খুলনায় ইউপি চেয়ারম্যানের দুর্নীতি তদন্তে কমিটি গঠন

219

নড়াইল কণ্ঠ : খুলনার দিঘলিয়া উপজেলার ৩নং দিঘলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের (সদর ইউনিয়ন) চেয়ারম্যান মোল্লা ফিরোজ হোসেনের বিরুদ্ধে ওঠা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ যাচাই করতে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৬ নভেম্বর)উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শম্পা কুণ্ডু এ কমিটি গঠন করেন। কমিটিকে অভিযোগ তদন্ত পূর্বক দ্রুততম সময়ের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে দিঘলিয়া উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা মো. আফরুজ্জামানকে। এছাড়া সদস্যরা হলেন- উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মো. ইমাদুল হক খান এবং উপজেলা সমবায় কর্মকর্তা সরদার জাহিদুর রহমান।
তদন্ত কমিটি গঠনের বিষয়টি নিশ্চিত করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শম্পা কুণ্ডু বলেন, ‘৮ জন ইউপি সদস্যের লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে চেয়ারম্যান মোল্লা ফিরোজ হোসেনের বিরুদ্ধে ওঠা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ যাচাই করতে এ কমিটি গঠন করা হয়েছে। তবে নির্দিষ্ট সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়নি। দ্রুততম সময়ের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পরই এ বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’
উল্লেখ্য, চেয়ারম্যান মোল্লা ফিরোজ হোসেনের বিরুদ্ধে মালামাল কেনার জন্য ‘শরীক’ নামক একটি বেসরকারি সংস্থা প্রদত্ত অনুদানের ২ লাখ টাকা, কাজ না করেই হাট-বাজারের জন্য উপজেলা পরিষদ থেকে প্রাপ্ত অর্থ, পরিষদের প্রায় এক লাখ টাকার গাছ বিক্রি, দেয়াড়া কলোনী খেয়াঘাট বাবদ নামমাত্র টাকা পরিষদে জমা দেখিয়ে বাকি টাকা, লোকাল গভার্মেন্ট সাপোর্ট প্রোগ্রাম (এলজিএসপি) সহ ব্যাংকে আংশিক অর্থ রেখে বাকি টাকা, নাগরিক সনদ, জন্মনিবন্ধন, ওয়ারেশকাম সার্টিফিকেট ও ট্রেড লাইসেন্স’র আংশিক টাকা জমা দেখিয়ে অর্থ এবং ভুয়া প্রকল্পের নামে কিছু টাকা খরচ দেখিয়ে ট্যাক্সের প্রায় ২০-২৫ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছে- মর্মে ৮ জন ইউপি সদস্য ১২ নভেম্বর দিঘলিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন।
এছাড়া তার বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন করে শাস্তির দাবিতে ১৫ নভেম্বর ইউপি সদস্যরা সংবাদ সম্মেলনও করেন।