সরকারি কলেজের শিক্ষকদের ধর্মঘট

114

নড়াইল কণ্ঠ : সরকারি বেতন কাঠামোর আওতায় আসা বেসরকারি কলেজের শিক্ষকদের বিসিএস ক্যাডারের মর্যাদা না দেওয়ার দাবিতে কর্মবিরতি শুরু করেছেন বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারের শিক্ষকরা।
পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী ‘নো বিসিএস, নো ক্যাডার দাবিতে রবিবার ( ২৬ নভেম্বর) সকাল থেকে শুরু হওয়া এই কর্মবিরতি সোমবারও চলবে।
বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির সভাপতি অধ্যাপক আই কে সেলিম উল্লাহ খন্দকার রবিবার বলেন, সকাল থেকে সব সরকারি কলেছে কর্মবিরতি চলছে। ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধের পাশাপাশি ‘অফিসিয়াল’ কার্যক্রমও বন্ধ আছে। “আমরা (শিক্ষকরা) যার যার প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত থেকে প্রতিবাদ সভা করছি। সোমবারও একই কর্মসূচি পালন করা হবে।”
শিক্ষকদের এই কর্মসূচির কারণে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের রবিবার-সোমবারের সব পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে।
দেশের যেসব উপজেলায় সরকারি কলেজ ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় নেই, সেখানে একটি করে কলেজ ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়কে সরকারিকরণের ঘোষণা দিয়েছে সরকার। এর মাধ্যমে সারা দেশে ৩২৫টি বেসরকারি স্কুল ও ৩১৫টি বেসরকারি কলেজ জাতীয়করণ হচ্ছে।
এর আগে যেসব বেসরকারি কলেজকে সরকারিকরণ করা হয়েছে, সেগুলোর শিক্ষকদের ক্যাডারভুক্ত করা হয়েছে। আর এই সিদ্ধান্ত নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে আপত্তি জানিয়ে আসছেন বিসিএস শিক্ষকরা।
নতুন করে সরকারিকরণ করা কলেজগুলোর শিক্ষকদের কী মর্যাদা দেওয়া হবে তা এখনও চূড়ান্ত করেনি সরকার। বিসিএস শিক্ষকরা ওইসব শিক্ষকদের আত্তীকরণ নিয়ে সুস্পষ্ট বিধিমালা প্রণয়নের দাবি জানিয়ে আসছেন।
সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারের ১৫ হাজারের বেশি শিক্ষক বিভিন্ন সরকারি কলেজে কর্মরত রয়েছেন।
নতুন করে জাতীয়করণ করা কলেজের শিক্ষকদের বিসিএস ক্যাডার পদমর্যাদা না দেওয়ার দাবিতে গত শুক্রবার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সমাবেশ করে দুই দিনের কর্মবিরতির ডাক দেয় বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি।
জাতীয়করণ হওয়া বেসরকারি কলেজের শিক্ষকদের ক্যাডারভুক্ত করা হলে আগামী ৬, ৭ ও ৮ জানুয়ারি আবারও কর্মবিরতি পালনের ঘোষণা রয়েছে তাদের।