নড়াইলে বাসচালক হত্যায় চেয়ারম্যান পলাশসহ গ্রেপ্তার ৩

62

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নড়াইল সদরের সীমাখালীর লিয়াকত সিকদার হত্যা মামলার প্রধান আসামী আউড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পলাশ মোল্যাসহ ৩জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) বিকাল ৫টায় নড়াইল পুলিশ সুপারের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায়।

গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে পুলিশ সুপার সাংবাদিকদের জানান, গতকাল সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) গোপন সূত্রের ভিত্তিতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নড়াইল সদর থানার পরিদর্শক (নিরস্ত্র) তুষার কুমার মন্ডলের নেতৃত্বে ও জেলা গোয়েন্দা শাখার সমন্বয়ে গঠিত একটি চৌকশ দল বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত মামলার ১নং আসামী আউড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পলাশ মোল্যা, ০৫ নং আসামী রুবেল শেখ ও ১২ নং আসামী গোপিনাথ গুহ গোপিকে ঢাকা সিটি করপোরেশন ডিএমপি’র মোহাম্মদপুর থানা এলাকা হতে গ্রেফতার করে।

পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায় সাংবাদিকদের আরো জানান, ‘আসামীদের গ্রেফতারের পর জিজ্ঞাসাবাদে আসামী রুবেল শেখ ও গোপিনাথ গুহ গোপি মামলার ঘটনার সাথে নিজেদের সম্পৃক্ততা স্বীকার করে বিজ্ঞ আদালতে কার্যবিধি ১৬৪ ধারা মোতাবেক স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছে এবং তাদেরকে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। আসামী পলাশ মোল্যার স্বীকারোক্তি ও দেখানো মতে মালিবাগ টু ধোপাখােলা মোড়গামী পাকা রাস্তার পূর্ব পার্শ্বে আসামী পলাশ মোল্যার বাড়ীগামী সরু রাস্তার সংলগ্ন কালভার্টের পূর্ব পার্শ্বে কচুরিপানা মধ্যে হতে খুনের কাজে ব্যবহৃত ১টি সামুরাই ও ১টি ছ্যান দা আলামত হিসেবে উদ্ধার করা হয়। আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, পলাশ চেয়ারম্যানের সাথে পূর্ব শত্রুতা এবং স্থানীয় কোন্দলের প্রেক্ষিতেই এই হত্যাকান্ডটি সংঘটিত হয়েছে। মামলার অন্যান্য আসামীরা পলাতক রয়েছে। তাদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশী অভিযান অব্যহত রয়েছে।

তিনি আরো জানান, গত ২৮ আগস্ট সন্ধ্যা অনুমান পৌনে ৮টার দিকে সিমাখালী গ্রামের সোহরাব সিকদারের ছেলে লিয়াকত শিকদার (৫১), অত্র মামলার ঘটনাস্থল সিমাখালী সাকিনস্থ চিত্রনদীর ওপর শেখ রাসেল সংযোগ সড়কের নিকট সূত্রে উল্লিখিত মামলার আসামীগণ কর্তৃক ধারালো অস্ত্রের দ্বারা খুন হন। ঘটনা সংক্রান্তে তার স্ত্রী আছমা বেগম পলাশ মোল্যাসহ ১৭ জন আসামী ও অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জন আসামীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।