‘চার বন্ধুর উদ্যোগ,সব সেবা হাতের মুঠোয়’ -উদ্যোক্তা সৌরভ

244

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একটি অ্যাপের মধ্যে সব জরুরি সেবা। অ্যাপটি তৈরি করেছে নড়াইলের ৪ স্কুল পড়ুয়া শিক্ষার্থী। পড়তে বসে বিদ্যুৎ চলে যাওয়া থেকে ভাবনা শুরু। তৈরী করে ফেললো একটি অতিজরুরি সেবা প্রাপ্তির অ্যাপ। অ্যাপটির নাম দেয়া হয়েছে ‘হেলপ ফর এভরিওয়ান’(HELPS FOR EVERYONE).

যার মাথা থেকে এই ভাবনা এলো সে নড়াইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের এ বছরের এসএসসি পরীক্ষার্থী (বিজ্ঞান বিভাগ) মো. আশিকুর রহমান সৌরভ। বাবা আশরাফুর খান আইনজীবী, মা গৃহিণী। বাবা-মায়ের দুই সন্তানদের মধ্যে সৌরভ বড়। নড়াইলের কালিয়া উপজেলার বাবরা গ্রামে বাড়ি হলেও লেখা-পড়ার সুবাদে বসবাস করে নড়াইল পৌরসভার আলাাদপুর এলাকায়।

জানা গেছে, এই অ্যাপ তৈরিতে ডিরেক্টর হিসেবে রয়েছে উদ্যোক্তা মো আশিকুর রহমান সৌরভ নিজেই। সৌরভের সাথে এ কাজে আরো ৩জন সহযোদ্ধা রয়েছে। তারা হলো – অ্যাসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টর ইফাজ আমান (দশম শ্রেণি), সাইবার এক্সপার্ট শাহ্ মোহাম্মদ মাহী (নবম শ্রেণি) এবং সাইবার এক্সপার্ট উসল আহমেদ জিসান (নবম শ্রেণি)।

সাধারণ মানুষের দৈনন্দিন অতিবজরুরি সেবা হাতের মুঠোয় পেতে একটি অ্যাপ তৈরী করেছে এসএসসি পরীক্ষার্থী এই সৌরভ। এক ক্লিকে সকল জরুরি সেবা পেতে ফোন/মোবাইল নম্বর সমূহ এ অ্যাপের সাথে যুক্ত করেছে। বর্তমান এই অ্যাপটি নড়াইল জেলায় বিভিন্ন সেবা প্রাপ্তিতে চালু রয়েছে।

এই অ্যাপটির উদ্যোক্তা মো. আশিকুর রহমান সৌরভ নড়াইলকণ্ঠ এর সাথে একান্ত সাক্ষাতকারে তার এই উদ্ভাবন সম্পর্কে জানাতে গিয়ে বলে, ‘আসলে আমি যে অ্যাপটা তৈরী করেছি এ অ্যাপটা তৈরী করার পেছনে অনেক কারন আছে। আমি একদিন রাতের বেলায় বাসায় বসে পড়তেছিলাম, তো হঠাৎ বিদ্যুৎ চলে গেল। বিদ্যুৎ চলে গেলে অনেকক্ষণ হয়ে গেছে বিদ্যুৎ আর আসে না। তখন আমি ভাবলাম যে বিদ্যুৎ অফিসে ফোন দেয়া দরকার। জানা দরকার কেন এ রকমন হচ্ছে। তখন আমার কাছে স্মার্টফোন ছাড়া আর কিছুই নেই। তখন বিদ্যুৎ অফিসের নম্বরটা খুঁজতেছিলাম। কিন্তু নম্বরটা আমার কাছে ছিলো না। তখন ভাবছিলাম নম্বর নেই কিভাবে যোগাযোগ করবো। সেই মূহুর্তে আমার ভেতর ভাবনা আসলো এধরনের নম্বরগুলো একসাথে করে একটা কিছু করা দরকার। একটা অ্যাপ তৈরী করি। সেই চিন্তাভাবনা থেকে একটা অ্যাপস তৈরী করলাম। অ্যাপটি নাম দিয়েছি ‘হেলপস ফর এভরিঅন’ HELPS FOR EVERYONE।

সৌরভ আরো জানায়, এই মোবাইল অ্যাপ থেকে সকল ধরনের জরুরি সেবা পাওয়া যাবে। যেমন – জেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ , হাসপাতাল, অ্যাম্বুলেন্স, রক্ত, বিদ্যুৎ, ফায়ার স্টেশন , সাইবার। এই সকল সেবা এখন নড়াইল জেলার মানুষ পাবে “ঐঊখচঝ ঋঙজ ঊঠঊজণঙঘঊ ” নামের একটি মোবাইল অ্যাপ থেকে। এই অ্যাপের লক্ষ্য হলো সকল সেবা মানুষের হাতের মুঠোয় পৌঁছিয়ে দেয়া। বর্তমানে অ্যাপটি নড়াইল জেলায় কাজ করছে। পরবর্তীতে অ্যাপটি সমগ্র বাংলাদেশে কাজ করবে। যে কোন এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোনে প্লেস্টোরে গিয়ে নিচের লিংকে ক্লিক করলে আমাদের অ্যাপটি ব্যবহার করতে পারবেন।
https://play.google.com/store/apps/details?id=com.mahijisun.helpsforeveryone

সৌরভ নড়াইলকণ্ঠকে আরও জানায়, এই অ্যাপটি সম্পূন্ন করতে আমি সবচেয়ে বেশি অনুপ্রেরণা পেয়েছি আমার আব্বুর কাছ থেকে। তিনি আমার কাজ দেখে উৎসাহ দেয়ার জন্য একটি এন্ড্রয়েট মোবাইল ফোন কিনে দিয়েছেন। একই সাথে এ কাজে আমার এক ছোটভাইয়ের অনুপ্রেরণা পেয়েছি অনুরুপ।

সৌরভ আরও জানায়, এ বছর ২৬ জুলাই নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক জাতীয় ক্রিকেট দলের সফল অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার অনুপ্রেরণা ও ভালোবাসায় আরো সাহস পাই, উদ্যোগী হই। একই সাথে নড়াইলের জেলা প্রশাসক মো. হাবিবুর রহমানের আন্তরিক পৃষ্ঠপোষকতা আমি এবং আমার টিমকে পথ চলতে সাহস যোগায়। পাশাপশি নড়াইলের পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায়ের সার্বিক সহযোগিতায় সাইভার সেফ্টি অর্গানাইজেশন বাংলাদেশ (Cyber Safety Organization Bangladesh) সংগঠনের সদস্যরা মিলে নড়াইল বাসির জন্য জরুরি সেবার মানউন্নত করার লক্ষ্যে একটি সেবামূলক মোবাইল অ্যাপ তৈরি করা হয়।

সৌরভ জানায়, নড়াইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের বাংলা স্যার ইদ্রিস আহমেদ ও ভৌত বিজ্ঞানের স্যার সবুজ সাহার কথা না বললেই নয়। এ দুজন শিক্ষক আমাকে ও আমাদেও টিমকে সব সময় উৎসাহ দিয়েছেন। এ কাজে আরও একজন মানুষ আমাদের সহযোগিতা করেছেন তিনি মো. আনিচুর রহমান। সম্প্রতি তিনি নড়াইলে সহকারি কমিশনার (আইসিটি) হিসিবে চাকুরিতে যোগদান করেছেন।

বিস্তারিত জানতে নিচের ভিডিওটি ক্লিক করুন: