অধ্যাপক ড. কামরুল হাসান মামুন: নাগরিকের অধিকার ধর্ম দ্বারা নির্ধারিত হলে বাসযোগ্য পৃথিবী হবে না

26

অধ্যাপক ড. কামরুল হাসান মামুন: আমরা যতোই বলি না কেন বাংলাদেশ একটা অসাম্প্রদায়িক দেশ বা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ, লাভ নেই। তলে তলে এটা অনেক আগেই সাম্প্রদায়িক হয়ে গেছে। একটা ট্রানজিশন ঘটে গেছে। এর নানা কারণ থাকতে পারে কিন্তু ঘটে যে গেছে সেটা নিশ্চিত। আমরা ভুলে যাচ্ছি পৃথিবী অনেক বড়। মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশে বাস করে মনে হতে পারে এটাই পৃথিবী কিন্তু এটাই পৃথিবী নয়। এই বড় পৃথিবীতে ৪৩০০টি ধর্ম আছে। এই পৃথিবীর সকল দেশ মিলে যদি একটা রাষ্ট্র হতো তাহলে খ্রিস্টানরা হতো সংখ্যাগরিষ্ঠ। কারণ পৃথিবীতে খ্রিস্টানদের সংখ্যা হলো ২.১ বিলিয়ন। দ্বিতীয় সংখ্যাগরিষ্ঠের ধর্ম হলো ইসলাম যার জনসংখ্যা ১.৩ বিলিয়ন। তৃতীয় হলো নন রিলিজিয়াস যেমন এথিস্ট, সেক্যুলার প্রভৃতি যাদের সংখ্যা হলো ১.১ বিলিয়ন। চতুর্থ হলো হিন্দু ধর্ম যাদের সংখ্যা হলো ৯০০ মিলিয়ন, পঞ্চম হলো চীনের ট্রাডিশনাল ধর্ম যাদের সংখ্যা হলো ৩৮৪ মিলিয়ন। বৌদ্ধ ধর্ম হলো ষষ্ঠ এবং তাদের সংখ্যা ৩৭৬ মিলিয়ন।
অর্থাৎ পৃথিবীর মোট ৭.৭৫ বিলিয়ন জনসংখ্যার মধ্যে ৬.৪৫ বিলিয়ন মানুষই অমুসলিম। এখন সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমান দেশে থেকে মুসলমানরা অন্য ধর্মের মানুষকে একভাবে দেখে, সংখ্যাগরিষ্ঠ খ্রিস্টান দেশে থেকে খ্রিস্টানরা অন্য ধর্মের মানুষকে একভাবে দেখে, তেমনি সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দুদের দেশে থেকে হিন্দুরা অন্য ধর্মের মানুষকে অন্যভাবে দেখে। কিন্তু আমরা সবাই যদি দৃষ্টি বড় করি তাহলেই বুঝতে পারবো পৃথিবীতে সকলের শান্তি চাইলে সবাইকে একইভাবে সম্মানের দৃষ্টিতে দেখতে হবে। যে যেই ধর্মেরই হোক রাষ্ট্র সবার। একটি রাষ্ট্রে সকল নাগরিকের অধিকার সমান। এই অধিকার ধর্ম দ্বারা নির্ধারিত হলে একটি বাসযোগ্য পৃথিবী কখনোই হবে না। বুঝতে হবে পৃথিবীর যে যেই ধর্মেরই হোক না কেন সবাই তার নিজ ধর্মকে ভালোবাসে। অনেকেই তার নিজের ধর্মের জন্য সারাজীবন অবিবাহিত থাকে যেমন চার্চের ফাদার কিংবা নান। ধর্মের জন্য অনেকে সন্ন্যাস জীবন ব্রত করে। প্রত্যেকেই তার নিজ ধর্মকে শ্রেষ্ঠ মনে করে, নিজ ধর্মগ্রন্থকে শ্রেষ্ঠ মনে করে। নিজেরা নিজেকে শ্রেষ্ঠ বললেতো হবে না। অন্যরা আমার ধর্মকে কেমন ভাবে সেটা আমাদের আচরণ দ্বারা নির্ধারিত হবে। তাই আমাদের উচিত এমন আচরণ করা যেন অন্য ধর্মের মানুষরা আমাদের ধর্মের প্রতি সম্মান রাখে। লেখক: শিক্ষক, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।