দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত যেসব সাংবাদিক

74

নড়াইল কণ্ঠ ডেস্ক : বৈশ্বিক মহামারি (কোভিড-১৯) দেশে নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। এখন পর্যন্ত ১৮ হাজার ৮৬৩ জন এতে সংক্রমিত হয়েছেন। মারা গেছেন মোট ২৮৩ জন। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি আক্রান্ত হচ্ছেন সাংবাদিকরাও।

আজ বৃহস্পতিবার (১৪ মে) দুপুর পর্যন্ত দেশের মোট ৪৯টি গণমাধ্যমের ১০৮ জন সংবাদকর্মী প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে মারা গেছেন একজন। চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২৫ জন। এ ছাড়া করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়েই দুই সংবাদকর্মীর মৃত্যু হয়েছে।

তারা হলেন- দৈনিক সময়ের আলো পত্রিকার সিনিয়র সাব-এডিটর মাহমুদুল হাকিম অপু এবং দৈনিক ভোরের কাগজের স্টাফ রিপোর্টার আসলাম রহমান। তারা দুইজনই করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেলেও তাদের নমুনা পরীক্ষা রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। তবে দৈনিক সময়ের আলো পত্রিকার নগর সম্পাদক হুমায়ন কবির খোকনের মৃত্যুর পর নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

যেসব টিভি চ্যানেলের সংবাদকর্মী করোনাভাইরাস আক্রান্ত হলেন-
ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশন: স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেল ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের মোট পাঁচ জন সংবাদকর্মী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে ৩ জন সংবাদকর্মী, ১ জন ক্যামেরাপার্সন ও ১ জন ভিডিও এডিরট। তবে ক্যামেরাপার্সন ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।
দীপ্ত টিভি: এই টেলিভিশন চ্যানেলটির মোট ৬ জন সংবাদকর্মী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের সবাই ইতোমধ্যে চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়েছেন।

যমুনা টিভি: জনপ্রিয় টিভি চ্যানেল যমুনা টিভির এখন পর্যন্ত দুইজন সংক্রমিত হয়েছেন। এদের মধ্যে একজন প্রতিবেদক এবং অন্যজন চ্যানেলটির নরসিংদী প্রতিনিধি। দুইজনই ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।
এটিএন নিউজ: এই সংবাদমাধ্যমটির একজন প্রতিবেদক আক্রান্ত হয়েছেন এবং ইতোমধ্যে সুস্থ হয়েছেন।
একাত্তর টিভি: একাত্তর টিভির মোট ৩ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে একজন চ্যানেলটির প্রডিউসার, একজন সেন্ট্রাল ডেস্কে কর্মরত ছিলেন। এছাড়া তাদের গাজীপুর প্রতিনিধি আক্রান্ত হওয়ার পর ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।
মাছরাঙা টেলিভিশন: এই টেলিভিশন চ্যানেলটির সাধারণ সেকশনের একজন কর্মকর্তা করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। তবে তিনি চিকিৎসা শেষে ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

চ্যানেল আই: চ্যানেল আইয়ের একজনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। তিনি অনুষ্ঠান বিভাগে কর্মরত ছিলেন।
এনটিভি: এই টেলিভিশন চ্যানেলটির মোট ১৫ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে ২ জন চ্যানেলটির প্রতিবেদক, ২ জন সংবাদ উপস্থাপক, ১ জন নিউজ এডিটর, ৬ জন ক্যামেরাপার্সন, ৩ জন অনুষ্ঠান বিভাগের এবং ১ জন ম্যাকাপম্যান।
আরটিভি: এই টিভি চ্যানেলটির মোট ৪ জন সংক্রমিত হয়েছেন।
বাংলাভিশন: এই টেলিভিশন চ্যানেলটির একজন প্রতিবেদক প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।
এসএ টিভি: চ্যানেলটির দুইজন সংবাদকর্মীর কোভিড-১৯ শনাক্ত হয়েছে। এদের একজন চ্যানেলটির ঢাকা অফিসের সংবাদকর্মী এবং অন্যজন গাজীপুর প্রতিনিধি।
চ্যানেল ২৪: এই সংবাদভিত্তিক চ্যানেলটির একজন কর্মী আক্রান্ত হয়েছেন।
সময় টিভি: সময় টিভিতে করোনা শনাক্ত হয়েছে দুইজন সংবাদকর্মীর।
নতুন সময় টিভি (আইপিটিভি): এই চ্যানেলটির একজন নিউজ প্রেজেন্টার করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
বিটিভি: রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেলের একজন শীর্ষ কর্মকর্তা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
দেশ টিভি: এই চ্যানেলটির একজন সংবাদ উপস্থাপক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
ডিবিসি নিউজ: এই চ্যানেলের একজন সংবাদকর্মীর করোনাভাইরাস শনাক্ত করা হয়েছে।
এটিএন বাংলা: এই চ্যানেলে আক্রান্ত হয়েছেন একজন সংবাদকর্মী।
এশিয়ান টেলিশিভশন: এই চ্যানেলের একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার সংক্রমিত হয়েছেন।
একুশে টিভি: তাদের দুইজন সংবাদকর্মীর করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

