দুর্গাপুজোর ব্যয় কমিয়ে রোহিঙ্গাদের সাহায্যের উদ্যোগ নিলো বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ

148

নড়াইল কণ্ঠ : চার লক্ষের বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীর পাশে দাঁড়াতে ব্যতিক্রম উদ্যোগ গ্রহণ করলেন বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ৷ দুর্গা পুজোর খরচ কমিয়ে, সেই অর্থ রোহিঙ্গাদের সাহায্য করতে উদ্যোগী তাদের এ উদ্যোগ। সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক তাপস কুমার পাল জানান, ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দিরে দুর্গোৎসবের প্রস্তুতি শেষ পর্যায়ে। তবে এ বছর সেই পুজোর খরচ কমিয়ে আনা হয়েছে। সেই টাকায় শরণার্থীদের সহায়তা করা হবে। প্রসঙ্গত, মায়ানমারের রাখাইন সংঘর্ষের জেরে রক্তাক্ত৷ সেখানকার রোহিঙ্গা বাসিন্দারা বাংলাদেশের চট্টগ্রামে অনুপ্রবেশ করেছে। অভিযোগ, সেনা অভিযানের আড়ালে গণহত্যা চালাচ্ছে মায়ানমার সরকার৷ যদিও মায়ানমার সরকারের দাবি, গত ২৫ অগস্ট রোহিঙ্গা জঙ্গিগোষ্ঠী প্রথমে সেনা চৌকিতে হামলা চালায়৷ তারপর শুরু হয় সেনা অভিযান৷ চট্টগ্রাম ও সংলগ্ন এলাকায় আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়াতে চায় বাংলাদেশের পূজা উদযাপন পরিষদ৷ এই সিদ্ধান্তের কথা দেশের সব পুজো কমিটিগুলোকে জানানো হয়েছে৷
বাংলাদেশে এবার পূজামণ্ডপের সংখ্যা বেড়েছে। সারা দেশে পুজোর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩০ হাজার ৭৭টি। গত বছর এই সংখ্যা ছিল ২৯ হাজার ৩৯৫টি। গতবারের তুলনায় ৬৮২টি পুজো বেশি হচ্ছে। রাজধানী ঢাকায় এবার পুজো হচ্ছে ২৩১টি, গত বছর এই সংখ্যা ছিল ২২৯। এ বছর সবচেয়ে বেশি পূজা হচ্ছে চট্টগ্রামে, ১৭৬৭টি। এর পরে দিনাজপুরে ১২৪২। গোপালগঞ্জে পুজোর সংখ্যা ১১৭৫টি।
পরিষদ কর্তৃপক্ষের বক্তব্য, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাই যদি অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে একজোট হয়, তবে অসুরশক্তি নির্মূল করা কঠিন কিছু নয়। দুর্গাপূজা এই বার্তাই বহন করে। রোহিঙ্গা শরণার্থী সমস্যার কথা উল্লেখ করে বলা হয়, বাংলাদেশ এই সমস্যা নিয়ে অমানবিক পরিস্থিতির মুখোমুখি। পরিষদ সিদ্ধান্ত নিয়েছে, দুর্গাপূজায় উৎসবের খরচ বাঁচিয়ে শরণার্থীদের সহায়তা করা হবে।”