এবারের বাজেট হতে হবে মূলত স্বাস্থ্যবাজেট : ড.আতিউর রহমান

33

ডেস্ক রিপোর্ট : বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) ও অক্সফামের এক জরিপে ওঠে এসেছে করোনায় দেশের ৬২ শতাংশ মানুষ কাজ হারিয়েছে, ৮৬ শতাংশ মানুষের আয় কমেছে ও ৭৮ শতাংশ মানুষ তাদের খরচ কমিয়েছে। এ বিষয়ে জানাতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক এই গভর্নর বলেন, সিপিডি ও অক্সফামের জরিপের পুরো পদ্ধতি ও গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে আমার যথেষ্ট সন্দেহ আছে। পরিস্থিতি এতোটা খারাপ সেটা অন্যান্য যে সমস্ত সূচক আছে, সেগুলো দিয়ে বোঝা যায় না। কারণ এটি একটি সাময়িক বিষয় হতে পারে, কিন্তু এটা এভাবে প্রকাশ করা এবং এ নিয়ে একটি ভীতি তৈরি বিবেচনাপ্রসূত হচ্ছে না। নিঃসন্দেহে আয়-রোজগারের ওপর প্রভাব পড়েছে, কিন্তু এর জন্য যে ধরনের গবেষণা দরকার সেরকম ইনডেফ্থ বা নিগূঢ় গবেষণা এখনো হয়েছে বলে আমার মনে হয় না। কারণ ম্যাক্রো অর্থনীতিতে দেখা যাচ্ছে যে, অর্থনীতি অনেকটা ঘুরে দাঁড়িয়েছে।

এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপে তিনি আরও বলেন, অর্থনীতিতে ঘুড়ে দাঁড়াবার যে সংস্কৃতি সেটা কিন্তু আমাদের বেশ শক্তিশালী। বিশেষ করে এখনো প্রায় ৬০ শতাংশ গ্রামের আয় কৃষির বাইরে। যে সমস্ত গরিব মানুষ গ্রামে ফিরে গেছেন, তারা কিন্তু সে সমস্ত কাজে অংশগ্রহণ করতে পারছেন। গ্রামে করোনা পরিস্থিতি এতোটা খারাপ নয় বলে মানুষ আয়-রোজগার করে খাচ্ছে। গ্রামের বোরো চাষের সময় মজুরি কমেছে বলে আমরা দেখিনি। যদি এতো মানুষ কর্মহীন থাকতো, তাহলে তারা সকলে গিয়ে ধানকাটা শুরু করতো। তখন মজুরি কমে যেতো। গ্রামে মজুরি কমে গেছেÑ এরকম কোনো খবর আমরা পাইনি। এছাড়া সরকার তার চেষ্টা করছে। প্রধানমন্ত্রী, ত্রাণ মন্ত্রণালয় সবাই মিলে চেষ্টা করছে। সরকার হাঙ্গার হটলাইনও করেছে। মানুষ যেকোনো সময় বিপদে পড়লে সরকার তার পাশে দাঁড়াচ্ছে। এরকম একটি সময়ে এ ধরনের ভীতিকর তথ্য দিয়ে আমরা খুব দায়িত্বশীল গবেষক হিসেবে কাজ করছি বলে মনে হয় না।

সূত্র: আমাদেরসময়.কম