মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় তরুণদের সমৃদ্ধ করতে বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ শেখের জন্মবার্ষিকী পালিত

143

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নতুন প্রজন্মের মাঝে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সমৃদ্ধ করতে পালিত হয়েছে ল্যান্স নায়েক বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ শেখ এঁর ৮৫তম জন্মবার্ষিকী। স্বাধীনতার অনেকটা বছর পার করার পর নড়াইল জেলার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের নিয়ে বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ শেখ, মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার ইতিহাসের ওপর কুইজ প্রতিযোগিতার মধ্যদিয়ে এ চর্চা শুরু করালেন বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ শেখ ট্রাস্টের সভাপতি ও নড়াইলের জেলা প্রশাসক মো. হাবিবুর রহমান।

আজ ২৬ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার। এ দিনে মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গণের সাহসী সন্তান বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ শেখ জন্মগ্রহণ করেন্। আজ ৮৫তম জন্মবার্ষিকী। এ দিনটিকে ঘিরে বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করছে নূর মোহাম্মদ ট্রাস্ট ও জেলা প্রশাসন।

এ উপলক্ষে নড়াইলে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ নূর মোহাম্মদ শেখ ট্রাস্ট্রের ট্রাস্ট্রি বোর্ড ও জেলা প্রশাসনের আয়োজনে সকাল ৮টায় কোরানখানি, সকাল ১০টায় নূর মোহাম্মদ নগরে (মহিষখোলা) বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ নূর মোহাম্মদ শেখের স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পমাল্য অর্পণ ও গার্ড অব অর্নার প্রদান।

এ উপলক্ষে আজ সাড়ে ১০টায় নড়াইলে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ নূর মোহাম্মদ শেখ ট্রাস্ট্রের ট্রাস্ট্রি বোর্ড ও জেলা প্রশাসনের আয়োজনে নড়াইল সদরে নূর মোহাম্মদ নগরে বীরশ্রেষ্ঠর বসতভিটায় তাঁর স্মৃতির উদ্দেশে স্থাপিত স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান জেলা প্রশাসক মোঃ হাবিবুর রহমান, নড়াইলে নবাগত পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায় পিপিএম বার, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সালমা সেলিম,বীরমুক্তিযোদ্ধা এস এম মতিন, সাইফুর রহমান হিলু, চন্ডিবরপুর ইউপি চেয়ারম্যান বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ ট্রাস্টের সদস্য সচিব আজিজুর রহমানসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন। এরপর উপস্থিত সকলে বীরশ্রেষ্ঠর বিদেহী আতœার শান্তি কামনা করে দোয়া করেন।

পরে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে বীরশ্রেষ্ঠর সম্মানে সশস্ত্র ছালাম জানানো হয়। পুলিশের একটি চৌকস দল এতে অংশ নেয়। এতে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ডসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন এতে অংশ নেয়।

এরপর বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ পাঠাগার মিলনায়তনে মুজিবশতবর্ষ উপলক্ষ্যে জেলার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের নিয়ে বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ শেখ, মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার ইতিহাসের ওপর কুইজ প্রতিযোগিতা এবং দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

উল্লেখ্য, ১৯৩৬ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি নড়াইল সদর উপজেলার মহিষ খোলা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন নূর মোহাম্মদ। তার বাবার নাম মোহাম্মদ আমানত শেখএবং মা জেন্নাতুন্নেছা (মতান্তরে জেন্নাতাখানম)। নূর মোহাম্মদ বাল্য কালে বাবা ও মাকেহারান। পড়েছেন সপ্তম শ্রেণিপর্যন্ত। তবে, মতান্তর রয়েছে। নূর মোহাম্মদের জন্মস্থান মহিষখোলার নাম পরিবর্তন করে ২০০৮ সালের ১৮ মার্চ ‘নূর মোহাম্মদ নগর’করাহয়।

১৯৩৬ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি নড়াইল সদর উপজেলার মহিষখোলা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন নূর মোহাম্মদ। বাবা মোহাম্মদ আমানত শেখ ও মা জেন্নাতুন্নেছা, মতান্তরে জেন্নাতা খানম। বাল্যকালেই বাবা-মাকে হারান তিনি। সপ্তম শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করেন। তার দুই স্ত্রীর কেউই বেঁচে নেই। বর্তমানে এক ছেলে ও তিন মেয়ে রয়েছে। ১৯৭১ সালের ৫ সেপ্টেম্বর যশোর জেলার গোয়ালহাটি ও ছুটিপুরে পাকবাহিনীর সঙ্গে সম্মুখ যুদ্ধে মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

উল্লেখ্য, তার গ্রামের নাম পরিবর্তন করে ২০০৮ সালের ১৮ মার্চ ‘নূর মোহাম্মদ নগর’ করা হয়। সেই থেকে উন্নয়নের ছোঁয়ায় বদলে গেছে ‘নূর মোহাম্মদ নগর’। এই বীরশ্রেষ্ঠের স্মরণে এখানে নির্মাণ করা হয়েছে- ‘বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ল্যান্স নায়েক নূর মোহাম্মদ শেখ গ্রন্থাগার ও স্মৃতি জাদুঘর’, ‘স্মৃতিস্তম্ভ’, ‘স্টেডিয়াম’, ‘স্কুল এবং কলেজ’। প্রত্যন্ত অঞ্চলে শিক্ষার আলো বিস্তারে ভূমিকা রাখছে এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।