লোহাগড়ায় অস্ত্র উদ্ধার নিয়ে ধুম্রজাল

224

নড়াইল কণ্ঠ : নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার তেলকাড়া গ্রাম থেকে একটি শাটার গান ও পাঁচটি গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। গত বুধবার (১৬ আগষ্ট) সকালে লোহাগড়া থানা পুলিশ এ অস্ত্র উদ্ধার করে। এ সময়ে দুজনকে আটক করা হয়। এ অস্ত্র উদ্ধার নিয়ে ধূ¤্রজালের সৃষ্টি হয়েছে। ইউপি নির্বাচন নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে এ অস্ত্র উদ্ধার বিষয়ে এক পক্ষ অন্য পক্ষকে দোষারোপ করছে।
গ্রামবাসী ও পুলিশ সূত্র জানায়, কোটাকোল ইউপির চেয়ারম্যান নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তেলকাড়া গ্রামে দুপক্ষ নির্বাচনের সময় থেকেই প্রতিহিংসাপরায়ন হয়। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন খান জাহাঙ্গীর আলম ও মারিয়া হোসেন। মারিয়া বিজয়ী হন। তেলকাড়া গ্রামে মারিয়ার পক্ষের মাতবর আশ্রম মোল্লা, শামীম ও ইমরুলসহ আরো কয়েকজন। জাহাঙ্গীর আলম পক্ষের মাতবর নিজাম শেখ।
আশ্রম মোল্লা বলেন, গত বুধবার ভোররাতে শাকিল মোল্লা ও মশিয়ার মোল্লাসহ ১০-১২ জন লোক আমাদের পক্ষের লোকজনকে হত্যা করতে ওই অস্ত্র নিয়ে এসেছিলেন। শাকিল ও মশিয়ারকে গ্রামের লোকজন অস্ত্রসহ ধরে ফেলে সকালে পুলিশে সোপর্দ করেছে।
নিজাম শেখ বলেন, ওই দুজন লোক আমাদের পক্ষের। তাই তাঁদেরকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে মারধর করে ওই অস্ত্র দিয়ে ফাঁসানো হচ্ছে। তাঁরা নির্দোষ। এ সময়ে আমার পক্ষের শুকুর আলী ও রওশন শেখকেও মারধর করা হয়েছে। এ ঘটনার পর আমার পক্ষের লোকজন ভয়ে বাড়ি ছেড়েছেন।
জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ওই দুজন দিনমজুর। তাঁরা সন্ত্রাসী প্রকৃতির নয়। অস্ত্র মামলা হলে দুজন নিরাপরাধ লোকের সংসার ধ্বংস হয়ে যাবে। যারা অস্ত্র ধরিয়ে দিয়েছে তাঁদের গ্রেপ্তার করা দরকার।
মারিয়া হোসেন বলেন, আমি বিষয়টি বুধবার দুপুরে শুনেছি। এ বিষয়ে তেমন কিছু জানি না।
লোহাগড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মনিরুল ইসলাম গতকাল বিকেলে জানান, অস্ত্রসহ দুজন লোককে আটক করা হয়েছে বলে গ্রামের লোকজন পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ওই দুজনসহ ওই অস্ত্র নিয়ে এসেছে। পুরো বিষয়টিতে ধুম্রজালের সৃষ্টি হয়েছে। পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা খোঁজ-খবর নিচ্ছেন।