সাতক্ষীরায় ১২০০ পিস ইয়াবাসহ পাঁচ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

37

মাধব দত্ত, সাতক্ষীরা ঃ পুলিশের পৃথক অভিযানে এক হাজার ২০০ পিস ইয়াবা, ৩৮ হাজার নগদ টাকা ও পাঁচটি মোবাইল সেট উদ্ধার করা হয়েছে। এ সময়এগ্রপ্তার করা হয়েছে পাঁচজন মাদক ব্যবসায়িকে। বৃহষ্পতিবার রাতে সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলা সদরের বাসস্টান্ড ও শীতলপুর থেকে এসব উদ্ধার ও গ্রেপ্তারের ঘটনা ঘটে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, যশোর জেলার শার্শা উপজেলার ট্যাংরা জামতলা গ্রামের আব্দুর জব্বারের ছেলে মাদক ব্যবসায়ি ইমরান হোসেন (২৬), এই উপজেলার গিলাপুর গ্রামের মোস্তফা কায়ুমের ছেলে নাহিদ পারভেজ (৪০), সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার শীতলপুর গ্রামের শহীদ হোসেনের ছেলে মনিরুজ্জামান মনি ওরফে পুটে (৫৮), তার বাড়ির ভাড়াটিয়া উপজেলার মৌতলা গ্রামের মশিউর রহমানের ছেলে রাফায়েত আলী রফু(৪৭) ও তার ছেলে ঈশান (১৯)।

কালিগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মিজানুর রহমান জানান, ইয়াবার একটি বড় চালান নিয়ে যশোরের কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ি উপজেলা সদরের বাসস্টাণ্ড সংলগ্ন একটি বেসরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের পাশের একটি বাড়িতে অবস্থান করছেন এমন খবরের ভিত্তিতে বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে তার নেতৃত্বে পুলিশ সেখানে অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা পালিয়ে যাওয়ার সময় ওই স্কুলের সামনে থেকে ইমরান ও কায়ুমকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের দেহ তল্লাশি করে ১৮০ পিস ইয়াবা ও দু’টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরো জানান, গোপন খবরের ভিত্তিতে বৃহষ্পতিবার রাত সোয়া নয়টার দিকে তার নেতৃত্বে পুলিশ নাজিমগঞ্জ বাজার সংলগ্ন শীতলপুর গ্রামের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ি মনিরুজ্জামান মনি ওরফে পুটের বাড়িতে অভিযান চালায়। গৃহকর্তা পুটে ও তার ভাড়াটিয়া রাফায়েতের বাসা থেকে এক হাজার ২০ পিস ইয়াবা, নগদ ৩৮ হাজার টাকা ও তিনটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। গ্রেপ্তার করা হয় পুটে, রাফায়েত ও তার ছেলে ঈশানকে।

কালিগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দেলোয়ার হুসেন জানান, এসব ঘটনায় সহকারি উপপরিদর্শক শেখ জামাল হোসেন ও সহকারি উপপরিদর্শক তরুণ কুমার অধিকারী বাদি হয়ে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে শুক্রবার পৃথক দু’টি মামলা দায়ের করেছেন। গ্রেপ্তারকৃতদের শুক্রবার বিকেলে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।