কালিয়ায় আ’লীগের পৌর নির্বাচনী অফিসে ককটেল বিস্ফোরণ ও পুড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ

26

কালিয়া প্রতিনিধি : নড়াইলের কালিয়া পৌরসভায় আওয়ামীলীগের মেয়র প্রার্থী ওয়াহিদুজ্জামান হীরার নির্বাচনী কার্যালয়ে ককটেল বিস্ফোরণ ও পুড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। শনিবার (২৩ জানুয়ারী) দিনগত রাত ১টার দিকে বড় কালিয়ার ব্যাপারীপাড়া নির্বাচনী অফিসে এ ঘটনা ঘটে।

আ’লীগের মেয়র প্রার্থী ওয়াহিদুজ্জামান হীরা বলেন, ‘শনিবার দিনগত রাত ১টার দিকে পৌরসভার বড়কালিয়ার ব্যাপারীপাড়ায় আমার নির্বাচনী কার্যালয়ে তিনটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। আরো দুটি ককটেল অবিস্ফোরিত থাকে। পরে নির্বাচনী কার্যালয়ে আগুন ধরিয়ে দিয়ে লিটনের পক্ষে মিছিল দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। মিছিল থেকে কালিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক কৃষ্ণপদ ঘোষকে হত্যার হুমকি দিয়ে শ্লোগান দেয়া হয়।

তবে এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান মেয়র ফকির মুশফিকুর রহমান বলেন, আমার নির্বাচনকে বানচাল করতে এই ষড়যন্ত্র করা হয়েছে। এসব ষড়যন্ত্র করে আমার জনপ্রিয়তাকে নষ্ট করা যাবে না। প্রশাসনের কাছে অনুরোধ থাকবে যেন অবাধ, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

পুলিশ সুপার (কালিয়া সার্কেল) রিপন চন্দ্র সরকার বলেন, ঘটনাস্থল থেকে দুটি ককটেল সদৃশ্যবস্ত ও দুটি ছ্যানদা উদ্ধার করা হয়েছে। এব্যাপারে অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। কালিয়ার আইনশংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

আগামী ৩০ জানুয়ারী তৃতীয়ধাপে কালিয়া পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। পৌরসভায় ভোটার সংখ্যা ১৬হাজার ৩শ ৮৩জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৮হাজার ১শ ৪৭ জন এবং নারী ভোটার ৮হাজার ২শ ৩৬ জন। মেয়র পদে ৩জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে আওয়ামীলীগের মনোনয়নপ্রাপ্ত প্রার্থী ওয়াহিদুজ্জামান হীরা, বিএনপির এসএম ওয়াহিদুজ্জামান মিলু ও বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান মেয়র ফকির মুশফিকুর রহমান লিটন। এছাড়া সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৯ জন ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩২জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ১৯৭৬ সালে গঠিত কালিয়া পৌরসভাটি ২০১১ সালে দ্বিতীয় শ্রেণীতে উন্নীত হয়।