নড়াইল উপজেলা চেয়ারম্যানের অফিস রুম তালা, দু’ঘন্টা পর চাবি ফেরৎ

121

নড়াইল কণ্ঠ : নড়াইল সদর উপজেলা চেয়ারম্যানের অফিস রুম তালা মারা, চাবি ছিনিয়ে নেয়া এবং দু’ঘন্টা পর চাবি পাওয়ার নাটকীয় এক ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার (২৫ জানুয়ারি) আনুমানিক দুপুর ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটেছে।
উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানাগেছে, নড়াইল সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো: মনিরুল ইসলামের অফিস কক্ষ কতিপয় দুর্বৃত্তরা তালা মেরে চাবি ছিনিয়ে নেয়। এ ঘটনা ঘটার দু’ঘন্টা পরই উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অফিস কক্ষের সামনে চাবি রেখে চলে যায় কে বা কাহারা। তালা দেয়া ও চাবি ফেরৎ দেয়ার ঘটনার তেমন কোন পরিচ্ছন্ন ধারণা উপজেলা প্রশাসন থেকে পাওয়া যায়নি।
এ ঘটনায় নাম প্রকাশে অনুইচ্ছুক এমন কয়েকজন সচেতন নাগরিক বলেছেন, সরকারি চাকুরিজীবীরা সাবধান থাকবেন, যে কোন সময়, যে কেউ অতর্কিতভাবে আপনার অফিসের চাবি ছিনিয়ে নিয়ে অফিস কক্ষ তালা বন্ধ করে দিয়ে যেতে পারে। ঘটনাটিকে ছোট করে না দেখার দাবি জানিয়েছেন স্থানীরা। তারা আরো বলেছেন, জেলা ও উপজেলা প্রশাসনসহ অন্যান্য সংস্থা বিষয়টিকে দ্রুত খতিয়ে দেখবেন ।
এদিকে এ ঘটনা সম্পর্কে উপজেলা চেয়ারম্যানের সিএ বোরহান জানান, হঠাৎ দুপুর সাড়ে বারটার দিকে আমার রুমে ১৫-২০ জন লোক এসে ডুকে জোরপূর্বক আমার কাছে থাকা উপজেলা চেয়ারম্যান সাহেবের কক্ষের চাবি ছিনিয়ে নেয় এবং চেয়ারম্যান সাহেবের রুম তালা মেরে চলে যায়। তালা মরে চলে যাওয়ার সময় তারা বলে যে, এটা রাজনৈতিক ব্যাপার কোন শব্দ করবেন না। তারা কাওকে চিনতে পারেনি বলেন জানান।
এদিকে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সালমা সেলিম বলেন, আমি ওই সময়ে নড়াইলের জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এসডিজি বিষয়ের উপর একটি সভায় ছিলাম। আমি শুনামাত্রই বিষয়টি সদর থানার ওসিকে অবগত করেছি। এদিকে চাবি পাওয়ার বিষয়টি জানতে সদরের ইউএনও সালমা সেলিমকে (০১৭৪৯২৫৬৭) কয়েকবার মোবাইল করার পরও তাকে মোবাইল পাওয়া যায়নি।
মোবাইলে সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, এ সময় আমি অফিসে ছিলাম না। আমি গতকাল (২৪ জানুয়ারি) ব্যক্তিগত কাজে ঢাকাতে এসেছি। শুনেছি আমার রুম তালা মেরে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ বিষয়ে প্রশাসনের কর্মকর্তারা আইনগত ব্যবস্থা নেবেন বলে মন্তব্য করেন তিনি।
সদর উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান স্বপ্না সেন জানান, ঘটনার সময় আমি সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে ডিসি অফিসে এক সভায় ছিলাম। শুনেছি কিছু বহিরাগত লোকজন উপজেলা চেয়ারম্যানের সিএ বোরহান এর নিটক থাকা চাবি ছিনিয়ে নিয়ে কক্ষটি তালা বন্ধ করে চাবি নিয়ে চলে যায়। ঘটনাটি দু:খজনক।
এ ঘটনার সম্পর্কে সদর থানার ওসি আনোয়ার হোসেনের নিকট সরাসরি যোগাযোগ করলে তিনি এ ঘটনা সম্পর্কে কোন বক্তব্য দিতে রাজি হননি। তিনি ঘটনাটি শুনেছেন মাত্র।