দীর্ঘবছর পর ‘নড়াইল ক্লাব’এ স্মরণিয় সাধারণসভা ও ভোজ অনুষ্ঠিত

69

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ক্লাব বা সংঘ মানেই হলো কোনো সংঘবদ্ধ গোষ্ঠীর মিলনায়তন। যেখানে আমোদ-প্রমোদ, বিভিন্ন খেলাধুলার ব্যবস্থা থাকা। এর পাশাপাশি মানবিক কাজে সমাজের অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো। যেমন- যে কোন মহামারী, ঘূর্ণিঝড়, টর্নেড’র মত বিভিন্ন দুর্যোগ মোকাবেলায় ক্লাবের বিশেষ ভূমিকা রাখা। এমনটি ভাবনায় নড়াইল জেলা শহরের প্রাণকেন্দ্রে জেলা পাবলিক লাইব্রেরি ও সাবেক চিত্রাবাণী সিমেনার উল্টা দিকে এবং নড়াইল পৌরসভার নবনির্মাণাধিন ভবনের পিছনে কালিদাস ট্রাঙ্কির (পুকুর) পশ্চিম পাড়ে ১৯৬১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় এই নড়াইল ক্লাব। যে ক্লাবটি ‘নড়াইল টাউন ক্লাব’ নামে সর্বজনপরিচিত। দেখতে দেখতে এই ক্লাবটির বয়স ৬০ বছর অতিক্রম করেছে। রীতি অনুযায়ি এই ক্লাবের সভাপতি হিসেবে রয়েছেন নড়াইলের জেলা প্রশাসক এবং অন্যান্য পদে ক্লাবের সদস্যদের ভোটে অথবা সর্বসম্মত সমর্থনে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠিত হয় এবং সেই মোতাবেক ক্লাবটি পরিচালনা হয়ে আসছে। সময় সময় এরও কিছু কিছু ব্যত্যয়ও ঘটে পরিস্থিতির কারনে।

এই ক্লাবের একটি ঐতিহ্য রয়েছে প্রতিবছর খেলাধুলার প্রতিযোগিতা, বার্ষিক ভোজের আয়োজন করা। সম্প্রতি বৈশ্বিক মহামারি করোনার ভয়াবহ ছোবলসহ ক্লাবরে নানাবিধ সমস্যার কারণে এসব আয়োজন করা সম্ভব হয়ে উঠেনি দির্ঘ কয়েকবছর যাবৎ।

গত শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ক্লাব মিলায়তনে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে ক্লাবের সাধারণ বার্ষিক সভা ও নৈশভোজ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এ সময় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায় এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন নড়াইল ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইসমাইল হোসেন লিটন।

সভাপতির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান। এ সময় তিনি আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি ক্লাবের ভোটগ্রহণের তারিখ ও তফশিল ঘোষণা দেন।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিভিল সার্জন নাছিমা আকতার , অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ফকরুল হাসান, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও বীবরমুক্তিযোদ্ধা শরীফ হুমায়ূন কবীর, বীবরমুক্তিযোদ্ধা এস এ মতিন, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন খান নিলু, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রেয়াজুল ইসলাম, সদরের ইউএনও সাদিয়া ইসলাম, পৌর মেয়র আনজুমান আরা, মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার পিতা বিশিষ্ট সমাজসেবক গোলাম মোর্ত্তজা স্বপন, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী রেজাউল আলম, ক্লাবের সম্মানিত আজীবন সদস্যবৃন্দসহ অন্যান্য অতিথিবৃন্দ।

সভা শেষে এক নৈশভোজের আয়োজন করা করা হয়।