বাংলাদেশ শুধু এগিয়েই গেছে অতিমহামারির এই বছরে বিশ্বকে তাক লাগিয়ে

8

ডেস্ক রিপোর্ট: ২০১৯-২০ অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধির ব্যাপারে পূর্বাভাস ছিলো সাড়ে ৮ শতাংশের বেশি। করোনা অতিমহামারীর কারণে সেটি কমতে কমতে নেমে এসেছে ৫.২ শতাংশে। ২০২০-২১ অর্থবছরে ৬.৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি পূর্বাভাস করা হয়েছে। এটি চীন, ভারতসহ বিশ্বের যে কোনও প্রধান অর্থনীতির চেয়ে বেশি।

এতোদিন বিশ্বের দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতি বিবেচনা করা হতো ভারতকে। সর্বশেষ অর্থবছরে তাদের প্রবৃদ্ধি নেমে আসে ৪.২ শতাংশে। আগামী বছর তা বেড়ে দাঁড়াতে পারে ৫.৪ শতাংশে। আর চলতি অর্থবছরে চীনের প্রবৃদ্ধি এক ধাক্কায় নেমে এসেছে ১.৯ শতাংশে। দেশটি অবশ্য আগামী বছর ৮.২ শতাংশ প্রবৃদ্ধির আশা করছে। তবে বিশ্বব্যাংক বলছে, এটি অসম্ভব ধারণা।

একটি সূচক বলছে, করোনাকালে বিশ্বের সবচেয়ে বাস-উপযোগী দেশের তালিকার ২০ নম্বরে রয়েছে বাংলাদেশ। এক্ষেত্রে পেছনে ফেলেছে কথিত প্রায় সকল উন্নত দেশকেই। অন্য একটি র‌্যাংকিং বলছে, অর্থনীতিকে রক্ষা করেও করোনা অতিমহামারীকে সামাল দেবার ক্ষেত্রে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান সপ্তম।

করোনা অতিমহামারীর এই বছরে সামাজিক প্রায় সকল সূচকেই উন্নতি হয়েছে। সারা বিশ্বেই এই সময় বেড়ে গেছে বাল্যবিবাহ। বাংলাদেশে তুলনামূলকভাবে তা বাড়েনি। কমেছে মাতৃমৃত্যু, নারীর ক্ষমতায়ন। চলতি বছরে যুক্তরাষ্ট্রে মোট কর্মী বাহিনীর ৯ শতাংশ নতুন করে বেকার হয়ে গেছেন। বাংলাদেশে এই হার এক শতাংশের কম। ভারতে প্রায় ৫ শতাংশ। বেড়েছে খাদ্য উৎপাদন।