বেনাপোল প্রেসক্লাবের স্বঘোষিত সভাপতি মহসিন মিলন!

65

বেনাপোল(যশোর) সংবাদদাতা : সিদ্ধ্ান্ত ছাড়াই বেনাপোল প্রেস ক্লাবের নতুন কার্যকরি কমিটি-২০১৮ এর ঘোষনা দিয়েছেন। প্রেসক্লাবের সভাপতি মহসিন মিলন। গত ২৭ জানুয়ারী প্রেসক্লাবের নির্বাচনী সাধারন সভায় ঘোষনা দেয়া হয় ১০ ফেব্র“য়ারী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে এবং নির্বাচন কমিশনার ও গঠন করা হয়। পরবর্তীতে নির্বাচন না করার জন্য মহসিন মিলন তার নিজস্ব কয়েকজন সদস্যদের কে সাদা কাগজে স্বাক্ষর করিয়ে নেন। এবং নির্বাচন বন্ধ করার নীল নকশা আকেন। এদিকে পরিস্থিতি শান্ত ও সুষ্টু নির্বাচনের স্বার্থে যশোর ১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিন বিষয়টি জানতে পেরে প্রেসক্লাবের সদস্যদের সাথে মত বিনিময় করেন। মতবিনিময় কালে তিনি বলেন, সকল সদস্যদের উপিস্থিতিতে একটি বির্নাচন অনুষ্ঠিত হবে। সেটা নির্বাচন বা সমযোথার মাধ্যমেও হতে পারে। তবে তার স্বচ্চতা থাকতে হবে। ১০ ফেব্র“য়ারী শনিবার প্রেসক্লাবের সদস্যদের নিয়ে নির্বাচন হওয়ার কথা কিন্তু শুক্রবার রাতে মহসিন মিলন নিজেকে সভাপতি করে তার পরিবারের সদস্য সহ মনগড়া কিছু সদস্যদের নিয়ে ১৩ সদস্যের এটি কমিটি করে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়েছেন। যা সাধারন সদস্যের মধ্যে বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। ঘোষিত কমিটিতে সহ সভাপতি জামাল হোসেন ও সাধারন সম্পাদক ঘোষনা দেয়া হয়েছে মোঃ রাশেদুর রহমান রাশুকে। যা তারা নিজেরাও জানেন না। তাছাড়া প্রেসক্লাবের ২১ সদস্যের মধ্যে সিনিয়র সদস্যদের বাদ দিয়ে লেখাপড়া না জানা কিছু নাম কাওয়াস্তে সাংবাদিক নামধারী সদস্যদের নিয়ে তার পকেট কমিটি ঘোষনা দিয়েছেন। মহসিন মিলন তার সভাপতি পদ টিকিয়ে রাখতে দীর্ঘ ১৩ বছর ধরে এরুপ কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছেন। গত সাধারন সভায় প্রেসক্লাবের আয় ব্যয়ের সঠিক হিসাব ও প্রকৃত আয়ের উৎসগুলি উপস্থাপন করেননি। ব্যাংকে থাকা প্রেসক্লাবের ২ লক্ষ টাকার ও হিসাব দেননি। প্রেসক্লাবের ভাড়া করা ঘরটি ও সুকৌশলে ব্যাক্তিনামে ডিড করে নিয়েছেন তিনি। যা গঠনতন্ত পরিপন্থি। েেপ্রসক্লাবের রেজিষ্টার সহ সকল কাগজপত্র প্রেসক্লাবে থাকার কথা থাকলেও রয়েছে তার নিজের কাছে। সেসব রেজিষ্টারে ইচ্ছা মাফিক বছরে দুএকবার মিটিং ডেকে স্বাক্ষর করিয়ে নেন। সদস্যরা এসব কর্মকান্ডের প্রতিবাদ করলে গোশ্মা হন তিনি। নির্বাচন বা সিদ্ধান্ত ছাড়ায় মনগড়া কমিটি ঘোষনা করায় ঘোষিত নতুন কমিটির সহ সভাপতি জামাল হোসেন ও সাধারন সম্পাদক মোঃ রাশেদুর রহমান রাশু এ অবৈধ কমিটি ঘোষনার নিন্দা ও তীব্য প্রতিবাদ জানিয়েছেন। প্রতিবাদ জানিয়ে তারা বলেন, গঠনতন্ত্র অনুয়ায়ী সকলের উপস্থিতিতে আগামী সাত দিনের মধ্যে নতুন বৈধ কমিটি গঠন না করলে স্বঘোষিত সভাপতি মহসিন মিলনের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।