নবনির্মিত পানি ভবনের উদ্বোধন বৃহস্পতিবার

5

রাজধানীর গ্রীণরোডে প্রায় ২৬১ কোটি টাকা ব্যয়ে ১২তলা বিশিষ্ট নবনির্মিত ‘পানি ভবন’ এর উদ্বোধন করা হবে আগামীকাল বৃহস্পতিবার।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামীকাল বৃহস্পতিবার (০১ অক্টোবর) সকাল ১০ টায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পানি ভবনের উদ্বোধন করবেন। আজ রাতে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।

এতে বলা হয়েছে,২০১৫ সালের ৩১ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘পানি ভবনের’ ভিত্তি-প্রস্তর স্থাপন করেন।

জলবায়ুর বিরূপ পরিবর্তনে উদ্ভূত নানা দুর্যোগ মোকাবিলাসহ শতবর্ষী ডেল্টাপ্ল্যান-২১০০ বাস্তবায়নে যুগোপযোগি ও আধুনিক কর্মপরিবেশ তৈরির প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে নীতি-নির্ধারণী লক্ষ্য নিয়ে ‘পানি ভবন’ প্রকল্পটি গ্রহণ করা হয়েছিলো। পরে,প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি ও অনুমোদন এবং পরামর্শে ‘পানি ভবন’ নির্মাণ প্রকল্পের পরিপূর্ণ বাস্তবায়ন করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে যে, ১৯৫৪ এবং ১৯৫৫ সালের উপর্যুপরি ভয়াবহ বন্যার পর জাতিসংঘের অধীনে গঠিত ক্রুগ মিশনের সুপারিশক্রমে সেচ ব্যবস্থা ও বন্যা নিয়ন্ত্রণসহ পানি সম্পদের উন্নয়ন এবং বিদ্যুৎ ব্যবস্থাপনায় তৎকালিন পূর্ব পাকিস্তান পানি ও বিদ্যুৎ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (ইপিওয়াপদা) গঠিত হয়। ১৯৭২ সালে ইপিওয়াপদা’র “পানি উইং” নিয়ে “বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড” (বাপাউবো) নামে স্বতন্ত্র একটি সংস্থা করা হয়।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নিজস্ব প্রকৌশলীদের নকশায় প্রায় ৪ লাখ ২০ হাজার বর্গফুটবিশিষ্ট এ ভবন নির্মাণে সময় লেগেছে প্রায় সাড়ে চার বছর। কেন্দ্রীয় শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত পানি ভবনে সোলার প্যানেল, সুয়েজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট, রেইন ওয়াটার রিজার্ভয়ারের মতো পরিবেশ বান্ধব ব্যবস্থাসহ ৫৩৬ জন ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন অডিটরিয়াম, ৪৫০০ বর্গফুটের হেলিপ্যাড, ৩৭৬টি গাড়িপার্কিংসহ অত্যাধুনিক অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থাও রয়েছে। এছাড়াও এই কমপ্লেক্সে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র স্মৃতিবিজড়িত পুকুরটি (২১,৪৮৪ বর্গফুট) সংরক্ষণ করা হয়েছে ও ২০ হাজার ৬২৫ বর্গফুটের একটি জলাধার নির্মাণ করা হয়েছে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।