কবি বিপিন সরকারের জ্ঞ্যাতিভোজে লেখনি প্রকাশের দাবি

114

নড়াইল কণ্ঠ : “স্বভাব কবি বিপিন সরকারের নবসৃষ্টি ও সৃজনশীল লেখনি আবহমান বাংলা এবং বাঙালি সংস্কৃতিকে আরো একধাপ এগিয়েছে” তার এ সকল লেখনি সংগ্রহ করে সরকারীভাবে প্রকাশের দাবি জানান স্বরণ সভায় বক্তারা। নড়াইলে সদ্য প্রয়াত স্বভাব কবি বিপিন সরকারের স্মৃতিচারণ ও তার আত্মার সৎগতির উদ্দেশ্যে জ্ঞ্যাতিভোজসহ ধর্মীয় বিভিন্ন কর্মসুচির মধ্যে দিয়ে শেষ হয়েছে।

কবির নিজ বাড়ির আঙ্গিনায় নড়াইল পৌরসভার বাহিরডাঙ্গায় বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) দিনব্যাপি বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হয়। ভোরে কবির প্রকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পনের মধ্যদিয়ে কর্মসুচির শুভসুচনা করা হয়। ভোর থেকে বেলা দেড়টা পর্যন্ত ধর্মীক্রিয়াদিসহ ভজন কীর্তন অনুষ্ঠিত হয়।

এরপর দুপুর ২টায় সুবাস চন্দ্র বিশ্বাসের সভাপতিত্বে স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানে অতিথি ও বক্তব্য রাখেন শিক্ষক শ্রীধাম সিংহ, বিশিষ্ট ব্যবসায় ও সাংস্কৃতিক সংগঠক আকরাম সাইদ চুন্নু, নড়াইল কন্ঠ পত্রিকার সম্পাদক কাজী হাফিজুর রহমান, চিত্রশিল্পী বলদেব অধীকারি, সিনিয়র সাংবাদিক কবি সাথী তালুদার, সমরেশ মজুমদার, কালিপদ সরকার, কবি আক্কাছ আলী, এ্যড.খগেন্দ্র নাথ বিশ্বাস, কবি সৈয়দ হাসমত আলি, এ্যড. পরিতোশ  বাগচি, কবি মাহবুবুর রহমান মিঠু, কবি আশা মনি, এনায়েত হোসেন, যাযাবর মুনির এ্যড. সোহরাব হোসেন বিশ্বাস ও জুলফিকার আলি, এ্যড.সুনিল বিশ্বাস, ইপি রানীসহ কবির প্রমুখ।
অনুষ্ঠানে বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষসহ কবির অগনিত ভক্তবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন কবি পুত্র বিজন বিশ্বাস।
বক্তারা বলেন, “স্বভাব কবি বিপিন সরকারের সৃষ্টি ও সৃজনশীল নতুন লেখনি বাংলা ও বাঙালি সংস্কৃতিকে আরো একধাপ এগিয়ে ছিলো, তাঁর এ সকল লেখনি (প্রকাশিত-অপ্রকাশিত) সংগ্রহ করে সরকারি ভাবে প্রকাশের দাবি জানানো হয়”। সন্ধ্যায় জ্ঞ্যাতিভোজ সবশেষে কবি গানের মধ্যদিয়ে শেষ হয় দিনব্যাপি কর্মসৃচি।