তথ্য সচিব খাজা মিয়ার সহধর্মিনী কালনায় ফেরি দুর্ঘটনায় আহত

41

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নড়াইলের কৃতি সন্তান তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব খাজা মিয়ার সহধর্মিনী ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা) খালেদা আক্তার লোহাগড়ার কালনায় এক ফেরি দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন। ঢাকা থেকে টুঙ্গিপাড়া হয়ে তথ্য সচিবের নিজ বাড়ি কালিয়ার ফুলদহ গ্রামের উদ্দেশ্যে যাওয়ার পথে বৃহস্পতিবার (১০ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার পর তাকে নড়াইল সদর হাসপাতালে নিয়ে আসা হয় এবং চিকিৎসা শেষে তথ্য সচিবের বাড়ি কালিয়ার ফুলদহ নিয়ে যাওয়া হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কালনা ফেরিঘাটের কাশিয়ানি প্রান্ত থেকে তথ্য সচিবের গাড়ি বহনকারী ফেরিটি কালনা প্রান্তের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে। অপরদিকে কালনা প্রান্ত থেকে আরেকটি ফেরি কাশিয়ানি প্রান্তের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। এক পর্যায়ে নিয়ন্ত্রণ রাখতে না পেরে দু’টো ফেরি মুখোমুখি ধাক্কা লাগে। এ সময় ফেরির উপর দাঁড়িয়ে থাকা তথ্য সচিবের সহধর্মিনী নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পড়ে গিয়ে আহত হন।

নড়াইল সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মশিউর রহমান বাবু জানান, তথ্য সচিব মো: খাজা মিয়ার সহধর্মীনি খালেদা আক্তারের ডান পায়ের হাঁটুর জয়েন্টে এবং বাম পাশের চোয়ালে আঘাত পেয়েছেন। তবে মারাত্মক কোন ক্ষতি হয়নি। আমরা তাঁকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েছি। তিনি সুস্থ রয়েছেন। তবে কয়েকটা দিন তাঁকে পূর্ণ বিশ্রামে থাকতে হবে।

এদিকে, তথ্য সচিবের সহধর্মিনী ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা) খালেদা আক্তারের দুর্ঘটনার খবর শুনে হাসপাতালে ছুটে যান নড়াইলের জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো: ইয়ারুল ইসলাম, কালিয়ার ইউএনও মো. নাজমুল হুদা, এনডিসি মো: জাহিদুর রহমান, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: ইলিয়াছ হোসেন, জেলা তথ্য অফিসার এলিন সাঈদ-উর রহমান, সাপ্তাহিক ও অনলাইন নড়াইলকণ্ঠ পত্রিকার সম্পাদক কাজী হাফিজুর রহমান, নড়াইল প্রেসক্লাবের সভাপতি এনামুল কবীর টুকু প্রমুখ।