নড়াইলে আ’লীগের জাহাঙ্গীর, কালিয়ায় স্বতন্ত্র লিটন মেয়র নির্বাচিত

154

নড়াইল কণ্ঠ : নড়াইল পৌরসভায় আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন বিশ্বাস এবং কালিয়া পৌরসভায় স্বতন্ত্র প্রার্থী ফকির মুশফিকুর রহমান লিটন বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। রাত সাড়ে ১০টার নড়াইল পৌরসভার বিজয়ী প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করেন রিটার্নিং অফিসার মোঃ রায়হান কাওছার।

ঘোষিত ফলাফলে জানাগেছে, নড়াইল পৌরসভায় আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন বিশ্বাস নৌকা প্রতীকে ১১হাজার ৪৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি বিএনপি’র ধানের শীষে জুলফিক্কার আলী পেয়েছে ৬হাজার ৩৭১ ভোট, আ’লীগের বিদ্রোহী গ্রুপের স্বতন্ত্রপার্থী সাবেক জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন বিশ্বাস (নারকেল গাছ) ১হাজার ৩৭৭ ও জেলা বাস ও মিনিবাস পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি যুব লীগ নেতা সরদার আলমগীর হোসেন আলম ( জগ) প্রতিকে ২হাজার ৬৩৪, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির পারভেজ আলম বাচ্চু (হাতুড়ি) ১৬১, জাসদের সৈয়দ আরিফুল ইসলাম পান্ত (মশাল) ১১৭, জাতীয় পাটির (এরশাদ) অ্যাডভোকেট ফায়েকুজ্জামান ফিরোজ (লাঙ্গল)৯৭, এনপিপি আনোয়ার হোসেন খান ( আম ) প্রতিকে ৪৩ ভোট পেয়েছেন। 

মহিলা কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন আঞ্জুমনোয়ারা অঞ্জলী, ইপিরানী অধিকারী ও সন্ধ্যা রানী বিশ্বাস।
সাধারণ কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন ১নম্বর ওয়ার্ডে মোঃ সাইফুল ইসলাম বাচ্চু, ২নং ওয়ার্ডে রবিউল ইসলাম টুনু, ৩নং ওয়ার্ডে কাজী জহিরুল হক জহির, ৪নং ওয়ার্ডে মোঃ রজিবুল ইসলাম, ৫নং ওয়ার্ডে রেজাউল বিশ্বাস, ৬নং ওয়ার্ডে শরফুল আলম লিটু, ৭নং ওয়ার্ডে এহসান হাবিব, ৮নং ওয়ার্ডে অরুন কুমার সাহা এবং ৯নং ওয়ার্ডে মোঃ মাহাবুব।

এই পৌরসভায় কেন্দ্র সংখ্যা ছিল ১৪টি এবং ভোটার সংখ্যা ছিল ২৯ হাজার ৪৫০ জন। বৈধ ভোটার সংখ্যা ২১ হাজার ৪১৯ ভোট এবং ভোট প্রয়োগ হয়েছে ৭২.৭৩% ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।

এদিকে ভোটকারচুপি ও অনিয়মের অভিযোগ এনে বিকাল ৩টার দিকে সোহরাব হোসেন বিশ্বাস, সরদার আলমগীর হোসেন আলম, জাসদের সৈয়দ আরিফুল ইসলাম পান্থ নির্বাচন বর্জন করেন।

এই পৌরসভায় কেন্দ্র সংখ্যা ছিল ১৪টি এবং ভোটার সংখ্যা ছিল ২৯ হাজার ৪৫০ জন। বৈধ ভোটার সংখ্যা ২১ হাজার ৪১৯ ভোট এবং ভোট প্রয়োগ হয়েছে ৭২.৭৩% ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।
এদিকে ভোটকারচুপি ও অনিয়মের অভিযোগ এনে বিকাল ৩টার দিকে সোহরাব হোসেন বিশ্বাস, সরদার আলমগীর হোসেন আলম, জাসদের সৈয়দ আরিফুল ইসলাম পান্থ নির্বাচন বর্জন করেন।

কালিয়া পৌরসভা 

কালিয়া পৌরসভায় ৯টি কেন্দ্রের মধ্যে একটি কেন্দ্র পূর্বকালিয়া মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোট স্থগিত থাকায় বাকি ৮টি কেন্দ্রের ফলাফলে স্বতন্ত্রপ্রার্থী আওয়ামীলী নেতা ফকির মুশফিকুর রহমান লিটন চামচ প্রতীকে ৩হাজার ৮১২ ভোট পেয়ে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। এছাড়া বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী এসএম ওয়াহিদুজ্জামান মিলু (ধানের শীষ) ২৬১টি ভোট, আওয়ামীলীগ সমর্থিত ওয়াহিদুজ্জামান হিরা নৌকা প্রতীকে ১ হাজার ৭৫৪ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী আ’লীগ নেতা বিএম এমদাদুল হক টুলু (নারকেল গাছ) ১হাজার ৩৪৯ভোট, কালিয়া উপজেলা মহিলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক সোহেলী পারভীন নিরী (জগ) ৪৯৫ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী আ’লীগের মোঃ লায়েক শেখ (মোবাইল ফোন ) ২৬৮ভোট ও স্বতন্ত্র পার্থী এসএম ইকরাম রেজা পেয়েছেন (হ্যাঙ্গার) পেয়েছেন ৯৮৭ ভোট।

এর আগে আ’লীগের প্রার্থী নৌকা প্রতীকের কর্মী-সমর্থকরা কেন্দ্র দখল করে ভোট কাটার অভিযোগে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী এসএম ওয়াদিুজ্জামান মিলু ভোট বর্জন করেন। ভোট কাটার ঘটনায় নৌকা প্রতীকের এক পোলিং এজেন্টকে ছয় মাসের জেল দেয়।

অপরদিকে কালিয়া পৌর নির্বাচন বর্জন এবং পুন:নির্বাচনের দাবি করেছে আ’লীগ মনোনীত পৌর মেয়র পদপ্রার্থী ওয়াহিদুজ্জামান হীরা। বিকাল ৩টার দিকে ওয়াহিদুজ্জামান হীরা নিজে নড়াইল প্রেসক্লাবে উপস্থিত হয়ে সাংবাদিকদের সামনে এ ঘোষণা দেয়। তিনি সাংবাদিকদের জানান, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী গ্র“পের মেয়র প্রাথীর্র নিশ্চিত পরাজয় জেনে নড়াইল-১ আসনের এমপি কবিরুল হক মুক্তি তার সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে বিভিন্ন কেন্দ্র দখল, ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে আসতে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে এবং সুষ্ঠ নির্বাচন করতে বাধা সৃষ্টি করে। প্রশাসনের ভুমিকা ছিল নিরব। এ সময় দলের বিভিন্ন নেতা কর্মী উপস্থিত ছিলেন।