চুরির অপবাদে কিশোরের হাত-পা বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন

2

চুরির অপবাদে রাজশাহীর পুঠিয়ায় এক কিশোরের হাত-পা বেঁধে পিটিয়েছেন কয়েকজন গ্রামবাসী। এরই মধ্যে নির্যাতনের ১ মিনিট ৩৫ সেকেন্ডের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। এ নিয়ে সুশীল সমাজে আলোচনা-সমালোচনারও সৃষ্টি হয়েছে।

শনিবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে পুঠিয়া থানায় মামলা করেছেন ভুক্তভোগী কিশোরের বাবা। এরপর মারধরের ভিডিওটি দেখে অভিযুক্ত তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তারা হলেন- পুঠিয়া উপজেলার গোটিয়া গ্রামের আব্দুল বারি, বিদ্যুৎ কুমার ও জিতেন ধর।

মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে পুঠিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. সোহরাওয়ার্দী হোসেন বলেন, মূলত গোটিয়া গ্রামের বাসিন্দারা আদিবাসী। তারা প্রতিদিন জীবিকার তাগিদে সকালে মাঠে কাজে যায়। বৃহস্পতিবারও (১৭ ফেব্রুয়ারি) অন্য সব লোকের মতো কাজে বের হয়ে ছিলেন পরেশ সর্দার। দুপুরের পর পরেশ সর্দার বাড়ি ফিরে দেখতে পান ঘরের তালা ভাঙা। এ সময় ওই কিশোরকে তার বাড়ির থেকে দৌড়ে পালাতে দেখেন তিনি। তখন চোর চোর বলে পিছু নেন। একপর্যায়ে গ্রামের লোকজনও যোগ দেন তার সঙ্গে। একপর্যায়ে ওই কিশোরকে ধরে ফেলেন গ্রামবাসী। পরে হাত-পা বেঁধে মারধর করেন কয়েকজন স্থানীয়। এমন সময় একজন ভিডিও ধারণ করে তা ফেসবুকে ছেড়ে দেন। পরে ভুক্তভোগী কিশোরের বাবার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ভাইরাল ভিডিও দেখে তিনজনকে আটক করা হয় বলে জানান পুঠিয়া থানা পুলিশের এ কর্মকর্তা।

এদিকে ওই কিশোরের বাবার অভিযোগ, বৃহস্পতিবার তার ছেলে গোটিয়া গ্রামের এক স্বজনের বাড়িতে যাচ্ছিল। ওই সময় কিছু লোকজন তাকে চোর চোর বলে ধাওয়া করলে সে ভয়ে দৌড়ে পালায়। পরে তাকে হাত-পা বেঁধে সবাই মিলে মারধর করে। এতে সে গুরুতর আহত হয়। পরে স্বজনদের মাধ্যমে খবর পেয়ে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। এখনো সে শারীরিকভাবে সুস্থ নয় বলে জানিয়েছেন তিনি।