যেসব পত্রিকার সংবাদকর্মী করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন-
দৈনিক প্রথম আলো: দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় দৈনিক প্রথম আলোর ২ জন সাংবাদিক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে একজন ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।
দৈনিক সময়ের আলো: এই পত্রিকাটির ৮ জন সংবাদকর্মী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে পত্রিকাটির নগর সম্পাদক হুমায়ুন কবির খোকন ইতোমধ্যে মারা গেছেন। বাকি চারজন সংবাদকর্মী ও ৩ জন জেনারেল সেকশনের কর্মী।
ডেইলি স্টার: দেশের প্রথম সারির এই ইংরেজি দৈনিকটির একজন সংবাদকর্মী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
দৈনিক ইত্তেফাক: দেশের পুরাতন এই দৈনিকটির মোট ১৭ জন প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে ৫ জন প্রতিবেদক, ২ জন সম্পাদনা বিভাগের, ৮ জন কম্পিউটার সেকশনের এবং ২ জন সাধারণ সেকশনের কর্মী।
মানবজমিন: এই ট্যাবলয়েড পত্রিকাটির একজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।
ডেইলি সান: এই পত্রিকায় আক্রান্ত হয়েছেন ২ জন।
ভোরের কাগজ: এই পত্রিকাটির বামনা উপজেলা প্রতিনিধি আক্রান্ত হয়েছেন। তবে তিনি ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।
যায়যায়দিন: এই পত্রিকাটির রিডিং সেকশনের একজন আক্রান্ত হয়েছেন।
দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশ: এই পত্রিকাটির মোট দুইজন আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে একজন ঢাকার সংবাদকর্মী এবং অন্যজন গাজীপুরের কাপাসিয়া প্রতিনিধি। কাপাসিয়া প্রতিনিধি ইতোমধ্যে চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।
ঢাকা ট্রিবিউন: ঢাকা ট্রিবিউনে একজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি জেনারেল সেকশনে কাজ করতেন।
আমাদের নতুন সময়: এই পত্রিকাটির দুইজন সংবাদকর্মী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তবে তারা দুইজনই ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।
দৈনিক দেশ রূপান্তর: এই পত্রিকাটির ফিচার বিভাগের একজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
দৈনিক কালের কণ্ঠ: পত্রিকাটির একজন ফটো সাংবাদিক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
বাংলাদেশের খবর: এই প্রত্রিকার একজন প্রতিবেদক আক্রান্ত হয়েছেন। তবে তিনি এখন সুস্থ।
দৈনিক সংগ্রাম: এই প্রত্রিকার করোনা শনাক্ত হয়েছে একজনের। তিনি ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।
শীতলক্ষ্যা: নারায়ণগঞ্জের এ স্থানীয় পত্রিকার সম্পাদক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। চিকিৎসা শেষে তিনি ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।
দৈনিক আজকালের খবর: এই দৈনিকটির বরগুনার বামনা উপজেলা প্রতিনিধি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তবে তিনি এখন সুস্থ।
দৈনিক ইনকিলাব: দেশের পুরাতন এই পত্রিকার একজন সংবাদকর্মীর করোনা শনাক্ত হয়েছে। তিনি এখন সুস্থ আছেন।
দৈনিক জনতা: এই পত্রিকার একজন আক্রান্ত হয়ে ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।
দৈনিক আমার বার্তা: এই পত্রিকার সম্পাদক নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।
দৈনিক লোকসমাজ: যশোরের স্থানীয় এই দৈনিকটির একজন সাব-এডিটর আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।
দৈনিক প্রতিদিনের সংবাদ: এই দৈনিকটির একজন প্রতিবেদক আক্রান্ত হয়েছেন এবং তিনি চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

যেসব অনলাইন নিউজ পোর্টালের সংবাদকর্মী করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন-
বাংলা ট্রিবিউন: এই অনলাইন পোর্টালটির রিডিং সেকশনের একজনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।
পূর্বপশ্চিম ডট কম: এই পোর্টালটির জামালপুর প্রতিনিধি আক্রান্ত হয়েছেন। তবে তিনি ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন।
বিবার্তা: এই অনলাইন পোর্টালটির একজন সংবাদকর্মী আক্রান্ত হয়েছেন।
বার্তা২৪: এই নিউজ পোর্টালটির একজন বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

যেসব রেডিও চ্যানেলের সংবাদকর্মী করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন-
রেডিও টুডে: এই রেডিওটির নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
রেডিও আমার: তাদের একজন সংবাদকর্মীর কোভিড-১৯ পজিটিভ এসেছে।

এ ছাড়া বার্তা সংস্থা ইউএনবির চট্টগ্রাম প্রতিনিধি করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন।