বিএনপির ‘আ.লীগ ফোবিয়া’ রয়েছে

33

নির্বাচন কমিশনে যারা আসবেন, তারা সবাই আওয়ামী লীগের— বিএনপির এমন এক অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম বলেছেন, কে আওয়ামী লীগের লোক, কে আওয়ামী লীগের না সেটার রায় দেবে জনগণ। যে কাউকে দেখলেই বিএনপি আওয়ামী লীগ ভাবে। তাদের আওয়ামী লীগ ফোবিয়া রয়েছে। তাদের চিকিৎসা নিতে হবে।

বুধবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। কমিশন গঠন নিয়ে নাছিম বলেন, রাষ্ট্রপতি সিইসি ও ইসিদের যেভাবে ঠিক করে দেবেন, দেশের মানুষ সেভাবেই মেনে নেবে। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে যেটাই হোক না কেন, তা মেনে নেবে।

তিনি বলেন, বিএনপির রাজনীতি জামায়াত ঘরানার। তাদের নেতা মির্জা ফখরুল সব সময় নেতিবাচক কথা বলেন, এটা তার বরাবরের অভ্যাস। তিনি মিথ্যাচার করেন, অপপ্রচার করেন এবং হতাশা ছড়িয়ে বেড়ান। বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রাখতে যেটি প্রয়োজন যেটি হচ্ছে নির্বাচন। আর নির্বাচনের জন্য প্রয়োজন নির্বাচন কমিশন। সুতরাং কমিশনের প্রতি আমাদের আস্থা থাকতে হবে, শ্রদ্ধা থাকতে হবে। গণতন্ত্র বিপন্ন হোক এটা মির্জা ফখরুলরা সবসময় চান। গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা তারা চায় না। এটা ধারাবাহিকভাবে তাদের অভ্যাসে পরিণত হয়েছে।

নাছিম বলেন, জেলা, উপজেলা, ইউনিয়নকে ঢেলে সাজানো এবং তিন মাসের মধ্যে সম্মেলন করার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। জেলা আওয়ামী লীগের সঙ্গে আমরা যোগাযোগ করব। যেখানে সম্মেলন বাকী আছে সেগুলো সম্পন্ন করব। ১২ মার্চ সকাল ১০ টায় আমরা একটি ভার্চুয়াল সভা হবে। আমরা বরিশাল বিভাগ দিয়ে শুরু করব।

তিনি বলেন, বরিশাল বিভাগের মোট চারটি জেলার সম্মেলন বাকি আছে। পিরোজপুর ও বরগুনায় ৭ ই মার্চের আগে জেলায় গিয়ে বর্ধিত সভা করা হবে বিএনপি জামায়াত যে অপরাজনীতি সৃষ্টি করেছে, সম্মেলনের মধ্য দিয়ে তৃণমূলকে শক্তিশালীকে করে দেশবাসীকে একত্রিত করে এর জবাব দেবে আওয়ামী লীগ।

এক প্রশ্নের জবাবে নাছিম বলেন, আওয়ামী লীগ একটি বড় দল। আমাদের নেতাকর্মীদের কোনো অভাব নেই। দেশের যতগুলো বিভাগে নির্বাচন হয়েছে, তার মধ্যে বরিশালে ফলাফল ভালো। বরিশাল বিভাগে বিদ্রোহীর সংখ্যা কম। আমরা আশা করি, আমাদের মধ্যে যে মতভেদ সৃষ্টি হয়েছে, ১২ মার্চের সভার মধ্যে দিয়ে তা আমরা কমিয়ে আনব।

আবুল হাসানাত আবদুল্লাহর সভাপতিত্বে সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. শাম্মী আহমেদ, সদস্য গোলাপ রব্বানী চিনু, আনিসুর রহমান, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান প্রমুখ।