কমনওয়েলথ গেমস; শাড়িতে দেখা যাবে না ভারতীয় মহিলা অ্যাথলিটদের

77

ভারতীয় নারীদের ঐতিহ্যের পোশাক শাড়ি। আর তাকেই এবার কমনওয়েলথের মঞ্চ থেকে বাদ দিয়ে দেওয়া হল। চলতি বছর গোল্ড কোস্টে অনুষ্ঠিত হতে চলা কমনওয়েলথ গেমসের উদ্বোধনে শাড়ি এবং ব্লেজারে আর মার্চ পাস্ট করতে দেখা যাবে না ভারতীয় অ্যাথলিটদের। তার বদলে পরতে হবে ট্রাউজার ও ব্লেজার।

কমনওয়েলথ গেমস শুরুর আগে নয়া এই নির্দেশিকা জারি করল ভারতীয় অলিম্পিক সংস্থা (আইওএ)। তাদের তরফে জানানো হয়, পুরুষ ও মহিলা অ্যাথলিটদের একই পোশাকে দেখা যাবে। সকলেই গাঢ় নীল রঙের ব্লেজার ও ট্রাউজার পরে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন। আইওএ সচিব রাজীব মেহতা বলেন, “উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সাধারণত চার থেকে পাঁচ ঘণ্টা চলে। ভারতীয় মহিলা অ্যাথলিটরা জানিয়েছিলেন উদ্বোধনী মঞ্চে দীর্ঘক্ষণ শাড়ি পরে থাকতে তাঁদের বেশ সমস্যা হয়। পাশাপাশি শাড়ি পরিয়ে দেওয়ার জন্যও অন্যের সাহায্যের প্রয়োজন হয়। সেই পরিপ্রেক্ষিতেই পোশাক বদলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ঠিক হয়, পুরুষ-মহিলা নির্বিশেষে একই পোশাকে দেখা যাবে ভারতীয়দের।”
শুধু কমনওয়েলথ গেমসেই নয়, এশিয়ান গেমস, অলিম্পিকের উদ্বোধনী আসরেও ভারতীয় মহিলা অ্যাথলিটদের ট্র্যাডিশনাল পোশাকেই দেখা যায়। শাড়ির উপরে থাকে জাতীয় পতাকার লোগো লাগানো ব্লেজার। যদিও ইন্দো-ওয়েস্টার্ন কম্বিনেশন নিয়ে কোনও সেভাবে কখনও আপত্তি জানাননি তাঁরা। তবে অতীতে অনেক অ্যাথলিটকে ব্লেজার ছাড়াই শাড়িতে দেখা গিয়েছে। ২০১৬ রিও অলিম্পিকে ব্যাডমিন্টন তারকা জোয়ালা গুট্টা, ২০১২ লন্ডন অলিম্পিকে সানিয়া মির্জা-সহ একাধিক অ্যাথলিট উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মার্চ পাস্ট করেছিলেন শুধু শাড়ি পরে। আবার টেনিস তারকা সুনিতা রাও ২০০৮ বেজিং অলিম্পিকে শাড়ির বদলে পরেছিলেন ট্রাউজার ও ব্লেজার। ফলে অ্যাথলিটদের পোশাকের বৈষম্য চোখে পড়ছিল স্পষ্টভাবে। তাই আইওএ সিদ্ধান্ত নিয়েছে, এবার থেকে মার্চ পাস্টের সময় একই ইউনিফর্ম হবে সমস্ত ভারতীয় অ্যাথলিটের।

আগামী ৪ এপ্রিল থেকে অস্ট্রেলিয়ায় শুরু এবারের কমনওয়েলথের আসর। চলবে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত। গেমসে মোট ২২৫ জন অ্যাথলিট ভারতের প্রতিনিধিত্ব করবেন এবার।