নড়াইলে বিভিন্ন দপ্তরের সেবার মানন্নোয়নে দুর্নীতি বিরোধী প্রচারাভিযান : তত্বাবধায়কের সহানুভুতি প্রকাশ

334

নড়াইল কণ্ঠ : সরকারি সেবার মানন্নোয়নের লক্ষ্যে দুর্নীতি বিরোধী প্রচারাভিযান করেছে জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্যবৃন্দ। শনিবার (৭ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১১টায় দুপ্রক জেলার সম্পাদক কাজী হফিজুর রহমানের নেতৃত্বে নড়াইল সদরের সাবরেজিস্ট্রি অফিস, সদর হাসপাতাল ও সদর উপজেলা পরিষদ ক্যাম্পাস সমূহে “দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার হোন অধিকার প্রতিষ্ঠায় অংশ নিন” এই শ্লোগান সম্বলিত বিলবোর্ড স্থাপন করা হয়।
বিলবোর্ডে উল্লেখ করা হয়েছে, “আপনি কি সরকারি অফিস সমূহ থেকে সেবা পেতে হয়রানি বা দুর্নীতির স্বীকার হয়েছেন বা হচ্ছেন? সেবা পেতে কি আপনাকে দিনের পর দিন নানা অজুহাতে ঘুরাচ্ছেন? যদি হয়ে থাকেন তাহলে আজই আপনি আপনার অভিযোগ তুলে ধরুন বা ফ্রি কল করুন এই নম্বরে- দুর্নীতি রুখবে এক শূন্য ছয় ১০৬। জবাবাদিহিতামূলক প্রশাসনিক ব্যবস্থা গড়ে তোলার লক্ষ্যে এবং স্বাধীনতার অন্যতম চেতনা দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার দৃঢ় প্রত্যয়ে আপনিও অংশ নিন!
এ প্রচারাভিযানকালে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জেলা দুপ্রক সদস্য স্বপ্না রায়, সৌরভ ব্যানার্জী, মুন্সি আসাদুর রহমান, মো: মাসুম, মধু সরকার প্রমুখ।
এ প্রচারাভিযানকালের সময় নড়াইল সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা: আবুল বাসার মোহাম্মদ আসাদুজ্জামানের সাথে বেলা ১২টায় তাঁর অফিস কক্ষে দুপ্রক কমিটির প্রতিনিধি টীম হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবার মানন্নোয়ন ও সেবা প্রাপ্তি নিশ্চিত করার লক্ষ্যে মতবিনিময় করেন। এ সময় তত্বাবধায়ক ডা: আবুল বাসার মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান নড়াইল সদর হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবার সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা করেন। তিনি কমিটির সদস্যবৃন্দকে জানান, আমি গত ২৫ সেপ্টেম্বর এখানে যোগদান করেছি। এরপর আজ (৭ অক্টোবর) মাত্র অফিসে বসেছি। আমি সার্বিক পরিস্থিতি পুরাটা জেনে পারিনি। তবে প্রাথমিকভাবে যেটা অনুভব করছি যে, ডাক্তারের স্বল্পতা এতো বেশি যে চিকিৎসা ব্যবস্থাটা পুরাপুরি ভেঙ্গে আছে এবং একে যদি সামনে নিয়ে যেতে হয় তা হলে আমার মেডিকেল অফিসারসহ অন্যান্য পোষ্টিং গুলো প্রয়োজন। বিশেষ করে আউটডোর মেডিকেল অফিসার, এনেস্থেসিয়া ডাক্তার নেই বললে চলে। আমার আগামীকাল ( ৮ অক্টোবর) থেকে এনেসথিয়া ডাক্তার বদলী যাচ্ছে। যার ফলে এ হাসপাতালে ৮ অক্টোবর থেকে অপারেশন বন্ধ হয়ে যাবে। অন্যান্য সাইটগুলেতো একই রকম। যেহেতু আমি একেবারেই নতুন। আমি ধীরে ধীরে অন্যান্য তথ্য সংগ্রহ করতেছি। আমি একটি ফাইল আকারে উপস্থাপন করবো। হাসপাতালের চিকিৎসাসেবার মানন্নোয়ন করতে কি কি সমস্যা আছে সেগুলি নিয়ে সিভিল সোসাইটি, সরকারী অন্যান্য দপ্তরের সহযোগিতা চাইবো। আমার পক্ষ থেকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও মন্ত্রণালয়ের সাথে যোগাযোগ করবো। তবে স্থানীয়দের সহযোগিতা লাগবে।