ঢাকায় ১৮ লাখ মানুষের চিকুনগুনিয়ার আশঙ্কা

121

নড়াইলকণ্ঠ : রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে চিকুনগুনিয়া ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা সময়ের ব্যবধানে বেড়েই চলছে। গত ডিসেম্বর থেকে ঢাকা শহরে চিকুনগুনিয়ার প্রকোপ শুরু হলেও এ বছরের এপ্রিল-মে থেকে তা ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে রোগটি। এছাড়া প্রতি ১০ জনের একজন চিকুনগুনিয়া ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এতে আগামী সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সব মিলিয়ে শহরের কমপক্ষে ১৮ লাখ মানুষ এই রোগে আক্রান্ত হতে পারে।
চিকুনগুনিয়া নিয়ে ২০১১ সাল থেকে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) করা তিনটি জরিপের ওপর ভিত্তি করে এই আশঙ্কা করা হচ্ছে।
জুনের মাঝামাঝি থেকে জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত আইইডিসিআর মুঠোফোনে একটি জরিপ করেছে। যার মাধ্যমে ৪ হাজার ৭৭৫ জনের তথ্য তারা সংগ্রহ করেছে। তাদের মধ্যে ৩৫৭ জন চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত। এই হিসাবে আক্রান্তের হার সাড়ে ৭ শতাংশ বলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভায় উল্লেখ করেছিল আইইডিসিআর। কিন্তু প্রতিষ্ঠানটি এখনও এ ফলাফল আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করেনি। এই জরিপ অনুযায়ী, জনসংখ্যার হিসাবে ইতোমধ্যে আক্রান্তর সংখ্যা ১৩ লাখ ৬৭ হাজার।
আইইডিসিআরের সাবেক পরিচালক মাহমুদুর রহমান জানান, ২০১১ সালে ঢাকার দোহার ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে চিকুনগুনিয়া নিয়ে দুটি এবং ২০১৩ সালে ঢাকা শহরের চারটি থানায় ডেঙ্গুর সঙ্গে চিকুনগুনিয়ার পরিস্থিতি নিয়ে একটি জরিপ করা হয়। এসব জরিপের অভিজ্ঞতা থেকে বলা যায়, এ বছর ঢাকা শহরের লোকসংখ্যার ১০ শতাংশ পর্যন্ত এই রোগে আক্রান্ত হতে পারে।
অন্যদিকে, জাতিসংঘের ডিপার্টমেন্ট অব ইকোনমিক অ্যান্ড সোশ্যাল অ্যাফেয়ার্সের জনসংখ্যা বিভাগ বলছে, ঢাকা শহরের জনসংখ্যা ১ কোটি ৮২ লাখ ৩৭ হাজার। ওই সংখ্যার ভিত্তিতে বলা যায়, ১০ শতাংশ, অর্থাৎ ঢাকা শহরে ১৮ লাখ ২৩ হাজারের বেশি মানুষের চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা আছে।
তবে আইইডিসিআরের পরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা বলেন, ‘ঢাকা শহরে ১০ জনে ১ জন চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হতে পারে এই তথ্যের সঙ্গে আমি একমত না।’ এর বাইরে আর কোনো মন্তব্য করতে তিনি অপারগতা প্রকাশ করেন।