মাশরাফীর রাজনীতি ও নির্বাচন-ফিরে দেখা ২০১৮

93

মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার রাজনৈতিক অঙ্গনে আসার দিনগুলি ফিরে দেখা যাক। কেমন ছিলো সেই দিনগুলি। সালটি ছিলো ২০ ডিসেম্বর, ২০১৮। এদিন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রি শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মাশরাফী বিন মোর্ত্তজাকে নিয়ে একই মঞ্চে পাশাপাশি বসলেন। এ দৃশ্য বোধ করি দেশ বিদেশের মানুষের কাছে কমবেশি সকলেরই জানা।

যাহোক, ওই সময়ের পূর্বমূহুর্ত পর্যন্ত বিভিন্ন সূত্রধরে যতটুকু জেনেছিলাম মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা কৌশিককে রাজনীতিতে আনার চেষ্টার নানা গুণজন উঠে এবং মাশরাফীর ভক্তরা নানা সমালোচনা শুরু করে। তখন লোকমুখে শুনতাম মাশরাফী ক্রিকেট বাদ দিয়ে রাজনীতি অঙ্গনে আসতে একেবারেই নারাজ। এমন কি মাশরাফী নির্বাচনে নামতেও রাজি নন। কথিত মতে পরিশেষে এলাকার উন্নয়ন অগ্রগতি ও দেশের স্বার্থরক্ষায় বিভিন্ন সেক্টরের বহু অনুরোধে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগে নাম লিখালেন এই ক্রিকেট তারকা মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা। রাজি হলেন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন করতেও। এ ঘোষনা প্রকাশের পর মাশরাফী ভক্তদের রোসানলে পড়েন তিনি। নানা সমালোচনার ঝড় বইতে থাকে সোস্যাল মিডিয়াতে।

এদিকে দেশ-বিদেশের মানুষ মাশরাফীকে চেনেন ক্রিকেটার হিসেবে, রাজনৈতিক নেতা হিসেবে নন। সেই প্রেক্ষাপটকে মাথায় রেখে তিন বছর আগে ২০১৮ সালের ২০ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার দুপুরে নড়াইলের লোহাগড়া সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ‘সুধাসদন’ থেকে মাশরাফিকে সাথে নিয়ে সরাসরি একই মঞ্চে বসে ভিডিও কনফারেন্স করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

ওইদিন ওইমঞ্চে বসে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মোর্ত্তজাকে হীরার টুকরা বলে আক্ষায়িত করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
এসময় তিনি আরও বলেন, আমি (প্রধানমন্ত্রী) এক সময় নড়াইলের এমপি ছিলাম। আমি মনে করি নড়াইল আমার নিজের এলাকা। পুনুরায় আ’লীগ সরকার গঠন করতে পারলে নড়াইলের আরও উন্নয়ন করা হবে। নড়াইলে একটি মেডিকেল কলেজ ও একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় করা যায় কিনা সেটার সাম্ভ্যবতা যাচায় করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ সময় নড়াইলে ২টি আসেন প্রতীকে ভোট দেওয়ার জন্য ভোটাদের আহব্বান জানান।

সুধাসধন থেকে ওইদি ওই শেখ হাসিনার সাথে একই মঞ্চে বসে নিজ নির্বাচনী এলাকার জনগণের সাথে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কথা বলেন নড়াইল-২ আসনের আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ক্রিকেট তারকা মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা।

২০১৮ সালের সেই দিনের নির্বাচনী জনসভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, নড়াইল জেলা আ’লীগের সভাপতি সুবাস চন্দ্র বোস, সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন খান নিলু, নড়াইল-১ আসনের আ’লীগের এমপির প্রার্থী বিএম কবীরুল হক মুক্তি, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগৈর সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, লোহাগড়া উপজেলা আ’লীগের সভাপতি সিকদার আব্দুল হান্নান রুনু, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ফয়জুল আমীর লিটুসহ জেলা ও উপজেলার আলীগের বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা।

জানা যায়, নড়াইল-২ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ক্রিকেটার মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা এবং ২০ দলীয় জোটের শরিক ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান এ জেড এম ফরিদুজ্জামান ফরহাদসহ ৬জন প্রার্থী ছিলেন।
এছাড়া নড়াইল-২ আসনে এনপিপির (ছালু) জেলা সভাপতি মনিরুল ইসলাম, ইসলামী আন্দোলন জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক এস এম নাসির উদ্দীন, ইসলামী ঐক্যজোটের প্রার্র্থী মাহাবুবুর রহমান এবং জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (রব) কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ফকির শওকত আলী প্রার্থী ছিলেন।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২০১৮ সালে নড়াইল-২ আসনে ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ১৭ হাজার ৫১১ জন। এর মধ্যে নারী ভোটার ১ লাখ ৬০ হাজার ৬২৪ এবং পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৫৬ হাজার ৮৮৭ জন। নড়াইল ও লোহাগড়া পৌরসভাসহ এ আসনের অধীনে সদর উপজেলায় আটটি ইউনিয়ন এবং লোহাগড়ার ১২টি ইউনিয়ন রয়েছে।

ফিরে দেখাবো ‘সুধাসদন’ থেকে ওই মাঠে সেদিন কি ঘটেছিলো, মাশরাফী বিন মোর্ত্তজাকে উদ্দেশ্য করে কি ই বা বলেছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা। গেল তিন বছরে মাশরাফীর (নড়াইল-২, ৯৪) সংসদীয় এলাকার উন্নয়ন অগ্রগতিই বা কি হয়েছে? পরবর্তীতে এ এলাকার ধারাবাহিক উন্নয়ন অগ্রগতির চিত্র তুলে ধরারও চেষ্টা করা হবে।

বিস্তারিত জানতে ‘নড়াইলকণ্ঠ নিউজ’ ফেসবুক পেইজ এবং ‘নড়াইল কণ্ঠ’ নিউজ চ্যানেলটি ভিজিট করুন। চলবে..Facebook PageLink: https://www.facebook.com/narailakanthonews/