নড়াইলে হত্যা মামলায় ছেলের ফাঁসি,মাসহ দু’জনের যাবজ্জীবন

43

স্টাফ রিপোর্টার : নড়াইলে হালিমা বেগম নামে এক নারীকে হত্যার দায়ে ছেলের ফাঁসির আদেশ, ১০ হাজার টাকা জরিমানা ও মা সহ অপর প্রতিবেশিকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডাদেশ, ১০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরো ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত।

বুধবার (৩ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নড়াইল জেলা ও দায়রা জজ মুন্সী মোঃ মশিয়ার রহমান এ দন্ডাদেশ প্রদান করেন।

ফাঁসির আদেশপ্রাপ্ত আসামী হলেন নড়াইল শহরের ভওয়াখালী গ্রামের সলেমান সরদারের ছেলে সেলিম সরদার (২৮) এবং যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামীরা হলো মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামীর মা মোমেনা বেগম (৫৫) ও প্রতিবেশি মোঃ কবির খানের ছেলে সাজ্জাদ খান (২৫)। রায় ঘোষণাকালে আসামি মোমেনা বেগম আদালতে উপস্থিত ছিলেন। বাকি দুজন পলাতক আছেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৪ সালের ১৭ মে আসামি সেলিম সরদার ব্র্যাক ব্যাংকের ম্যানেজারের টাকা ছিনতাই করেন। ঘটনাটি প্রতিবেশি হালিমা বেগম দেখে স্থানীয় লোকজনকে জানান। ওইদিন সন্ধ্যা ৭টার দিকে সেলিমের মা আসামি মোমেনা বেগম ভূক্তভোগী হালিমাকে তাদের বাড়িতে ডেকে নিয়ে আসেন। কথাকাটির এক পর্যায়ে সেলিম সরদার কোদাল দিয়ে হালিমাকে মাথায় আঘাত করেন। এ সময় সেলিমের মা মোমেনা বেগম এবং অপর আসামি সাজ্জাদ খান হালিমাকে কিল, লাথিসহ মারধর করে। আহত হালিমা খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

এ ঘটনায় নিহতের স্বামী শুকুর আলী সরদার বাদী হয়ে ৩জনকে আসামী করে নড়াইল সদর থানায় মামলা করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নড়াইল সদর থানার ওসি (তদন্ত) দেলোয়ার হোসেন তদন্ত শেষে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। বিজ্ঞ বিচারক সাক্ষীদের সাক্ষ্য-প্রমাণ শেষে সত্যতা প্রমাণিত হওয়ায় এ রায় ঘোষণা করেন।

নড়াইল আদালতের পিপি এ্যাডভোকেট ইমদাদুল ইসলাম বলেন, চাঞ্চল্যকর হালিমা বেগম হত্যা মামলার রায়ে নড়াইলের বিজ্ঞ জেলা ও দায়রা জজ মুন্সী মোঃ মশিয়ার রহমান সত্যতা প্রমাণিত হওয়ায় একজনকে ফাঁসির আদেশ ও দুজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ডাদেশ দিয়েছেন। কারাগারে থাকা আসামীর সাজা কার্যকর এবং পলাতক আসামীদের গ্রেফতারের পর সাজা কার্যকর করার আদেশ দেন।