বাংলাদেশ পুলিশই সর্বপ্রথম বিদেশে ‘জয় বাংলা’ স্লোগান প্রচলন করে

37

বাংলাদেশ পুলিশই সর্বপ্রথম বিদেশে ‘জয় বাংলা’ স্লোগান পরিচিতির লক্ষ্যে টুর্নামেন্টের আয়োজন করে। ২০২০ সালে ‘জয় বাংলা’ বাংলাদেশের জাতীয় স্লোগান হবে বলে আদেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট।

সেই ‘জয় বাংলা’কে বাংলাদেশের জাতীয় স্লোগান করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে বুধবার (২ মার্চ) এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

এ জাতীয় স্লোগানকে বিশ্বে পরিচিত করার উদ্দেশ্যে সর্বপ্রথম জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ পুলিশের একটি বিশেষায়িত ইউনিট ব্যানএফপিইউ গত বছর ৫৬টি দেশের মাঝে ভলিবল টুর্নামেন্ট আয়োজন করেছিল। নাম দেওয়া হয়েছিল ‘জয় বাংলা ভলিবল টুর্নামেন্ট’। ১০টি দেশ অংশ নেওয়ার থাকলেও পরিবর্তী সময়ে অংশ নেয় ৭টি। ‘সুদানে জয় বাংলা ভলিবল টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ন সামোয়া’ নামে জাগো নিউজ ফাইনাল খেলার সংবাদটি (১ ফেব্রুয়ারি ২০২১) প্রচার করেছিল। যা বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয়েছিল।

এ টুর্নামেন্টের অংশ নেওয়া দেশগুলো হলো- স্বাগতিক বাংলাদেশ, জিবুতি, মংগোলিয়া, জর্ডান, মিশর, গাম্বিয়া ও সামোয়া। ফাইনালে সামোয়া ২-১ ব্যবধানে মিশরকে পরাজিত করে। মিশনের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ কমিশনার ও পুলিশ চিব অব স্টাফ জেনারেল আহমাদো মান্না চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স আপ দলকে ট্রফি এবং অংশ নেওয়া প্রতিটি দলকে মুজিববর্ষের লোগো সংবলিত মেডেল পরিয়ে দেন।

সে সময় তিনি বলেন, কোনো দেশের জাতীয় স্লোগান নিয়ে মিশন এরিয়াতে তথা সমগ্র জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে এই প্রথম ও এটা মাইলফলক হিসেবে ইতিহাস হয়ে রইলো।

এ টুর্নামেন্ট আয়োজনের নেপথ্যে ছিলেন বাংলাদেশ ফর্মড পুলিশ ইউনিটের কমান্ডার মোহাম্মদ আব্দুল হালিম। তিনি বলেন, ওই মিশনে মহান মুক্তিযুদ্ধের প্রাণের স্লোগান ‘জয় বাংলা’ নামে টুর্নামেন্ট করা ছিল খুব চ্যালেঞ্জের। কারণ ওই মিশনে সব নীতি-নির্ধারকরা ছিল পাকিস্তানি। তাদের কাছ থেকে অনুমতি পাওয়াটা সহজসাধ্য ছিল না। যাই হোক ‘জয় বাংলা টুর্নামেন্ট’ নীতি-নির্ধারক মহলের সর্বোচ্চ পদের একজন থেকে সবুজ সংকেত পাওয়ায় তা সফলতার সঙ্গে করা হয়েছিল। যা বিশ্বব্যাপী পরিচিতি করে দেয় ‘জয় বাংলা’ স্লোগানকে।

দুই বছর আগে হাইকোর্টের এক রায়ে জাতীয় দিবস, সরকারি অনুষ্ঠান ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে উচ্চারণের ওপর জোর দিয়ে ‘জয় বাংলা’ স্লোগানকে জাতীয় স্লোগান হিসেবে কার্যকর করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। উচ্চ আদালতের ওই নির্দেশনার আলোকে ২০ ফেব্রুয়ারি মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ বিষয়ে শিগগিরই প্রজ্ঞাপন জারির সিদ্ধান্ত নেয় সরকার।