রবেশ করে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে এবং ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী করে।

এসময় চাঁদার দাবিতে মেয়রকে হত্যাসহ পৌরসভায় প্রবেশ করতে না দেয়ার হুমকি দেয়া হয় বলেও অভিযোগ করা হয়। এ ঘটনায় তাৎক্ষনিক পৌর পরিষদ জরুরুী সভায় ২৪ ঘন্টার মধ্যে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।

এ ঘটনার সাথে জড়িত উচ্ছাস, শাওন ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নিলয় রায় বাঁধনসহ অজ্ঞাত ৮/১০ জনের নামে ওই দিবাগত রাতেই মেয়র নিজে বাদী হয়ে নড়াইল সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।