মোহনবাগান ম্যাচে বিশৃঙ্খলার জের, তিন লক্ষ টাকা জরিমানা আইজলের

87

২৫ জানুয়ারি আইজলে মোহনবাগান ম্যাচে তুমুল অশান্তির জের। এআইএফএফ-এর বড়সড় শাস্তির মুখে পড়ল আইজল। আইজলের বিরুদ্ধে বিশৃঙ্খলার অভিযোগ জানিয়ে প্রথমে ইস্টবেঙ্গল, পরে মোহনবাগান চিঠি পাঠিয়েছিল ফেডারেশনের কাছে। সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই শাস্তি ঘোষণা করল সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশন।এদিন ফেডারশনের তরফে তিন লক্ষ টাকা জরিমানা করা হল আইজলকে। সেই সঙ্গে ওই দলের ম্যানেজারকে চার ম্যাচের জন্য নির্বাসিত করা হল। ম্যাচ সুষ্ঠভাবে আয়োজন ও পরিচালনা করতে ব্যর্থ হওয়ার জন্য নির্বাসিত করা হল ম্যানেজারকে। পাশাপাশি আইজল সমর্থকদের এমন ঘটনায় তীব্র অসন্তুষ্ট এআইএফএফ। ঘটনার কড়া নিন্দা করে ফেডারেশন জানিয়ে দেয়, এরপর এ ধরনের কোনও অপ্রীতিকর পরিস্থিতি তৈরি হলে আইজলের খালি স্টেডিয়ামেই ম্যাচের আয়োজন করতে হবে। ফেডারেশনের শৃঙ্খলারক্ষা কমিটির চেয়ারম্যান উষানাথ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “আইজলকে আরও বেশি অঙ্কের জরিমানা করার কথা ভাবা হয়েছিল। তবে সবদিক বিচার করেই তিন লক্ষ টাকা জরিমানা হয়েছে। আগামী ম্যাচের আগেই তা দিতে হবে। পাশাপাশি ম্যাচের ৪৮ ঘণ্টা আগে থেকে স্টেডিয়ামের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।”আইজলে খেলতে গিয়ে প্রথমে ইস্টবেঙ্গল ও কোচ খালিদ জামিলকে পড়তে হয়েছিল সমর্থকদের রোষের মুখে। আইজলের প্রাক্তন কোচ খালিদের উপর চড়াও হয়েছিলেন তাঁরা। তাঁকে ‘বিশ্বাসঘাতক’ বলে ঘেরাও করা হয় ইস্টবেঙ্গলের ড্রেসিংরুমও। মোহনবাগান ম্যাচেও ছবিটা পালটায়নি। সেবার সমর্থকদের নিশানায় ছিলেন রেফারিরা। সবুজ-মেরুনকে পেনাল্টি দেওয়া ও আইজলকে না দেওয়া নিয়ে রেফারি ও লাইন্সম্যানদের উপর ক্ষোভ উগরে দেন মাঠে উপস্থিত দর্শকরা। এক ঘণ্টারও বেশি সময় মাঠেই আটকে থাকেন রেফারিরা। বাগান ফুটবলাররাও হেনস্তার শিকার হন। এরপরই আইজলের বিরুদ্ধে ফেডারেশনের কাছে অভিযোগ জানায় দুই প্রধান। যার ভিত্তিতে গত মাসেই ফেডারেশনের ডিসিপ্লিনারি কমিটি সিদ্ধান্ত নেয়, সেখানকার সমর্থকদের হিংস্র আচরণের জন্য ঘরের মাঠে আপাতত কোনও ম্যাচ দেওয়া হবে না আইজলকে। তবে পুরো ঘটনায় ক্ষুব্ধ ফেডারেশন গতবারের আই লিগ চ্যাম্পিয়নদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তির সিদ্ধান্তই নিল। সব মিলিয়ে টুর্নামেন্ট শেষ হওয়ার আগে সমর্থকদের আচরণের জন্য বেশ বিপাকে পড়তে হল আইজল কর্তাদের।