ঢাকা ভাসার জন্য , দায় কার সিটি করপোরেশন না ওয়াসা?

130

নড়াইলকণ্ঠ : এ যেন জলের তরে ভাসছে ঢাকা। বৃষ্টির ছোঁয়ায় রাস্তায় উঠে এসেছে নর্দমার পানি। সঙ্গে উন্নয়নকাজের জন্য রাস্তা কেটে রাখা, সংস্কারের অভাবে সড়কে খানাখন্দ আর পরিকল্পিত নিষ্কাশন ব্যবস্থার অভাবে জলাবদ্ধতা— সব মিলিয়ে থমকে গেছে রাজধানী ঢাকা।
গাবতলী থেকে আজিমপুর, মিরপুর থেকে গুলিস্তান কিংবা উত্তরা থেকে যাত্রাবাড়ী— সব পথই হয়ে ওঠে দুর্বিসহ। রাস্তায় নেমে অসহায় নগরবাসী দিশেহারা বোধ করেছে। যদিও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এ বছরই প্রায় ৬০০ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। এর বাইরে নালা, সড়ক ও ফুটপাতের দৈনন্দিন মেরামতে প্রায় ১৮০ কোটি টাকা খরচ করে।
সংস্থার অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী সৈয়দ কুদরত উল্লাহ বলেন, ‘খোঁড়াখুঁড়ি ও বর্ষার পানি জমে যাওয়ার কারণে সড়ক বেশি বেহাল হচ্ছে। তারা এখন চালু রাখার মতো মেরামত করছেন। শুকনো মৌসুমে মূল মেরামতকাজ শেষ হবে।’
সারা বছর খোঁড়াখুঁড়ি ও কাটা স্থানের ভরাট আগের অবস্থায় ফিরে না যাওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘বর্ষার আগেই শেষ করার নির্দেশনা আছে। বিদেশি অর্থায়নের প্রকল্প হলে তা মানা যায় না। একবার সড়ক কেটে ফেললে আগের অবস্থায় নেওয়া যায় না। এগুলো বাস্তবতা। তা মেনেই কাজ করতে হচ্ছে।’
দক্ষিণ সিটি করপোরেশন এলাকায় এখন এক হাজার ৪৮৫ কোটি টাকার বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে। এর বাইরে সংস্থাটি দৈনন্দিন মেরামতেও ব্যয় করছে। সংস্থার অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আসাদুজ্জামান বলেন, ‘গত বছর তারা ২০৬ কিলোমিটার সড়ক মেরামত করেছেন। আগামী বছর প্রায় পৌনে ৩০০ কিলোমিটার সড়ক মেরামত করা হবে। যারা এভাবে রাস্তা কেটে ফেলে রাখছেন, তাদের কাছ থেকে দ্বিগুণ ক্ষতিপূরণ আদায় করা হবে।’
ঢাকার পয়োনিষ্কাশনের দায়িত্ব হচ্ছে ওয়াসার। রাজধানীর সড়কে ১০-১২ ঘণ্টা পানি জমে থাকার কারণ সম্পর্কে ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাকসিম এ খান বলেন, ‘পানি যাওয়ার পথ ভরাট হয়ে আছে। সরতে সমস্যা হচ্ছে। পানি যাওয়ার পথ আটকে রাখা যাবে না, কোনো খাল ভরাট করা যাবে না, বক্স কালভার্ট করা যাবে না—এটা সবাইকে মানতে হবে।’
দৃশ্যমান ২৬টি খালের মধ্যে ১৩টি খালের পাড় বাঁধাই করা হয়েছে, পায়ে চলার পথও আছে। সব কটিকে এর আওতায় আনার চেষ্টা হচ্ছে। তবে সমস্যা হচ্ছে দখলমুক্ত করার পর আবার দখল হয়ে যায়। বর্তমানে ঢাকা ওয়াসা, জেলা প্রশাসন ও সিটি করপোরেশন সমন্বিতভাবে কাজ করছে বলেও জানান তিনি।