ভাষাসৈনিক লোকমান হাকিমের ইন্তেকাল

20

ভাষাসৈনিক ও শ্রমিক নেতা লোকমান হাকিম ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না-লিল্লাহে ওয়া ইন্না-ইলাইহে রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮১ বছর। বুধবার (২৬ মে ২০২১) ভোর ৪ ঘটিকায় তিনি খুলনা খালিশপুর নিজ বাসভবনে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি মৃত্যুকালে স্ত্রী, দুই ছেলে ও চার মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।
মরহুমের জানাজা বাদ জোহর খালিশপুর গোয়ালপাড়া বিদ্যুৎকেন্দ্র জামে মসজিদের সামনে অনুষ্ঠিত হবে। জানাজা শেষে গোয়ালখালী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।
ভাষাসৈনিক লোকমান হাকিম ১৯৪০ সালে খুলনার ফুলতলা উপজেলার দামোদর গ্রামে সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম মৃত ইউনুস আলী মোল্লা, মাতা- মৃত রহিমা বেগম। তারা চার ভাই ও পাঁচ বোন। তিনি দৌলতপুর হাজী মুহাম্মদ মুহসিন মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে মেট্রিক পাস করেন। এরপর তিনি দৌলতপুর বিএল কলেজে এইচএসসিতে ভর্তি হন। লেখাপড়া করা অবস্থায় তিনি ১৯৬০ সালে খুলনার বিদ্যুৎকেন্দ্রে ফুটবল খেলোয়াড় হিসেবে যোগ দেন। পরে তিনি বিদ্যুৎকেন্দ্রের স্টোর কিপার হিসেবে কাজ শুরু করেন। ছাত্রজীবনে ছাত্র ইউনিয়ন ও ন্যাশনাল আওয়ামী লীগের সক্রিয় কর্মী ছিলেন। তিনি খালিশপুর বিদ্যুৎ উন্নয়ন কেন্দ্রের (পাওয়ার হাউজগেট) বিপরীত পাশে বিআইডিসি সড়কে নিজ বাসভবনে বসবাস করতেন।
ভাষা আন্দোলনে বিশেষ অবদান রাখায় তিনি ভাসানী ন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন। লোকমান হাকিম ছোটবেলা থেকেই রাজনৈতিক পরিবেশে বড় হয়েছেন। সেখান থেকেই তিনি দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে মানুষের পাশে দাঁড়ান। তিনি খুলনা হিরোজ ক্লাবে শৈশব ও কৈশোর কাটিয়েছেন। ক্লাবটি পরিচালনা করতেন ফেরদৌস আহমেদ, আব্দুল জলিল, আবু চেয়ারম্যানসহ অন্যরা। তিনি খেলাধুলার ফাঁকে রাজনীতিবিদদের সঙ্গে তৎকালীন তৃপ্তি নিলয় নামে গোলপাতার ঘরে ভাষা আন্দোলন নিয়ে আলোচনায় যুক্ত হন। সেই আলোচনা থেকেই তিনি ভাষা আন্দোলনের সময় রাজপথে নেমে আসেন। তিনি আন্দোলনের সময় একাধিকবার গ্রেফতার ও পুলিশি নির্যাতনের শিকার হয়েছেন এবং কারাবরণ করেছেন।
খুলনা ২০ দলীয় জোটের সমন্বয়ক সাবেক সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম মঞ্জু জানান, লোকমান হাকিম বুধবার ভোর ৪টায় ইন্তেকাল করেছেন। অত্যন্ত বড় মাপের শ্রমিক নেতা লোকমান হাকিম সুবক্তা স্পষ্টবাদী ছিলেন। আজকের খুলনা গড়ার আন্দোলনে নিবেদিত প্রাণ। শ্রমিক আন্দোলনের প্রাণপুরুষ সদা হাস্যোজ্জ্বল নির্লোভ হিসেবে সকলের প্রিয়। গণতান্ত্রিক আন্দোলনে তার বিরোচিত ভূমিকা গণতন্ত্রকামী জনগণ ও আন্দোলনকারীদের অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করবে।
ভাষাসৈনিক লোকমান হাকিমের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতি’র চেয়ারম্যান মঞ্জুর হোসেন ঈসা, মহাসচিব এ্যাড. সাইফুল ইসলাম সেকুল, সাংগঠনিক সম্পাদক লায়ন আল আমিন, কুষ্টিয়া জেলা শাখার সভাপতি জান্নাতুল ফেরদৌস জিনিয়া, সাধারণ সম্পাদক শাহারিয়া ইমন রুবেল ও সাংগঠনিক সম্পাদক অঞ্জন কৃষ্ণ শীল শুভ সহ নেতৃবৃন্দ। নেতৃবৃন্দ মরহুমের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।