মিছিলের সঙ্গে ইশরাকের গ্রেফতারের কোনো সম্পর্ক নেই: তথ্যমন্ত্রী

65

দ্রব্যমূল্য নিয়ে গতকালের মিছিলের সঙ্গে ইশরাকের গ্রেফতারের কোনো সম্পর্ক নেই বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। বৃহস্পতিবার (৭ এপ্রিল) দুপুরে সচিবালয়ে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

বিএনপি নেতা ইশরাক হোসেনকে গ্রেফতারের বিষয়ে তিনি বলেন, ইশরাক হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়েছে কারণ তিনি ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি। ২০১৯ সালের একটি বিস্ফোরক মামলার আসামি। তার বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট জারি আছে। অন্যান্য মামলাও তার বিরুদ্ধে আছে। গতকাল মিছিলের সঙ্গে তার গ্রেফতারের কোনো সম্পর্ক নেই। জ্বালাও পোড়াও ও মানুষ পুড়িয়ে মারার হুকুমদাতাদের গ্রেফতার করা প্রয়োজন বলে আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র সফরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিএনপিকে নির্বাচনে অংশ নিতে রাজি করাতে দেশটির কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন বলে যে তথ্য প্রকাশ পেয়েছে তা ঠিক নয় বলেও মন্তব্য করেন তথ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমেরিকা সফরকালে সেখানকার কর্মকর্তাদের সঙ্গে এ বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেননি। মিডিয়ার সামনে কথা বলার সময় তিনি বলেছেন। আনুষ্ঠানিক আলোচনায় এটি নিয়ে তিনি কোনো কথা বলেননি। এটি তার একান্ত ব্যক্তিগত মত।

‘নির্বাচনের ট্রেন কারও জন্য দাঁড়িয়ে থাকবে না। ২০১৪ সালের নির্বাচনের ট্রেন কারও জন্য দাঁড়ায়নি। ২০১৮ সালে বিএনপি ট্রেন উঠবে কি উঠবে না এই দ্বিধায় ছিল। পরে ট্রেনের পাদানিতে চড়ে নির্বাচনে অংশ নিয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, গণতন্ত্রকে সংহত করতে নির্বাচন যথাসময়ে অনুষ্ঠিত হবে। কারা আসবে এটাই একান্ত তাদেরই ব্যাপার। বিএনপি তো নির্বাচনকে ভয় পায়। বিএনপি যেহেতু বারবার যে কোনো বিষয় নিয়ে বিদেশিদের কাছে ধরনা দেয় তার পরিপ্রেক্ষিতেই পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা বলেছেন। এটি তার একান্ত নিজস্ব বক্তব্য, সরকার বা দলের বক্তব্য নয়।

তথ্যমন্ত্রী আরও বলেন, বিএনপিকে নির্বাচন ভীতি পেয়ে বসেছে। শুধু জাতীয় সংসদ নির্বাচন নয়, তারা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনও বর্জন করেছে। তাদের মধ্যে নির্বাচন ভীতি পেয়ে বসেছে। এই ভীতি দূর করার দায়িত্ব তো আমাদের নয়। যারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে, জনগণের রায়ে বিশ্বাস করে তাদের সামনে নির্বাচনের কোনো বিকল্প নেই। আমি আশা করবো বিএনপি নির্বাচন ভীতি কাটিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে।